ঢাকা, সোমবার 31 October 2016 ১৬ কার্তিক ১৪২৩, ২৯ মহররম ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

খুনিদের বিচার না হওয়া স্বাধীন বাংলাদেশের জন্য লজ্জাজনক -নূরুল ইসলাম বুলবুল

গতকাল রোববার রাজধানীর শহীদ আব্দুল মালেক মিলনায়তনে ছাত্রশিবির ঢাকা মহানগরী উত্তর আয়োজিত ঐতিহাসিক পল্টন ট্রাজেডি দিবস উপলক্ষে আলোকচিত্র প্রদর্শনী পরিদর্শন করেন বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামী ঢাকা মহানগরীর সেক্রেটারি নূরুল ইসলাম বুলবুল

বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামী ঢাকা মহানগরীর সেক্রেটারি ও ইসলামী ছাত্রশিবিরের সাবেক কেন্দ্রীয় সভাপতি নূরুল ইসলাম বুলবুল বলেছেন, ২৮ অক্টোবর ’০৬ সালের বর্বরতা মানব সভ্যতার ইতিহাসে এক কলঙ্কজনক অধ্যায়। অথচ আজ পর্যন্ত খুনিরা বহাল তবিয়তে রয়েছে। ২৮ অক্টোবরের খুনিদের বিচার না হওয়া স্বাধীন বাংলাদেশের জন্য লজ্জাজনক। 

গতকাল রোববার রাজধানীর শহীদ আব্দুল মালেক মিলনায়তনে ছাত্রশিবির ঢাকা মহানগরী উত্তর আয়োজিত ২৮ অক্টোবর ঐতিহাসিক পল্টন ট্রাজেডি দিবস উপলক্ষে আলোকচিত্র প্রদর্শনী পরিদর্শন করতে এসে তিনি এসব কথা বলেন। এ সময় ছাত্রশিবিরের কেন্দ্রীয় সেক্রেটারি জেনারেল ইয়াছিন আরাফাত, কেন্দ্রীয় দপ্তর সম্পাদক মোবারক হোসেন, কেন্দ্রীয় দাওয়া কার্যক্রম সম্পাদক আনিছুর রহমান বিশ্বাস, ঢাকা মহানগরী উত্তর সভাপতি জামিল মাহমুদসহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। 

নূরুল ইসলাম বুলবুল বলেন, পরিকল্পিত এই রাজনৈতিক হত্যাকাণ্ড শুধু বাংলাদেশেই নয়, সারাবিশ্বে নজিরবিহীন। সেদিন যেভাবে মানুষকে প্রকাশ্য রাজপথে পিটিয়ে হত্যা করা হয়েছে, লাশের ওপর খুনিরা পাশবিক উন্মাদনায় নৃত্য করেছে সেই দৃশ্য মানবিক হৃদয়সম্পন্ন সকল মানুষকে কাঁদিয়েছে। বাংলাদেশের মাটিতে এই নৃশংস বর্বর খুিনদের বিচার না হলে আইনের শাসন প্রশ্নবিদ্ধ থেকে যাবে। ২৮ অক্টোবর যে কালো অধ্যায় রচিত হয়েছে তা বাংলাদেশের রাজনীতিকে কলুষিত করেছে। বিভেদকে আরো বাড়িয়ে তুলেছে। ২৮ অক্টোবরের এই খুনিরা বর্তমানে দেশে অস্থিতিশীলতা তৈরির সাথে যেমনিভাবে জড়িত, তেমনিভাবে তারা নানামুখী চক্রান্তেও লিপ্ত। সেদিনের চিহ্নিত খুনিদের অবিলম্বে বিচারের আওতায় আনতেই হবে। 

তিনি আরও বলেন, সেদিন যে পাশবিক কায়দায় আওয়ামী লীগ ও তার শরীকরা নরহত্যায় মেতে উঠেছিল তা শুধু বাংলাদেশ নয় বিশ্বের কোটি কোটি মানুষকে হতবাক করেছে। এ নির্মম হত্যাকাণ্ড ও পাশবিকতায় কেঁদেছে বাংলাদেশ, কেঁদেছে বিশ্বমানবতা। জাতিসংঘের তৎকালীন মহাসচিব থেকে শুরু করে সারাবিশ্বে ওঠে প্রতিবাদের ঝড়। কিন্তু, ২৮ অক্টোবরের পৈশাচিকতার বিচার হওয়া তো দূরের কথা, বর্তমান সরকার ক্ষমতায় আসার পর মামলাই প্রত্যাহার করে নেয়া হয়েছে। সমাজের বিশিষ্টজনেরা বলছেন, মামলা প্রত্যাহার করার মাধ্যমে বিচার পাওয়ার অধিকারও কেড়ে নেয়া হলো। এতেই প্রমাণ হয় এই হত্যাকাণ্ডটি ছিল সম্পূর্ণ পরিকল্পিত। তিনি বলেন, ২৮ অক্টোবরের সেই ষড়যন্ত্রের শিকার দেশের ১৬ কোটি জনগণ। সেদিনের সেই ষড়যন্ত্রের হাত ধরে জাতির কাঁধে চেপে বসে ফ্যাসিবাদের জগদ্দল পাথর। তারা সেদিন ইসলামী আন্দোলনকে চিরতরে নিঃশেষ করে দিতে চেয়েছিল। কিন্তু, তাদের ষড়যন্ত্র সফল হয়নি। কারণ দেশ ও ইসলাম রক্ষায় যারা অকাতরে জীবন বিলিয়ে দিতে পারে তাদেরকে দমিয়ে দিতে পারে জমিনের উপর এমন শক্তির জন্ম হয়নি। শত প্রতিকূলতা অতিক্রম করে ইসলামী আন্দোলন এগিয়ে যাচ্ছে এবং যাবে ইনশাআল্লাহ। 

এসময় তিনি আলোকচিত্র প্রদর্শনীর বিভিন্ন অংশ ঘুরে দেখেন। প্রেস বিজ্ঞপ্তি।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ