ঢাকা, সোমবার 31 October 2016 ১৬ কার্তিক ১৪২৩, ২৯ মহররম ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

আচরণ বিধি লঙ্ঘন সহিংসতার আশঙ্কা

মোঃ লাভলু শেখ পাটগ্রাম : আজ ৩১ অক্টোবর পাটগ্রামের ৩ উপজেলায় ইউপি পরিষদ নির্বাচন। আচরণ বিধি লংঙ্ঘনের অভিযোগ পাওয়া যাচ্ছে। জনগণ সহিংসতার আশঙ্কা করছেন। লালমনিরহাটের স্থগিত ঘোষিত লালমনিরহাট সদর উপজেলার কুলাঘাট, হাতীবান্ধার গোতামারী ও পাটগ্রামের শ্রীরামপুর, পাটগ্রাম, জগতবেড়, কুচলীবাড়ী, জোংড়া ও বুড়িমারী ইউনিয়নের বিশেষ করে ধানের শীষ মার্কার প্রার্থীরা এলাকায় গণসংযোগ করতে পারছেন না।
রোরবার সরেজমিনে পাটগ্রাম ৫নং জোংড়া ইউনিয়নে গেলে এলাকার সুধিরের ছেলে নিরনজন (২৮), মধু রায়ের ছেলে সুশিল (৩২) হারাধন রায়ের ছেলে শ্রী দুলাল চন্দ্র রায় (৪০), অমূল্যর ছেলে মন্টু চন্দ্র রায় (৩৫) ও উমিক চন্দ্রের ছেলে নিরোজ চন্দ্র রায় (৪২) জানান ধানের শীষ মার্কার প্রার্থী বাবু সুধীর চন্দ্র রায় এলাকায় গণসংযোগ করতে পারছেন না। একই ইউনিয়নের নৌকা প্রতীকের প্রার্থী মোঃ আশরাফ আলী তার লেলিয়ে দেয়া বখাটে ও সন্ত্রাসী প্রকৃতির লোকজন দিয়ে বিভিন্ন ভয় ভীতির মাধ্যমে এলাকায় আতংক ছড়িয়ে ধানের শীষের ভোট দিতে নিষেধ করছেন। ধানের শীষের প্রার্থী বাবু সুধীর চন্দ্র রায় সাংবাদিকদের অভিযোগ করে বলেন এমন অবস্থার সৃষ্টি করেছেন। সাধারণ ভোটাররা আতংকিত। ৩নং জগতবেড় ইউনিয়নের ধানের শীষের প্রার্থী সাবেক চেয়ারম্যান মোঃ মোখলেছুর রহমান জানান নৌকা প্রতীকের নবিবর রহমানের লেলিয়ে দেয়া সন্ত্রাসী লোকজন আমাকে ও নির্বাচনী কর্মীদের ভয়ভীতি ও মাইকিং করতে বাধা সৃষ্টি করছে। ওই এলাকার ভোটার নফর উদ্দিনের ছেলে মোঃ মোশারফ (২৫), মৃত্যু শমসুদ্দিনের ছেলে মোঃ আমিনুর (৫০), মৃত্য আঃ মজিদের ছেলে হযরত (৪২), ওসমান আলীর ছেলে মোঃ রুবেল (৩০) ও নফর উদ্দিনের ছেলে মোঃ জাবেদ আলী (৬০) জানান নৌকা প্রতীকের কর্মীরা ভয়ভীতি প্রদর্শন করছেন। এতে করে সাধারণ ভোটাররা আতংকিত এবং ভোটের দিন অনেকেই ভোট দিতে যাবে না বলে সাংবাদিকদের জানায়। ১নং  শ্রীরামপুর ইউনিয়নের বর্তমান চেয়ারম্যান ও প্রবীণ রাজনীতিবিদ ও ঐত্যিবাহী পরিবারের সদস্য আলহাজ্ব মোঃ আব্দুল করিম প্রধান ধানেরশীষ প্রতীক নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। রোববার বিকেলে দৈনিক সংগ্রাম কে দেয়া এক স্বাক্ষাৎকারে তিনি বলেছেন, নৌকার প্রার্থী মোঃ আবুল হাসেম এর লেলিয়ে দেয়া সন্ত্রাসী কর্মীবাহিনী মোঃ আঃ আলিম (৩০), মোঃ মজিবুর রহমান (২৫), সাইফুল (২৫) ও ওয়ারেন্ট ভুক্ত আসামী মোঃ তোজাম্মেলসহ ২০/৩০ জনের ১টি সন্ত্রাসী দল শ্রীরামপুরের পুরো ইউনিয়নে ধানেরশীষের বিরুদ্ধে অপ্রচার ভায়ভীতি ও মাইকিং করতেও বাধা দিচ্ছেন। তার মাইকিংকারী রিকসা চালক মোঃ হাসান(২৫), মোঃ স্বপন (২০) ও মোঃ মজিবুর ইসলাম (৩৫) জানায় তার লেলিয়ে দেয়া সন্ত্রাসী লোকজন ৪০/৪৫টি মোটরসাইকেলের মোহরা সাজিয়ে দিন-রাতে প্রকাশ্য ধানের শীষ প্রতীকে ভোট দিতে নিষেধ এবং এমনকি মাইকিং এর মেমোরি কার্ড সেট থেকে খুলে নিয়ে প্রচারণায় বাধা সৃষ্টি করছেন। ১৯৭৩ সাল থেকে একাধারে ওই ইউনিয়নের চেয়ারম্যান হিসেবে সুনামের সাথে দায়িত্ব পালনকারী মোঃ আব্দুল করিম প্রধান আরও জানায় গত ১৩ অক্টোবর থেকে গত ২০ অক্টোবর পর্যন্ত রিটানিং অফিসার বরাবরে আচরণ বিধি লঙ্ঘনের মোট পৃথক ৮টি লিখিত অভিযোগ করেও কোন প্রতিকার পায়নি। তাই শান্তিপূর্ণ নির্বাচন হবে কি হবে না এ নিয়ে অনেকটাই সংশয় প্রকাশ করেছেন, তিনি অবিলম্বে ভোটের নামে সন্ত্রাসী কর্মকান্ড ও কুৎসা বা অপ্রচার থেকে বিরত থাকার আহবান জানান। তবে নৌকা প্রতীকের প্রার্থীরা এ অভিযোগ অস্বীকার করেছেন। পাটগ্রামের কুচলীবাড়ী, বুড়িমারী ও পাটগ্রাম ইউনিয়নে একই অবস্থা বিরাজ করছে। পাটগ্রাম উপজেলা নির্বাচন অফিসার মোঃ আফতাব হোসেন জানান নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নিয়োগ করা হয়েছে। এ ব্যাপারে  সোমবার নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট এ.টি.এম. এ মমিনের সাথে মোবাইলে যোগাযোগ করে তাকে পাওয়া যায়নি। পাটগ্রাম থানার অফিসার ইনচার্জ শ্রী অবনি শঙ্কর কর জানান কয়েকটি জায়গায় মোবাইল কোট বসানো রয়েছে। কোন প্রকার আচরণ বিধি লঙ্ঘন অথবা আইন শৃঙ্খলার অবনতি ঘটানোর চেষ্টা করলে কঠোর হাতে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। আমরা অবাদ সুষ্ঠ ও নিরপেক্ষ নির্বাচন উপহার দেওয়ার লক্ষ্যে কাজ করে যাচ্ছি। আশাবাদী কোন প্রকার সহিংসতা ছাড়াই নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। 
হাতীবান্ধা উপজেলার গাতামারী ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের প্রচার-প্রচারণায় কোন প্রার্থীর বিরুদ্ধে আচরণ বিধি লঙ্ঘনের কোন অভিযোগ পাওয়া যায়নি। তবে নৌকার প্রার্থী মোঃ আবুল কাশেম সাবু এবারে ধানের শীষের প্রার্থী মোঃ আব্দুল জলিল মিয়ার কাছে পরাজিত হওয়ার সম্ভবনা রয়েছে বলে মন্তব্য সাধারণ ভোটারদের। অপর দিকে কুলাঘাট ইউনিয়নের নৌকা ও ধানের শীষের হাড্ডা-হাড্ডি লড়াই হবে বলে ভোটারা জানান।
৩ উপজেলায় ৩৪ জন চেয়ারম্যান প্রার্থী, সাধারণ ওয়ার্ড সদস্য ২৯১ ও মহিলা ওয়ার্ড সদস্য ১৭৭জন বলে লালমনিরহাট জেলা নির্বাচন অফিস নিশ্চিত করেছেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ