ঢাকা, সোমবার 31 October 2016 ১৬ কার্তিক ১৪২৩, ২৯ মহররম ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

কাজের সুযোগ সীমিত হচ্ছে বড় শিল্পে ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পে কর্মসংস্থান বাড়ছে

স্টাফ রিপোর্টার : বিনিয়োগের মন্দাভাবের কারণে বড় শিল্পে কর্মসংস্থান বাড়ছে না। তবে পিছিয়ে নেই ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প (এসএমই খাত)। গত এক বছরের পরিসংখ্যানে দেখা গেছে এসএমই খাতে কর্মসংস্থান হয়েছে ৬ কোটি ১৭ লাখ বেকার যুবকের। আর এই সংখ্যা দেশের মোট জনসংখ্যার শতকরা হিসেবে ৬৩ শতাংশ।
সম্প্রতি  বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ব্যাংক ম্যানেজমেন্টের (বিআইবিএম) এক গবেষণায় বলা হয়েছে, ২০০০ সালে এসএমই খাতে অর্থায়ন ছিল ১৬ হাজার ২৬৭ কোটি টাকা। ওই বছরে এসএমই খাতনির্ভর শ্রমশক্তি ছিল ৩ কোটি ৯০ লাখ। এর পর থেকে ধারাবাহিকভাবে বাড়তে থাকে এ খাতে ব্যাংকগুলোর অর্থায়ন ও মানুষের কর্মসংস্থান।
২০১০ সালে এসএমই খাতে অর্থায়ন দাঁড়ায় ৬৯ হাজার ৫২৬ কোটি টাকা। সে সময় এ খাতের ওপর নির্ভরশীল ছিল ৫ কোটি ৪১ লাখ শ্রমশক্তি। পরবর্তী পাঁচ বছর শেষে ২০১৫ সালে এসএমই খাতে অর্থায়ন বেড়ে দাঁড়ায় ১ লাখ ৪৮ হাজার ৭৯২ কোটি টাকায়। এ সময়ে এ খাতে শ্রমশক্তি ৬ কোটি ১৭ লাখ ৪৭ হাজারে উন্নীত হয়েছে। অর্থাৎ দেশের বেসরকারি খাতের কর্মসংস্থানের ৯৯ শতাংশই এসএমই খাতনির্ভর।
এদিকে প্রতিষ্ঠানটির গবেষণায় আরো বলা হয়েছে, ২০১৫ অর্থবছর শেষে দেশে এসএমই খাতে কর্মসংস্থান হয়েছে ৬ কোটি ১৭ লাখ মানুষের, যা দেশের মোট শ্রমশক্তির প্রায় ৬৩ শতাংশ। পরিসংখ্যান ব্যুরোর ২০১৫ সালের বাংলাদেশ স্যাম্পল ভাইটাল স্ট্যাটিসটিকস অনুযায়ী দেশের মোট জনসংখ্যা ১৫ কোটি ৮৯ লাখ। এর মধ্যে কর্মক্ষম মানুষের সংখ্যা (১৫-৬০ বছর বয়সী) ৯ কোটি ৭৬ লাখ।
সম্প্রতি  রাজধানীর বিআইবিএম মিলনায়তনে সংস্থাটির আয়োজনে ‘এসএমই ফিন্যান্স অ্যান্ড ইনক্লুসিভ গ্রোথ: বাংলাদেশ পার্সপেক্টিভ’ শীর্ষক একটি সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়। ওই সেমিনারে বিআইবিএমের গবেষণা প্রতিবেদনটি প্রবন্ধ আকারে উপস্থাপন করা হয়েছে। বিআইবিএম পরিচালক অধ্যাপক ড. প্রশান্ত কুমার ব্যানার্জির  নেতৃত্বে চারজন গবেষণা প্রতিবেদনটি প্রস্তুত করেন।
সেমিনারে অংশ নিয়ে বাংলাদেশ ব্যাংকের ডেপুটি গভর্নর এস কে সুর চৌধুরী বলেন, বাংলাদেশের অন্তর্ভুক্তিমূলক অর্থনৈতিক উন্নয়নে এসএমই খাত প্রধান উপাদান হিসেবে কাজ করছে। অতিক্ষুদ্র, ক্ষুদ্র ও মাঝারি প্রতিষ্ঠানগুলো দেশের প্রান্তিক ও পিছিয়ে থাকা জনগোষ্ঠীর দারিদ্র্য দূরীকরণ এবং গ্রামীণ উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে।
তিনি বলেন, বাংলাদেশ ব্যাংক এসএমই খাতকে সমৃদ্ধ করতে যথাযথ পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে। ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোকে এসএমই খাতে ঋণ প্রদানে উৎসাহিত করছে। এসএমই খাতের মোট অর্থের ১৫ শতাংশ বাংলাদেশ ব্যাংক সর্বোচ্চ ১০ শতাংশ সুদে নারী উদ্যোক্তাদের জন্য বরাদ্দ রেখেছে। এছাড়া কুটির শিল্প, অতিক্ষুদ্র ও ক্ষুদ্র শিল্পের জন্য বাংলাদেশ ব্যাংক ১০০ কোটি টাকার পুনঃঅর্থায়ন তহবিল গঠন করেছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ