ঢাকা, সোমবার 31 October 2016 ১৬ কার্তিক ১৪২৩, ২৯ মহররম ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

খুলনায় জুট মিল কর্মকর্তাকে হত্যার চেষ্টা চালিয়েছে আওয়ামী লীগ নেতা

খুলনা অফিস : খুলনা মহানগরীর খালিশপুর জুট মিলে পঁচা পাট গ্রহণ না করায় মিল কর্মকর্তাকে পিস্তল ঠেকিয়ে হত্যা চেষ্টা চালিয়েছেন থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি মনিরুল ইসলাম বাশার। রোববার সকাল ১০টায় ওই পাট কর্মকর্তার রুমে ঢুকে এ ঘটনা ঘটান প্রভাবশালী ওই আওয়ামী লীগ নেতা। এ ঘটনায় জুট মিলের কর্মকর্তা কর্মচারীদের মধ্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে। এ ছাড়াও মিলের সিবিএ সাধারণ সম্পাদক আরেক কর্মকর্তাকে পিটিয়ে গুরুতর জখম করে হাসপাতালে পাঠিয়েছেন।
মিল সূত্রে জানা গেছে, সম্প্রতি খালিশপুর জুট মিলে কিছু নিম্নমানের পাট গছিয়ে দেয়ার চেষ্টা করেন খালিশপুর থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শেখ মনিরুল ইসলাম বাশার। তবে পাটের গুণগত মান নিয়ে প্রশ্ন তোলে মিল কর্তৃপক্ষ। জোর করেই পাট মিল কর্তৃপক্ষকে বুঝিয়ে দিতে ওই আওয়ামী লীগ নেতা বার বার চাপ প্রয়োগ করেন। বিষয়টি নিয়ে গত দুই সপ্তাহ ধরেই তদারকি চলে। তবে মিল কর্তৃপক্ষ নিম্নমানের পাট গ্রহণ না করায় বাশার রোববার আবারও মিলের ফিনিশিং বিভাগের তত্ত্বাবধায়ক জিয়াউর রহমানের নিকট গিয়ে পাট নিতে চাপ প্রয়োগ করেন। তবে ওই কর্মকর্তা পাট নিতে আবারও অস্বীকার করলে বাশার উত্তেজিত হয়ে পড়েন। এ সময় তিনি তার পকেটে থাকা পিস্তল ঠেকিয়ে ধরেন জিয়াউর রহমানের মাথায়। এ সময় জিয়াউর রহমানের পাশেই অবস্থানরত মিলের প্রকল্প প্রধান ড. জুলফিকার আলী ও ফাইন্যান্স বিভাগের জিএম ইমারত হোসেন মাঝখানে এসে আবুল বাশারকে বাঁধা দেন। এভাবে তিনবার তিনি গুলী করতে উদ্যত হন এবং অন্যরা বাঁধা দেন।
তবে এ বিষয় নিয়ে কোনো কিছু প্রশ্ন করতে সাংবাদিকদের নিষেধ করেছেন মিলের প্রকল্প প্রধান ড. জুলফিকার। তিনি বলেন, আমরা মিলে কোনো পঁচা ও নিম্নমানের পাট গ্রহণ করবো না।
এদিকে ঘটনার পর থেকে পাওয়া যাচ্ছে না আওয়ামী লীগ নেতা আবুল বাশারকে। রোববার তার মুঠোফোনে না পেয়ে বাড়িতে গিয়েও খোঁজ পাওয়া যায়নি।
এদিকে মিল কর্মকর্তা জিয়াউর রহমানের দু’টো মোবাইল ফোনই রোববার সারাদিন বন্ধ রাখা হয়।
অপরদিকে মিলের সহকারি উৎপাদন কর্মকর্তা মোকলেসুর রহমানকে পিটিয়ে আহত করেছে সিবিএ সাধারণ সম্পাদক মো. ইব্রাহিম। রোববার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে মিলের উৎপাদন ব্যবস্থা নিয়ে সিবিএ সভাপতি দ্বীন মোহাম্মদ ওই কর্মকর্তার সাথে খারাপ ব্যবহার করেন। এর প্রতিবাদ জানালে সাধারণ সম্পাদক মো. ইব্রাহিম এলোপাতাড়ি কিল ঘুষি মেরে মোকলেসুর রহমানকে পিটিয়ে গুরুতর জখম করেন। পরে তাকে স্থানীয়রা খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করেন। এ ঘটনায় খালিশপুর থানায় একটি জিডি এন্ট্রি করেছেন মিল কর্তৃপক্ষ।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ