ঢাকা, সোমবার 31 October 2016 ১৬ কার্তিক ১৪২৩, ২৯ মহররম ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

২৮ অক্টোবর চলে গেলেও তার নির্মম বিষ-জ্বালা জাতি আজও ভোগ করছে -শফিউল আলম প্রধান

স্টাফ রিপোর্টার : জাতীয় গণতান্ত্রিক পার্টি জাগপার সভাপতি শফিউল আলম প্রধান বলেছেন, ২৮ অক্টোবর চলে গেলেও তার নির্মম বিষের জ্বালা সমগ্র জাতি আজ ভোগ করছে। আমরা সেদিন দেখেছি লগি-বৈঠার তাণ্ডব। দেশে আইন থাকলেও আইনের শাসন নেই বলেও মন্তব্য করেন ২০ দলীয় জোটের অন্যতম এই শীর্ষ নেতা।
গতকাল রোববার জাতীয় প্রেস ক্লাবের হলরুমে সুশীল ফোরামের আয়োজনে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন। ২৮শে অক্টোবর উপলক্ষে বাংলাদেশের বর্তমান অবস্থা ও আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচন শীর্ষক আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়। 
শফিউল আলম প্রধান বলেন, ২৮শে অক্টোবর শুধু আওয়ামী লীগের লগি-বৈঠার নির্যাতনই ছিল না, সেদিন ছিল গণতন্ত্রকে কবর দেয়ার দিন। আওয়ামী লীগের হাতে ও ঠোঁটে রক্ত, তাদের সাথে কিসের সংলাপ। যারা  হাজারো নেতা-কর্মীসহ সাধারণ মানুষর গুম-খুন করছে।
তিনি বলেন, স্বৈরাচারের কখনো এমনিতে পতন হয় না। রাজপথে আন্দোলন করেই স্বৈরাচারের পতন ঘটাতে হয়। আইয়ুব খান ও এরশাদের আন্দোলনের মাধ্যমে পতন হয়েছে। বর্তমান স্বৈরাচারী সরকারেরও রাজপথে আন্দোলনের মাধ্যমে পতন ঘটাতে হবে। তাদের সাথে কোনো সংলাপ নয়। একমাত্র আন্দোলনই এখন আসল পথ।
জাগপা সভাপতি উল্লেখ করেন, ২৮ অক্টোবর চলে গেলেও তার নির্মম বিষের জ্বালা সমগ্র জাতি আজ ভোগ করছে। আমরা দেখেছি সেদিনের লগি-বৈঠার তাণ্ডব। আমরা গ্রহণযোগ্য নির্বাচনের জন্য নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকার চাই। কিন্তু শেখ হাসিনাকে ক্ষমতায় রেখে অবাধ নির্বাচন হতে পারে না।
২০ দলের শীর্ষ এ নেতা বলেন, দেশে আইন থাকলেও আইনের কোনো শাসন নেই। এখানে একটা দেশ আছে দেশের স্বাধীনতা নেই, ভূখণ্ড আছে সার্বভৌমত্ব নেই, আইন আছে আইনের শাসন নেই। যে গণতন্ত্রের জন্য আমরা লড়াই করেছি সেই গণতন্ত্রকে আজ কবর দেয়া হয়েছে। তিনি বলেন, এরশাদকে আন্দোলনের মাধ্যমে যেভাবে সরানো হয়েছে এ সরকারকেও সেভাবে সরাতে হবে।
ভুয়া মার্কা শেখ হাসিনাকে রেখে দেশে কখনো সুষ্ঠু নির্বাচন হতে পারে না এমন মন্তব্য করে জাগপা’র সভাপতি বলেন, গদিতে শেখ হাসিনা। তার কাছে নিরপেক্ষ নির্বাচন কমিশন চেয়ে কোনো লাভ হবে না। শেখ হাসিনা গদিতে থাকলে নিরপেক্ষ নির্বাচন কমিশন গঠন সম্ভব নয়। নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচন ছাড়া অন্য কোনো বিকল্প নেই বলেও মন্তব্য করেন তিনি।
আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন সুশীল ফোরামের সভাপতি মো. জাহিদ। এতে উপস্থিত ছিলেন বিএনপি চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা হাবিবুর রহমান হাবিব, জাতীয়তাবাদী যুবদলের সিনিয়র সহ-সভাপতি আব্দুস সালাম আজাদ, তথ্য ও গবেষণা বিষয়ক সম্পাদক এবিএম মোশারফ হোসেন, কামরুজ্জামান সেলিম, হাফিজুর রহমান কবির, ইকবাল হোসেন বাবলু প্রমুখ।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ