ঢাকা, বুধবার 02 November 2016 ১৮ কার্তিক ১৪২৩, ১ সফর ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

ভারত-পাকিস্তান গোলাগুলীতে চারদিনে নিহত ১৮

১ নবেম্বর, রয়টার্স : কাশ্মীরের বিতর্কিত সীমান্ত বরাবর ভারত-পাকিস্তানের মধ্যে সাম্প্রতিক গোলাগুলীতে অন্তত ১৮ জন নিহত হয়েছেন।

দুইপক্ষের হিসাব অনুযায়ী গত শুক্রবার থেকে গতকাল মঙ্গলবার পর্যন্ত এসব মানুষ নিহত হয়েছেন।

কাশ্মীরের তথাকথিত নিয়ন্ত্রণ রেখা বরাবর দুপক্ষের এসব গোলাগুলীতে হাল্কা অস্ত্র থেকে কামান ও মর্টারের গোলা পর্যন্ত ব্যবহƒত হচ্ছে।

সেপ্টেম্বরে ভারত নিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরে একটি সেনা শিবিরে হামলায় ১৯ ভারতীয় সেনা নিহত হওয়ার পর থেকে দু’পক্ষের মধ্যে উত্তেজনা শুরু হয়। এর বদলায় কাশ্মীরে ‘সার্জিক্যাল হামলা’ চালানো হয়েছে বলে দাবি করে ভারত।

এর পর থেকে দুপক্ষই ধারাবাহিকভাবে পরস্পরের বিরুদ্ধে ২০০৩ সালের যুদ্ধবিরতির শর্ত লঙ্ঘন করার অভিযোগ আনতে থাকে। বর্তমানে কূটনৈতিক পর্যায়েও দুপক্ষের মধ্যে শীতল সম্পর্ক বিরাজ করছে এবং বিতর্কিত সীমান্তে নিয়মিত গোলাগুলীর ঘটনা ঘটে চলেছে।

পাকিস্তানি কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, গত সোমবার কাশ্মীরে তাদের নিয়ন্ত্রিত অংশের নাকিয়ালে নিয়ন্ত্রণ রেখার অপর পার থেকে ভারতীয় বাহিনীর ছোঁড়া গুলীতে অন্তত চারজন নিহত ও পাঁচজন আহত হয়েছেন।

ওই এলাকার মোহরা গ্রামের বাসিন্দা মোহাম্মদ সাঈদ বলেন, “মনে হচ্ছে ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যে পুরো মাত্রায় যুদ্ধ চলছে।”

গুলীর আওয়াজের মধ্যেই তিনি টেলিফোনে বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে বলেন, “দয়া করে এসব বন্ধ করুন।”

শুক্রবার ও শনিবার নাকিয়াল ও পার্শ্ববর্তী টাট্টা পানি সেক্টরে ভারতীয় বাহিনীর গুলীর্বষণে ছয়জন নিহত ও ১০ জন আহত হন বলে জানিয়েছে পাকিস্তান।

অপরদিকে নিয়ন্ত্রণ রেখার অপর পাশে ভারত নিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরের রামগড়ে মঙ্গলবার পাকিস্তানি বাহিনীর গোলাবর্ষণে এক বালিকা নিহত ও অপর তিনজন আহত হয়েছেন বলে জানিয়েছেন এক জ্যেষ্ঠ পুলিশ কর্মকর্তা।

সোমবার রাজৌরি সেক্টরে পাকিস্তানি বাহিনীর গুলীতে এক ভারতীয় সেনা ও এক বেসামরিক নিহত হন বলে জানিয়েছেন ভারতীয় সেনাবাহিনীর এক মুখপাত্র।

কাশ্মীরের নিয়ন্ত্রণ রেখা বরাবর দুপক্ষের ক্রমবর্ধমান গোলাগুলী বিনিময়ের ঘটনায় ভারত-পাকিস্তান বড় ধরনের যুদ্ধে জড়িয়ে পড়তে পারে বলে আশঙ্কা দেখা দিয়েছে।

এছাড়া ভারতের জম্মু ও কাশ্মির সীমান্তে পাকিস্তানি বাহিনীর গুলিতে দুই শিশু ও তিন নারীসহ পাঁচজন নিহত হয়েছেন। গতকাল মঙ্গলবার জম্মুর সীমান্তবর্তী গ্রাম রামগড়ে এ ঘটনা ঘটে।

ভারতীয় পুলিশ সূত্র জানায়, পাকিস্তানি সেনাবাহিনী নির্বিবাদে রামগড়ের সাধারণ নাগরিক ও আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের ওপর গুলি চালায়।

এতে এতে রেশাব ও অভি নামের দুইটি পাঁচ বছরের শিশু নিহত হয় ও আরও আটজন আহত হয়।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ