ঢাকা, বুধবার 02 November 2016 ১৮ কার্তিক ১৪২৩, ১ সফর ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

মেয়র মান্নানের পর এবার হিসাবরক্ষণ কর্মকর্তা গ্রেফতার

গাজীপুর সংবাদদাতা : ত্রাণ ও দরিদ্র তহবিলের প্রায় অর্ধ কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগে দুদকের মামলায় গাজীপুর সিটি কর্পোরেশেনের (জিসিসি) হিসাব রক্ষণ কর্মকর্তা মোঃ গোলাম কিবরিয়াকে মঙ্গলবার গ্রেফতার করা হয়েছে। মঙ্গলবার সকালে দুদকের একটি দল গাজীপুর সিটি করপোরেশনের কার্যালয় থেকে তাকে আটক করে জয়দেবপুর থানায় নিয়ে যায়। পরে তাকে গাজীপুর আদালতে প্রেরণ করা হলে আদালত তাকে জেল হাজতে পাঠানোর নির্দেশ দেন। একই মামলার প্রধান আসামী জিসিসি’র মেয়র (সাময়িক বরখাস্তকৃত) ও বিএনপি চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা অধ্যাপক এমএ মান্নানও ইতোপূর্বে গ্রেফতার হয়েছেন।

দুদকের উপ-পরিচালক মো. সামছুল আলম জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে মঙ্গলবার সকালে তারা গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের নগর ভবন কার্যালয়ে অভিযান চালিয়ে জিসিসি’র হিসাব রক্ষণ কর্মকর্তা মোঃ গোলাম কিবরিয়াকে গ্রেফতার করা হয়। পরে তাকে গাজীপুরের আদালতে প্রেরণ করা হলে আদালত জেল হাজতে পাঠানোর নির্দেশ দেন। জিসিসি’র ত্রাণ ও দরিদ্র তহবিলের প্রায় অর্ধ কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগে দুদকের দায়ের করা মামলায় জিসিসি’র তৎকালীন হিসাব রক্ষণ কর্মকর্তা মোঃ গোলাম কিবরিয়াকে আসামী করা হয়। এ মামলায় জিসিসি’র মেয়র (সাময়িক বরখাস্তকৃত) অধ্যাপক এমএ মান্নানকে প্রধান আসামী করা হয়।

গাজীপুর আদালতের ইন্সপেক্টর রবিউল ইসলাম মামলার উদ্ধৃতি দিয়ে জানান, গাজীপুর সিটি কর্পোরেশেনের মেয়র হিসাবে দায়িত্ব পালন কালে ২০১৩ সালের ১৮ আগস্ট হতে ২০১৫ সালের ২ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত সময়কালে গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের ত্রাণ ও দরিদ্র তহবিলে মোট ১ কোটি ৩ লাখ ৮ হাজার ১৩২ টাকা আয় দেখানো হয়। ত্রাণ ও দরিদ্র তহবিলের আয়সমূহ কোন ব্যাংক হিসাবে জমা না রেখে নিয়ম বহির্ভূতভাবে ‘ক্যাশ ইন হ্যান্ড’ হিসেবে হিসাব রক্ষণ কর্মকর্তা মোঃ গোলাম কিবরিয়ার নিকট সংরক্ষিত রাখেন। এর মধ্যে ৯০ লাখ ৪৭ হাজার ৮৪৬ টাকা খরচ দেখানো হয়। এই খরচের টাকার মধ্যে থেকে ৪৯ লাখ এক হাজার ৮৪৮ টাকা ক্ষমতার অপব্যবহার, প্রতারণা ও অপরাধমূলক বিশ্বাস ভঙ্গের মাধ্যমে ভুয়া গ্রহীতা দেখিয়ে ৯৯৯টি ভুয়াভাবে সৃজিত ভাউচারের মাধ্যমে আত্মসাৎ করার প্রমাণ পায় দুদক। জিসিসি মেয়র অধ্যাপক এমএ মান্নান এবং হিসাব রক্ষণ কর্মকর্তা মোঃ গোলাম কিবরিয়া পরস্পর যোগসাজশে অনুদান এবং ব্যয় দেখিয়ে উক্ত পরিমাণ অর্থ আত্মসাৎ করেছেন। এ অপরাধে তাদের বিরুদ্ধে দন্ডবিধির ৪০৯/১০৯/৪৬৭/৪৬৮/৪৭১ ধারা এবং ১৯৪৭ সালের দুর্নীতি প্রতিরোধ আইনের ৫(২) ধারায় মামলাটি দায়ের করা হয়। অধ্যাপক এমএ মান্নানকে প্রধান আসামী করে দুদকের প্রধান কার্যালয়ের উপপরিচালক (বিঃ অনুঃ ও তদন্ত-১) মোঃ সামছুল আলম বাদী হয়ে গত ১৩ জুন গাজীপুরের জয়দেবপুর থানায় এ মামলাটি দায়ের করেন। এতে দুর্নীতি দমন কমিশনের অনুমোদন রয়েছে। কারাগারে বন্দী মেয়র (সাময়িক বরখাস্তকৃত) অধ্যাপক এমএ মান্নান এ মামলায় ইতোমধ্যে গ্রেফতার হন ।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ