ঢাকা, শুক্রবার 04 November 2016 ২০ কার্তিক ১৪২৩, ৩ সফর ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

আজ থেকে শুরু হচ্ছে বিপিএলের চতুর্থ আসর

স্পোর্টস রিপোর্টার : আজ থেকে মাঠে গড়াচ্ছে বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের (বিপিএল) চতুর্থ আসর। উদ্বোধনী দিনের প্রথম ম্যাচে মুখোমুখি হবে গত আসরের চ্যাম্পিয়ন কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স ও রাজশাহী কিংস। একই দিনে দ্বিতীয় ম্যাচে রংপুর রাইডার্স লড়বে খুলনা টাইটানসের বিপক্ষে। দিনের প্রথম ম্যাচ শুরু হবে দুপুর ২টায়। আর দ্বিতীয় ম্যাচ শুরু হবে সন্ধ্যা ৭টায়। প্রতিবারের মতো এবারও প্রতিদিন দুটি করে ম্যাচ হবে। দুপুর দুইটায় ও সন্ধ্যা সাতটায়। তবে জুমার নামাযের জন্য শুক্রবারের ম্যাচগুলো ৩০ মিনিট পিছিয়ে শুরু করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে বিপিএল গভর্নিং কাউন্সিল। এবারের আসরে দুটি ভেন্যুতে হবে বিপিএলের ম্যাচ গুলো। ১৩ নবেম্বর পর্যন্ত প্রথম রাউন্ডের ১৬টি ম্যাচ অনুষ্ঠিত হবে মিরপুর শেরে বাংলা ক্রিকেট স্টেডিয়ামে। এরপর দলগুলো চট্টগ্রামে চলে যাবে। সেখানে ১৭ নবেম্বর থেকে ২৫ নবেম্বর পর্যন্ত চট্টগ্রামে অনুষ্ঠিত হবে। এরপর ঢাকায় ফিরে আসবে দলগুলো। মিরপুরে হবে কোয়ালিফায়ার, এলিমিনেটর ও ফাইনাল ম্যাচ। ডাবল লিগ পদ্ধতির এ টুর্নামেন্টে মোট ম্যাচ হবে ৪৬ টি। ৪২ টি লিগ ম্যাচ, একটি এলিমিনেটর, দুটি কোয়ালিফাইয়ার ও ফাইনাল। লিগের শীর্ষ দুই দল খেলবে কোয়ালিফায়ার। আর তিন ও চার নম্বর দল খেলবে এলিমিনেটর। কোয়ালিফায়ারে জয়ী দল সরাসরি ফাইনাল খেলবে আর পরাজিত দল এলিমিনেটরে জয়ী দলের সঙ্গে দ্বিতীয় কোয়ালিফায়ারে মুখোমুখি হবে। জয়ী দল ফাইনাল খেলবে প্রথম কোয়ালিফায়ারের বিজয়ীর বিপক্ষে। ৬ ডিসেম্বর হবে এলিমিনেটর। একইদিন সন্ধ্যায় হবে প্রথম কোয়ালিফায়ার। ৭ নবেম্বর হবে ২য় কোয়ালিফায়ার। দুই  কোয়ালিফায়ারের দুই বিজয়ী দল ফাইনালে মুখোমুখি হবে ৯ ডিসেম্বর। এবার ফাইনালের জন্য রাখা হয়েছে রিজার্ভ ডে। এবারের আসরে অংশ নিচ্ছে সাতটি দল। দলগুলো হচ্ছে ঢাকা ডায়নামাইটস, চিটাগং ভাইকিংস, বরিশাল বুলস, খুলনা টাইটানস, রাজশাহী কিংস, রংপুর রাইডার্স ও কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স। গত আসরে ছয়টি দলকে নিয়ে অনুষ্ঠিত হয়েছিলো বিপিএলের তৃতীয় আসর। লীগ পর্বে ১০টি ম্যাচে অংশ নিয়ে টেবিলের শীর্ষ চার দল হয়ে এলিমিনেটর ও কোয়ালিফাইয়ার রাউন্ডে উঠে প্রথমবারের মত বিপিএল খেলতে নামা কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স, বরিশাল বুলস, রংপুর রাইডার্স ও ঢাকা ডায়নামাইটস। আর লীগ পর্ব থেকে বিদায় নেয় সিলেট সুপার স্টার্স ও চিটাগাং ভাইকিংস। এলিমিনেটর ও  কোয়ালিফাইয়ারে জিতে ফাইনালে উঠে কুমিল্লা ও বরিশাল। ফাইনালে শ্বাসরুদ্ধকর ম্যাচে বরিশালকে ৩ উইকেটে হারিয়ে নিজেদের প্রথম আসরেই বাজিমাত করে মাশরাফির নেতৃত্বাধীন কুমিল্লা। জিতে নেয় বিপিএলের শিরোপা। তাই বর্তমান চ্যাম্পিয়ন হয়ে ফেভারিটের তকমা নিয়েই বিপিএলের চতুর্থ আসরে খেলতে নামছে কুমিল্লা। এবারও দলটির লক্ষ্য শিরোপা জয়, শিরোপা ধরে রাখা। দলের নেতৃত্বে এবারও আছেন মাশরাফি। তার সাথে লড়াইয়ে আছেন বাংলাদেশের টেস্ট ম্যাচ জয়ী দলের ওপেনার ইমরুল কায়েস। এছাড়াও উইকেটরক্ষক লিটন দাস, অভিজ্ঞ পেসার  মোহাম্মদ শরীফ ও স্পিনার নাবিল সামাদ। আর বিদেশীদের মধ্যে আছেন পাকিস্তানের আহমেদ শেহজাদ, ইমাদ ওয়াসিম, খালিদ লতিফ, শাহজিব হাসান, সোহেল তানভীর,  গেল আসরের সেরা খেলোয়াড় আসার জাইদি, শ্রীলংকার নুয়ান কুলাসেকেরা, আফগানিস্তানের রশিদ খান, ওয়েস্ট ইন্ডিজের জেসন হোল্ডার ও রোভম্যান পাওয়েল। এক মৌসুম পর নতুন মালিকানায় আবারো বিপিএলে ফিরেছে রাজশাহী। এবার দলটির নাম রাজশাহী কিংস। দলটির অধিনায়কের দায়িত্ব পালন করবেন ওয়েস্ট ইন্ডিজের টি-২০ বিশ্বকাপ জয়ী অধিনায়ক ড্যারেন স্যামি। দলের উল্লেখযোগ্য খেলোয়াড়রা হলেন- সাব্বির রহমান, মেহেদি হাসান মিরাজ, মোমিনুল হক, শ্রীলংকা উপুল থারাঙ্গা ও মিলিন্দা সিরিবর্ধনে, পাকিস্তানের উমর আকমল ও মোহাম্মদ সামি। তাই দলটির সকল বিভাগই অনেক বেশি ব্যালেন্সড। কুমিল্লার সাথে লড়াই করার জন্য সবধরনের অস্ত্রই রাজশাহীর রয়েছে। লড়াইয়ে শামিল হবে কুমিল্লাও। কারণ পাকিস্তান ও ওয়েস্ট ইন্ডিজের  খেলোয়াড়দের নিয়ে গড়া দলটিও অনেক বেশি শক্তিশালী। এছাড়া গেল আসরের চ্যাম্পিয়নের তকমায় অনেকখানি এগিয়ে রাখবে কুমিল্লাকে। তাই বিপিএলের চতুর্থ আসরের উদ্বোধনী ম্যাচেই হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ের প্রত্যাশায় থাকবে ক্রিকেট ভক্তরা। উদ্বোধনী দিনের দ্বিতীয় ম্যাচে লড়বে রংপুর রাইডার্স ও খুলনা টাইটানস। রাজশাহীর মত এক মৌসুম পর বিপিএলে ফিরলো খুলনাও। গেল বছর সাকিবের  নেতৃত্বে এলিমিনেটর ২ থেকে বিদায় নেয় দলটি। তবে এবার আর রংপুরের স্কোয়াডে নেই সাকিব। বাংলাদেশের সেরা এই অলরাউন্ডারকে দলে ভিড়িয়েছে ঢাকা ডায়নামাইটস। তাই রংপুরের সাফল্য নির্ভর করছে সৌম্য সরকার, রুবেল হোসেন, সোহাগ গাজী, আরাফাত সানি, পাকিস্তানের শহিদ আফ্রিদি, শারজিল খান, নাসির জামশেদ, আফগানিস্তানের  মোহাম্মদ শেহজাদের উপর। দলের নেতৃত্বে থাকবেন পাকিস্তানের আফ্রিদি। রংপুরের মত তারকা সমৃদ্ধ দল নয় খুলনা। দেশী খেলোয়াড়দের মধ্যে দলে আছেন মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ, অলক কাপালি,মোশাররফহোসেন রুবেল হোসেন ও শুভাগত হোম। গেল আসরের ফাইনালে ৩৯ রানের দুর্দান্ত এক ইনিংস খেলে কুমিল্লাকে শিরোপা এনে দেয়া ম্যাচের সেরা কাপালি এবার খেলবেন খুলনার হয়ে। বিদেশীদের মধ্যে আছেন ওয়েস্ট ইন্ডিজের লেন্ডল সিমন্স, কেভন কুপার, আন্দ্রে ফ্লেচার ও পাকিস্তানের জুনায়েদ খান। এক মাসেরও বেশি সময় জুড়ে টি-২০ ক্রিকেটে মাতবে পুরো বাংলাদেশে। প্রথমবারের মতো বিপিএলে টাইটেল স্পন্সর হিসেবে যোগ হলো আবুল খায়ের স্টিলস। তাই এবারের বিপিএল-এর নাম ‘একেএস বিপিএল টি-টোয়েন্টি পাওয়ার্ড বাই শাহ সিমেন্ট।’ গতকাল এ উপলক্ষে মিরপুর শেরে বাংলা  স্টেডিয়ামে এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানানো হয়। সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন বিসিবির প্রধান নির্বাহী নিজামউদ্দিন চৌধুরী সুজন, বিপিএল গভর্নিং কাউন্সিলের সদস্য সচিব ইসমাইল হায়দার মল্লিক এবং স্পন্সর কোম্পানির পক্ষে ব্যবস্থাপনা পরিচালক নওশাদ করিম চৌধুরী।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ