ঢাকা, শুক্রবার 04 November 2016 ২০ কার্তিক ১৪২৩, ৩ সফর ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

ইউপিতে দলীয় প্রতীকে নির্বাচনের বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে রিট

স্টাফ রিপোর্টার : ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনে রাজনৈতিক দলের পরিচয়ে প্রার্থী করার বৈধতা চ্যালেঞ্জ করে হাইকোর্টে একটি রিট আবেদন করা হয়েছে। রিটে সরকারের মন্ত্রিপরিষদ সচিব, রাষ্ট্রপতির কার্যালয়ের সচিব, আইন সচিব, নির্বাচন কমিশনের সচিব, সরকার সচিবসহ সংশ্লিষ্টদের বিবাদী করা হয়েছে।

গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরের পর হাইকোর্টের সংশ্লিষ্ট শাখায় হিউম্যান রাইটস এন্ড পিস ফর বাংলাদেশের পক্ষে এর চেয়ারম্যান আইনজীবী মনজিল মোরসেদ রিট আবেদনটি দায়ের করেন। 

রিটে স্থানীয় সরকার (ইউপি নির্বাচন) সংশোধন আইন (২০১৫) এর ২৬ ধারা চ্যালেঞ্জ করা হয়েছে। ২০০৯ সালের ১৯ (ক) ধারা সংশোধন করে তাতে রাজনৈতিক দলের বিধান সংযোজন করা হয়।

এরআগে গত ২৬ সেপ্টেম্বর স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদের প্রার্থীদের রাজনৈতিক দলের মনোনয়নের বিধান সংক্রান্ত স্থানীয় সরকার (ইউনিয়ন পরিষদ) আইন (সংশোধন) ২০১৫ বাতিল চেয়ে লিগ্যাল নোটিশ পাঠানো হয়েছিল। রিটকারী সংগঠনের পক্ষে আইনজীবী মনজিল মোরসেদ ডাকযোগে এই নোটিশ পাঠিয়েছিলেন। 

নোটিশে বলা হয়, স্বাধীনতার পর প্রণীত সংবিধানে স্থানীয় সরকারকে অরাজনৈতিক প্রতিষ্ঠান হিসেবে রাখা হয় এবং সব নির্বাচন সেই অনুসারে হয়েছে। পরবর্তীতে ২০০৬ সালে গ্রাম আদালত গঠন করে বিচারের দায়িত্ব চেয়ারম্যানকে দেয়া হয়েছে। নিরপেক্ষ ও স্বাধীন বিচার করার দায়িত্ব দেয়া হলেও যিনি রাজনৈতিক দলের মনোনয়নে নির্বাচিত হবেন তার কাছ থেকে বিরোধীরা নিরপেক্ষ ও ন্যায় বিচার পাবেন না। কুদরত ইলাহী পনির বনাম বাংলাদেশ মামলার রায়ে সুপ্রিম কোর্ট স্থানীয় প্রশাসনকে একটি স্বাধীন প্রতিষ্ঠান হিসেবে বর্ণনা করা হয়েছে। তা সত্ত্বেও স্থানীয় সরকার (ইউনিয়ন পরিষদ) আইন, ২০০৯ সংশোধন করে চেয়ারম্যান পদের প্রার্থীকে রাজনৈতিক মনোনয়নের বিধান সংযোজন করে ২০১৫ সালে আইনটি সংশোধন করে। যাতে স্থানীয় সরকারের স্বাধীন ও নিরপেক্ষ চরিত্র খর্ব করা হয়েছে। 

নোটিশে বলা হয়, বাহাত্তরের সংবিধানের ১১, ৫৯ ও ৬০ অনুচ্ছেদেও স্থানীয় সরকার ব্যবস্থাকে অরাজনৈতিক রাখা হয়েছে। ইউপি চেয়ারম্যান প্রার্থীরা রাজনৈতিক দলের মনোনয়নে গত নির্বাচনে অংশগ্রহণ করে, যেখানে শত শত মানুষ সহিংসতায় নিহত ও আহত হয়েছে। যার মাধ্যমে প্রমাণ হয় আমাদের সমাজে এ ধরনের ব্যবস্থা কার্যকর নয়।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ