ঢাকা, শুক্রবার 04 November 2016 ২০ কার্তিক ১৪২৩, ৩ সফর ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

বাগেরহাটে হাতবোমা ও অস্ত্রসহ জেএমবির চার সদস্য আটক 

বাগেহরহাট সংবাদদাতা : বাগেরহাট শহরের দড়াটানা ব্রিজ সংলগ্ন এলাকায় পুলিশের সাথে বন্দুকযুদ্ধের পর চার জেএমবি সদস্যকে আটক করা হয়েছে। গত বুধবার গভীর রাতে পুলিশের সাথে এই বন্দুক যুদ্ধের ঘটনা ঘটে। আটক চার জেএমবি সদস্যের মধ্যে ৩ জন সাতক্ষীরা জেলার এবং অন্যজন পিরোজপুর জেলার বাসিন্দা বলে পুলিশ জানায়। এ সময় জেএমবি সদস্যদের ছোড়া হাতবোমায় বাগেরহাট মডেল থানার এএসআই মোস্তাফিজুর রহমান ও কনস্টেবল নাজমুল হোসেন আহত হয়েছেন। পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে জেএমবি সদস্যদের ব্যবহৃত একটি ওয়ান সুটার গান, গুলী, ৪টি ককটেল ও বোমা তৈরির সরঞ্জাম উদ্ধার করে। 

বাগেরহাটের পুলিশ সুপার পংকজ চন্দ্র রায় জানান, গত বুধবার গভীর রাতে সংঘবদ্ধ ওই চার জেএমবি সদস্য শহরের দড়াটানা ব্রিজ সংলগ্ন আনসার উদ্দিনের চায়ের দোকানে বসে বৈঠক করছে-এমন গোপন সংবাদ পেয়ে বাগেরহাট জেলা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার গৌতম কুমার বিশ্বাস ও সহকারী পুলিশ সুপার জিয়াউর রহমানের নেতৃত্বে পুলিশের দুটি দল সেখানে যায়। এ সময় পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে জেএমবি সদস্যরা পুলিশের উপর হাতবোমার বিস্ফোরণ ঘটায় ও গুলী ছুঁড়ে পালিয়ে যাবার চেষ্টা করে। পরে পুলিশও আত্মরক্ষার্থে শটগানের গুলী ছোঁড়ে। গুলীবিনিময়ের পর পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে সাতক্ষীরা জেলার বাসিন্দা জেএমবি সদস্য মো. মোরশেদ আলম (২০), সাইফুল ইসলাম (৩৬), মো. মাসুদুর রহমান (২৪) এবং পিরোজপুর জেলার মো. জহিরুল ইসলামকে আটক করে। 

বাগেরহাট মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. মিজানুর রহমান খান জানান, এ ঘটনায় আটক ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে সরকারি কাজে বাঁধা, অস্ত্র আইন, বিস্ফোরক আইন এবং তথ্য যোগাযোগ ও প্রযুক্তি আইনে বাগেরহাট মডেল থানায় পৃথক চারটি মামলা হয়েছে। আটককৃত ৪ জেএমবি সদস্যকে আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে। 

উলেখ্য, গত ২৫ অক্টোবর কচুয়া উপজেলার মঘিয়া এলাকা থেকে আরও ৪ জেএমবি সদস্যকে আটক করা হয়েছিল।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ