ঢাকা, শুক্রবার 04 November 2016 ২০ কার্তিক ১৪২৩, ৩ সফর ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

শরীয়তপুরে পুলিশ নির্যাতনের মামলায় ভাইস চেয়ারম্যানসহ ২জন গ্রেফতার

শরীয়তপুর সংবাদদাতা : শরীয়তপুরে চড় মেরে পুলিশ সদস্যের কানের পর্দা ফাটিয়ে দেয়ার পর পুলিশ ও সদর হাসপাতালের চিকিৎসকদের দায়ের করা মামলার আসামী শরীয়তপুর সদর উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতিসহ ২জনকে ঢাকা থেকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে ঢাকার শেরে বাংলানগর থানা পুলিশের সহযোগিতায় পালং মডেল থানা পুলিশ সংসদ ভবন এলাকার নেম ভবন সড়ক থেকে তাদেরকে গ্রেফতার করে। গ্রেফতারের বিষয়টি পালং মডেল থানার ওসি মোঃ খলিলুর রহমান নিশ্চিত করেছেন।
পালং মডেল থানা ও শরীয়তপুর সদর হাসপাতালের ডাক্তার দেবাশীষ সাহা জানান, শরীয়তপুর সদর উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান আলমগীর হোসেন হাওলাদার, তাঁর ভাগ্নে শরীয়তপুর সদর উপজেলা ছাত্রলীগের সহসভাপতি আকতার হোসেন ঢালি ও আওয়ামী লীগ নেতা শেখ খলিলুর রহমান জাগরণ গত মঙ্গলবার সকালে সদর হাসপাতালে গিয়ে হাসপাতালের কর্তব্যরত ডাক্তার দেবাশীষ সাহা’র কাছে একটি ভুয়া সনদ দেয়ার জন্য চাপ প্রয়োগ করে। ডাক্তার মিথ্যা সনদ দিতে অস্বীকার করলে তখন অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে। এতে ডাক্তারের কাছে চিকিৎসা নিতে আসা রোগী পুলিশের নায়েক সেলিমুজ্জামন মাতুব্বর প্রতিবাদ করলে পুলিশ সদস্যকে মারধর ও চড় মেরে কানের পর্দা ফাটিয়ে ফেলে ছাত্রলীগ নেতা আক্তার ঢালী ও আওয়ামী লীগ নেতা ও পালং তুলাসার মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি শেখ খলিলুর রহমান জাগরণ। এ ঘটনার পর হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক সিভিল সার্জনসহ ৮ জন ডাক্তারের যৌথ স্বাক্ষরে  শরীয়তপুর সদর উপজেলার ভাইস চেয়ারম্যান আলমগীর হোসেন হাওলাদার, আওয়ামী লীগ নেতা জাগরনণ শেখ ও শরীয়তপুর সদর উপজেলা ছাত্রলীগের সহসভাপতি আকতার ঢালীকে আসামী করে সরকারি কাজে বাধা দানের ধারায় একটি অভিযোগপত্র পালং মডের থানায় দাখিল করা হয়।
পর দিন পালং মডেল থানার উপ-পরিদর্শক মোঃ নজরুল ইসলাম বাদী হয়ে পুলিশ সদস্যের কানের পর্দা ফাটানোর ঘটনায় ডাক্তারদের দায়ের করা মামলার আসামীদের আসামী করে আরো একটি মামলা দায়ের করে। ঘটনার ৩দিন পর মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এস আই শেখ নজরুল ইসলামের নেতৃত্বে আসামীদের গ্রেফতারের জন্য বিভিন্ন স্থানে অভিযান পরিচালনা করে। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে জানতে পারে আসামীরা ঢাকার শেরে বাংলা নগর এলাকায় অবস্থান করছে। আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে ঢাকার শেরে বাংলানগর থানা পুলিশের সহযোগিতায় পালং মডেল থানার উপ-পরিদর্শক মোঃ নজরুল ইসলামের নেতৃত্বে পুলিশের একটি সংসদ ভবনে পূর্ব পার্শ্বেও নেম ভবনের সামনের সড়ক থেকে শরীয়তপুর সদর উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান ও জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি আলমগীর হোসেন হাওলাদার ও আওয়ামী লীগ নেতা শেখ খলিলুর রহমান জাগরণকে গ্রেফতার করে শেরে বাংলানগর থানায় নিয়ে যায়।
পালং মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো: খলিলুর রহমান বলেন, দুটি মামলার আসামী সদর উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান আলমগীর হোসেন হাওলাদার ও শেখ খলিলুর রহমান জাগরণকে ঢাকা শেরেবাংলা নগর থানা পুলিশের সহায়তায় নেম ভবনের সামনের সড়ক থেকে গ্রেফতার করা হয়েছে। দ্রুত সময়ের মধ্যে তাঁদেরকে শরীয়তপুর এনে পরবর্তী আইনী কার্যক্রম পরিচালনা করা হবে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ