ঢাকা, রোববার 06 November 2016 ২২ কার্তিক ১৪২৩, ৫ সফর ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

চলনবিলের বৃক্ষ প্রেমিক আতাউল গনির লাগানো বৃক্ষে সবুজের সমাহার

সিংড়া (নাটোর) সংবাদদাতা : চলনবিলের বৃক্ষ প্রেমিক আতাউল গনি। ২০০৫ হতে ১১ বছরের নিরব সাধনায় মহাসড়ক, খালের পাড়, গ্রামের কাঁচা মেঠোপথের দুধারে বনায়ন ও স্বেচ্ছায় গোরস্থান, শ্মশান, বাজার,শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ধর্মীয় ও সামাজিক প্রতিষ্ঠানে ৫০ হাজারের অধিক গাছের চারা বিতরণ করেন তিনি। নিজ উপজেলা সিংড়ার চলনবিলসহ নাটোরের বিভিন্ন এলাকা ও রাজশাহী জেলাধীন গোদাগাড়ী উপজেলা পিরিজপুর ইউ,পি’র পিরিজপুর হতে হিজলগাছি হয়ে চানগোবিন্দপুর পর্যন্ত ৩.৫ কি.মি. সহ মোট প্রায় ৩০ কি.মি. ধরে ফলদ, বনজ ও ঔষুধি বৃক্ষে পূর্ণ সবুজের সমাহার সৃজনে আতাউল গনি হয়ে উঠেছেন সফল বৃক্ষসখা। আতাউল গনির বাড়ি উপজেলার চৌগ্রামে।
নাটোর-বগুড়া মহাসড়কে রাস্তার উভয় পাশে সবুজের অফুরন্ত সমাহার চোখে পড়ার মত। এর মধ্যে উল্লেখ যোগ্য হিয়ালা ব্রিজ হতে চৌগ্রাম বাজার  ব্রিজ পর্যন্ত ৫ কি. মি. মহাসড়কের উভয় পাশে চৌগ্রাম মুচিপাড়া হতে বড়িয়া হয়ে ইটালি পর্যন্ত প্রায় ৭ কি. মি. রাস্তার উভয় পাশে, নাটোর-বগুড়া মহাসড়কের কৈগ্রাম হতে সিঁকিচড়া ব্রিজ পর্যন্ত প্রায় ৩ কি. মি. কাঁচা রাস্তার উভয় পাশে, সিংড়া উপজেলার ১০ নং ইউ,পি’র নিমাকদমা হতে সোয়াইর গ্রাম স্কুল পর্যন্ত ৩ কি. মি. সহ তার এখন ১১ টি প্রতিষ্ঠিত বাগান রয়েছে।
বাগানের গাছ গুলো এখন ২০’-৩০’ উচ্চতা ও ১৫”-৩২” বেড়ে মোটা রয়েছে এছাড়াও চলতি বছর বগুড়া-নাটোর মহাসড়কের হিয়ালা ব্রিজ হতে চৌগ্রাম লালঘর ব্রিজ এবং চৌগ্রাম রথবাড়ি হতে জামতলি বাজার পর্যন্ত ১২হাজার সহ নিমাকদমা,বড়িয়া,চৌগ্রাম,নাটোর সদরের শের-ই বাংলা হাইস্কলুসহ বিভিন্ন জায়গার গোরস্থান, শ্মশান, বাজার,শিক্ষা প্রতিষ্ঠান,সামাজিক প্রতিষ্ঠানে নিজ উদ্যোগে ও ব্যক্তিগত সহায়তায় বৃক্ষের সমাহার ঘটিয়েছেন।
সাবেক সিংড়া উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার  বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ আবুল হোসেন বলেন, আমরা আনন্দিত ১৯৭১, এ যেখানে স্বদেশ শত্রু মুক্ত করার জন্য লড়াই করে সফল হয়েছি। আতাউল গনি পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষায় নিজ উদ্যোগে গাছ লাগিয়ে যাচ্ছেন। তার এ উদ্যোগ মানব গোষ্ঠি ও প্রকৃতি এবং বিশ্ব প্রাণিকূলের জন্য কল্যাণকর।
চৌগ্রাম সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় প্রধান শিক্ষক শ্রী কৃষ্ণপদ কর্মকার বলেন, বৃক্ষসখার নিরলস পরিশ্রমে সবুজ গড়ার কারিগরের গাছ প্রায় লক্ষের কোটায়।
এম. কে কলেজের অধ্যক্ষ মোঃ আব্দুর রাজ্জাক বলেন,  আমি বৃক্ষসখা’র গাছ লাগানোর শুরু হতে আজ পর্যন্ত তাকে যতই দেখছি অবাক হচ্ছি,প্রায় অসাধ্য অথচ মহৎ এক কাজ করে চলেছেন তিনি।
উপজেলা বন কর্মকর্তা আব্দুল্লাহ জানান, আতাউল গনি একজন সফল বনায়নকারী। তিনি বনায়নের মাধ্যমে সিংড়াকে সবুজ এবং পরিবেশ রক্ষায় অবদান রেখে আসছেন।
পরিবেশ উন্নয়ন প্রকৃতি সংরক্ষণ ফোরামের সাধারণ সম্পাদক রাজু আহমেদ বলেন, বৃক্ষের প্রতি পরিবেশের প্রতি তার মমত্তবোধ রয়েছে। যার জন্য তিনি উপজেলাসহ বিভিন্ন স্থানে সফলতার সাথে বৃক্ষরোপন করে যাচ্ছেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ