ঢাকা, রোববার 06 November 2016 ২২ কার্তিক ১৪২৩, ৫ সফর ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

আ’লীগ রাজনীতির বাইরে গিয়ে রাষ্ট্রীয় সন্ত্রাস তৈরি করেছে ॥ গণতন্ত্র এখন পুলিশের কাছে বন্দী

স্টাফ রিপোর্টার : বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী বলেছেন, আওয়ামী লীগের এখন কোনো রাজনীতি নেই। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আওয়ামী লীগকে এখন রাজনীতির বাইরে নিয়ে গেছেন। দলটি রাজনীতির বাইরে গিয়ে রাষ্ট্রীয় সন্ত্রাস  তৈরি করেছে, যার মাধ্যমে ক্ষমতা দখল করে নির্বাচনী প্রজেক্টের মাধ্যমে নির্বাচনের নাম দিয়ে রাষ্ট্র পরিচালনা করছে।
গতকাল শনিবার দুপুরে রাজধানীর সেগুনবাগিচার ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে (ডিআরইউ) গাজীপুর সিটি করপোরেশনের মেয়র অধ্যাপক এম এ মান্নান মুক্তি পরিষদ আয়োজিত প্রতিবাদ সভায় তিনি একথা বলেন। বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান গাজীপুর সিটি করপোরেশনের বরখাস্তকৃত মেয়র অধ্যাপক এম এ মান্নানের মুক্তির দাবিতে এ সভা হয়। গাজীপুর জেলা বিএনপির সভাপতি ফজলুল হক মিলনের সভাপতিত্বে এতে আরো বক্তব্য রাখেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী, সহ-শ্রমিক বিষয়ক সম্পাদক হুমায়ূন কবির খান, স্বেচ্ছাসেবক দলের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল কাদের ভূঁইয়া জুয়েল প্রমুখ।
আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী বলেন, এটা ঠিক-আওয়ামী লীগে অনেক প্রবীণ নেতা আছেন, যারা সত্যিকার অর্থে আওয়ামী লীগের রাজনীতি তথা আইনের শাসন, গণতন্ত্র ও বাক-স্বাধীনতায় বিশ্বাস করেন। কিন্তু দলটিতে এখন তাদের কোনো জায়গা নেই। আওয়ামী লীগের এই অংশটি এখন আর রাজনীতি করছেন না। আওয়ামী লীগের যারা এখন রাজনীতি করছেন তারা অপশক্তি।
৭ নবেম্বর বিএনপির রাজনীতির উৎস এমন দাবি করে দলটির এই নেতা বলেন, দেশে গণতন্ত্র, আইনের শাসন, বাক-স্বাধীনতা ও গণমাধ্যমের স্বাধীনতা আবারো বন্দী হয়ে গেছে। তাই আরেকটি ৭ নভেম্বরের মাধ্যমে এ অবস্থা থেকে দেশ ও জাতিকে মুক্ত করতে হবে। এজন্য জাতিকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে।
রুহুল কবির রিজভী বলেন, রাজনৈতিক দলগুলোর যেকোনো রাজনৈতিক কর্মসূচি পালনের অধিকার রয়েছে। কিন্তু গণতন্ত্র এখন পুলিশের কাছে বন্দী। গণতান্ত্রিক সব অধিকার কেড়ে নিয়ে পুলিশ এখন সভা-সমাবেশের অনুমতি দেয়া না দেয়ার মালিক হয়েছে। তা না হলে রাজনৈতিক কর্মসূচি পালনে পুলিশের অনুমতি লাগবে কেনো? আসলে সভা-সমাবেশ ও প্রবল গণআন্দোলনের জোয়ারকে প্রধানমন্ত্রী ভয় পান। সেজন্য জাতীয় রাজনীতিতে ৭ নবেম্বরের মতো একটি ঐতিহাসিক ও স্মরণীয় দিবস পালনে বাধা প্রদান করছেন তিনি।
বিএনপি ৮ নবেম্বর নয়াপল্টনে সমাবেশের প্রস্তুতি নিচ্ছে জানিয়ে তিনি বলেন, গণতন্ত্রের প্রতি ন্যূনতম শ্রদ্ধা থাকলে সেখানে সমাবেশের অনুমতি দিন। পার্টি অফিসের সামনে নির্বিঘ্নে সভা-সমাবেশ করা যায়।
অধ্যাপক এম এ মান্নান ও বিএনপির যুগ্ম-মহাসচিব হাবিব-উন-নবী খান সোহেলসহ নেতাদের কারাগারে বন্দী থাকার বিষয়টি উল্লেখ করে তিনি বলেন, বন্দীশালা থেকে এদেরকে মুক্ত করতে এই সরকারকে বিদায় করতে হবে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ