ঢাকা, সোমবার 07 November 2016 ২৩ কার্তিক ১৪২৩, ৬ সফর ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

জাতীয়করণ হওয়া কলেজ শিক্ষকদের ক্যাডারে মানা হবে না

স্টাফ রিপোর্টার : জাতীয়করণ হওয়া কলেজ শিক্ষকদের বিসিএস শিক্ষা ক্যাডারে অন্তর্ভুক্তি হওয়া মানবেন না বিসিএস সাধারণ শিক্ষা সমিতি। তারা বলেছেন, জাতীয়করণ হওয়া শিক্ষকদের ননক্যাডারে অন্তর্ভুক্ত করতে হবে এবং তাঁদের চাকরি শুধু ওই জাতীয়করণ হওয়া কলেজেই সীমাবদ্ধ থাকতে হবে।
গতকাল রোববার জাতীয় প্রেস ক্লাবে এক সাংবাদিক সম্মেলনে সমিতির নেতারা এই দাবি জানান। এই দাবি পূরণে তাঁরা নিয়মতান্ত্রিক আন্দোলন করবেন বলেও জানিয়েছেন।
সাংবাদিক সম্মেলনে বলা হয়, যেসব উপজেলায় কোনো সরকারি কলেজ নেই,সেসব উপজেলায় একটি করে  বেসরকারি কলেজকে সরকারি করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। ইতিমধ্যে কিছু কলেজকে সরকারি করা হয়েছে। এ ছাড়া দুই দফায় আরও ২শ’২২টি কলেজকে সরকারি করার জন্য তালিকাভুক্ত করা হয়েছে। সব মিলিয়ে ৩শ’১৫টির মতো  বেসরকারি কলেজ জাতীয়করণ হওয়ার কথা। এসব কলেজে মোট শিক্ষকের সংখ্যা প্রায় আট হাজার।
সাংবাদিক সম্মেলনে সমিতির নেতারা বলেছেন, তাঁরা কয়েকটি ধাপে প্রতিযোগিতামূলক পরীক্ষার মাধ্যমে বিসিএস ক্যাডারে অন্তর্ভুক্ত হন। এখন জাতীয়করণ হওয়া শিক্ষকেরা যদি সরাসরি ক্যাডারে অন্তর্ভুক্ত হন, তাহলে বিদ্যমান বিসিএস শিক্ষা ক্যাডারের কর্মকর্তারা সিনিয়রিটি হারাবেন। এর ফলে নতুন প্রজন্মের মেধাবী শিক্ষকরাও মারাত্মক ক্ষতিগ্রস্ত হবেন। বিসিএস শিক্ষা ক্যাডার আর  কোনোভাবে মেধাবীদের আকর্ষণ করতে পারবে না। এ ছাড়া বিসিএস শিক্ষা ক্যাডারে বর্তমান প্রায় ১৫ হাজার শিক্ষক সংখ্যালঘুতে পরিণত হবেন, যা ক্যাডারের শৃঙ্খলায় বিপর্যয় নিয়ে আসতে পারে।
সমিতির নেতারা আরও জানান, তাঁরা জাতীয়করণের বিরোধিতা করছেন না, বরং বিষয়টি তাঁরা স্বাগত জানাচ্ছেন। তাঁদের মূল আপত্তি ওই সব কলেজের শিক্ষকদের বিসিএসে শিক্ষা ক্যাডারে অন্তর্ভুক্ত করা নিয়ে।
তারা বলেন, জাতীয় শিক্ষানীতি অনুযায়ী বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান সরকারিকরণের জন্য সুনির্দিষ্ট নীতিমালা করতে হবে।
সাংবাদিক সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পড়েন সমিতির মহাসচিব শাহেদুল খবির চৌধুরী। আরও বক্তব্য দেন সমিতির সভাপতি আই কে সেলিম উল্লাহ খোন্দকার।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ