ঢাকা, বুধবার 09 November 2016 ২৫ কার্তিক ১৪২৩, ৮ সফর ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

বিশ্বের ১০টি ভয়ংকর সুইমিং পুল

জাফর ইকবাল : সাঁতার জানে শহুরে বসবাসরত নাগরিকের সংখ্যা অনেক কম। যাদের শৈশব বা জীবনের একটি অংশ গ্রামে কেটেছে তাদের কাছে সাঁতারটা একটি নিয়মিত ঘটনা। কিন্তু শহরে সাঁতার কাটার বিষয়টি যেন অনেকের কাছেই অচেনা। গ্রামে অসংখ্য পুকুর থাকলেও নগরীতে তেমনটি নেই। প্রাচীনকালে শহরেও কিছু পুকুর থাকলেও সময়ের সাথে সাথে সেগুলো ভরাট হয়ে গেছে। পুকুর নেই কি হয়েছে। তাই বলে কি সাঁতার কাটা যাবেনা? মাটি খুঁড়ে পুকুর বানানো না গেলেও বিলাসবহুল বাড়ি বা হোটেলেই গড়ে উঠেছে সুইমিং পুল। বর্তমানে বিলাসবহুল হোটেল কিংবা কোনো অবকাশ যাপন কেন্দ্রেই রয়েছে সাঁতার কাটার এই বিশেষ আয়োজ। সুযোগ পেলে সুইমিংপুলের নীল পানিতে অনেকেই ভাসান নিজেকে। তবে গতানুগতিক সুইমিং পুলের পাশাপাশি বিশ্বে কিন্তু বেশ কিছু বিস্ময়কর সুইমিং পুলও রয়েছে। এসব সুইমিং পুল যেমন রোমাঞ্চকর তেমনি আবার মনে ভয়ের ধরিয়ে দেয় অনেকের। এ প্রতিবেদনে পরিচিত হয়ে নিন এমন কয়েকটি সুইমিং পুলের সঙ্গে।
হলিডে ইন-সাংহাই, চায়না : ১০০ মিটার ওপরে অবস্থিত ঝুলন্ত এই সুইমিং পুল শরীরে শিহরণ জাগানোর মতো। বিশেষ করে সুইমিং পুলের নিচের দিকটা কাচের হওয়ায়, নিচে তাকালে পিলে চমকে যাওয়ার মতো অবস্থা হতে পারে।
নেমো ৩৩-ব্রাসেলস, বেলজিয়াম: এই সুইমিং পুলটি ২০০৭ সাল পর্যন্ত বিশ্বের সবচেয়ে গভীর সুইমিং পুল হিসেবে খ্যাত ছিল। ইনডোর এই গভীর সুইমিং পুলের নিচে বিভিন্ন গুহা রয়েছে, যা আবদ্ধতার অনুভূতি দেয়। সাঁতার ছাড়াও ডাইভিং প্রশিক্ষণ ও সিনেমার শুটিংয়ে এই সুইমিং পুল ব্যবহার করা হয়। পুলটির তাপমাত্রা সবসময় ৯৬ ডিগ্রি ফারেনহাইটে স্থির থাকে।
 দ্য লাইব্রেরি ব্লাড-রেড পুল-কোহ সামুই, থাইল্যান্ড : থাইল্যান্ডে বেড়াতে যাবার জন্য আপনাকে কাছে টানবে কোহ সামুই এর রঙিন পুল। ভাবছেন নাম আবার রেড পুল কেন? এই সুইমিং পুলের টাইলসের রঙ লাল, কমলা এবং হলুদের মিশ্রণ। সব মিশ্রণে পানির রঙ লাল রঙ ধারণ করে।
উবুদ হ্যাংগিং গার্ডেনস- বালি, ইন্দোনেশিয়া: যারা নিজেকে চ্যালেঞ্জ জানাতে ইচ্ছুক, তারা এই সুইমিং পুলে যেতে পারেন। দুই স্তরের এই সুইমিং পুলের ওপরের স্তরে সাঁতার কেটে পুরো এলাকা নজর কাড়বে এবং নিচের স্তরের সুইমিং পুল বাগানঘেরা ঝুলন্ত। দুই স্তরেই সাহসিকতার প্রয়োজন পড়বে। স্কাই কন্ডোজ- লিমা, পেরু:  স্কাই কন্ডোজ নামক অভিনব ডিজাইনের এই ভবনের বিভিন্ন ফ্লোরে স্বতন্ত্র সুইমিং পুল রয়েছে। যেখানে গেলে আপনার মনে হবে আপনি আকাশের মধ্যে ঝুলন্ত কোনো স্থানে সাঁতার কাটছেন।
 নফিনিটি পুল, ম্যারিনা স্যান্ডস রিসোর্ট- সিঙ্গাপুর :  এটাকে আকাশ ছোঁয়া সুইমিং পুল বলা যেতে পারে। একটি ছাদ এবং সেই ছাদটি যদি হয় ৫৮ তলার ওপর? রোমাঞ্চকর ব্যাপার হচ্ছে, এই ৫৮ তলার ওপর রয়েছে ইনফিনিটি সুইমিং পুল। সুইমিং পুলের ক্ষেত্রে এটি বিশ্বের সবচেয়ে উচু স্থানে অবস্থিত সুইমিং পুল হিসেবে খ্যাত।
গোল্ডেন নাগেট- লাস ভেগাস, নেভাদা : আপনার যদি অধিক উচ্চতার সুইমিং পুলেও শিহরিত না হোন, তা হলে গোল্ডেন লাগেট সুইমিং পুলে যেতে পারেন, এটি নিশ্চিতভাবেই আপনাকে শিহরিত করতে যথেষ্ট। কারণ এই সুইমিং পুলে হাঙর এবং সামুদ্রিক অন্যান্য প্রাণী আপনার সঙ্গে সাঁতরাবে। যদিও আপনি স্বচ্ছ পাইপের মধ্যে নিরাপদে থাকবেন, তারপরও আপনার কাছাকাছি সামুদ্রিক প্রাণীগুলো মনে ভয় ধরিয়ে দিতে যথেষ্ট।
বান্দ্রা ওহম টাওয়ার ব্যালকনি পুলস- মুম্বই, ভারত : ৩৭ তলা বিশিষ্ট মুম্বইয়ের বান্দ্রার ওমহ টাওয়ারের প্রতিটি তলার ব্যালকনিতে স্বচ্ছ দেওয়ালের সুইমিং পুল রয়েছে। যেখানে সাঁতার ঝুঁকিপূর্ণও বটে।
স্কাই হ্যাবিটাল সুইমিং ব্রিজ- সিঙ্গাপুর : ৩৮ তলার অভিজাত দুইটি ভবনের ওপরে সংযোগ দিয়ে তৈরি করা হয়েছে এই সুইমিং পুলটি।
দ্য ডেভিলস্ পুল- ভিক্টোরিয়া ফলস্, দক্ষিণ আফ্রিকা : বিশ্বের সবচেয়ে বড় জলপ্রপাত প্রান্তের ওপর শুধুমাত্র ছোট একটি পাথরের প্রাচীর দিয়ে এই সুইমিং পুল তৈরি করা হয়েছে। এই সুইমিং পুলটি শুধু তখনি ব্যবহার করা যায় যখন জলপ্রপাতের পানি ঝরে যায়, অন্যথায় জলপ্রপাতের নিচে পড়ে অকাল মৃত্যু নিশ্চিত।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ