ঢাকা, রোববার 13 November 2016 ২৯ কার্তিক ১৪২৩, ১২ সফর ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

অনন্য এক উদারতা

ইকবাল কবীর মোহন : নাম আবদুল্লাহ বিন মুবারক (রহ)। ইরাকের এক মরু শহরে তিনি বাস করতেন। তাঁর ছিল বেশ ধন-সম্পদ। তবে তিনি ছিলেন বেশ উদার। আবদুল্লাহ বেশি বেশি হজ করতেন। তাই তাঁর আত্মীয়-স্বজন ও বন্ধু-বান্ধবরাও তাঁর সাথে হজে যেতে ইচ্ছাপোষণ করতো। এক বছর হজের সময় লোকেরা তাঁর কাছে এলো এবং আরজ করলো, ‘হযরত, আমরা আপনার সাথে হজে যেতে চাই।’
তিনি বললেন, “ঠিক আছে, যেতে চাও যাবে। তোমরা তোমাদের পাথেয় আমার কাছে জমা করো।’
লোকেরা যার যার পাথেয় নিয়ে আবদুল্লাহ বিন মুবারকের কাছে জমা দিলো। তিনি এসব পাথেয় তাঁর একটা সিন্দুকে পুরে তাতে তালা লাগিয়ে দিলেন।
তারপর একদিন হজের সময় ঘনিয়ে এলো। মুবারক লোকদের নিয়ে বাগদাদে এলেন। পথিমধ্যে সবাইকে তিনি উন্নতমানের খাবার ও ফল-মূল ইচ্ছামতো খাওয়ালেন। বাগদাদ থেকে তারা মদিনার পথে রওয়ানা হলেন। মদিনায় পৌঁছে তিনি এক একজনকে ডেকে বললেন, ‘প্রিয় ভাইয়েরা! তোমরা বাড়ি থেকে আসার সময় তোমাদের পরিবার-পরিজন মদিনা থেকে কি কি জিনিস উপহার হিসেবে নিতে বলেছে, আমাকে জানাও।’
লোকেরা যার যার মতো তাদের প্রয়োজন আবদুল্লাহ বিন মুবারকের কাছে খুলে বললো। আর মুবারক (রহ) প্রত্যেকের চাহিদামতো জিনিস কিনে দিলেন। এক সময় মুবারক ও তাঁর সাথীরা মক্কায় পৌঁছে হজ পালন করলেন। এরপর বাড়িতে ফেরার পালা। মক্কায় একইভাবে আবদুল্লাহ প্রত্যেককে আলাদাভাবে জিজ্ঞেস করলেন, ‘প্রিয় ভাইয়েরা! বাড়ির লোকেরা মক্কা থেকে কি কি উপহার নিতে বলেছেন?’
সবাই যার যার প্রয়োজনের কথা মুবারক (রহ)-কে খুলে বললো। মুবারক (রহ) সবার পছন্দ মতো জিনিস কিনে দিলেন। মক্কা থেকে দেশে ফেরার পথে যাবতীয় খরচও মুবারক (রহ) বহন করলেন। হজের সাথীরা সবাই যারপরনাই খুশি হলেন। তারা মুবারক (রহ)-এর জন্য প্রাণভরে দোয়া করলেন।
এদিকে ইরাকে ফিরে ঘটল আর এক অবাক ঘটনা। সবাই হজ থেকে ফিরে ক্লান্ত। দু’তিন পর সবাই কিছুটা সতেজ হয়ে উঠলে আবদুল্লাহ মুবারক (রহ) হাজিদের তাঁর বাড়িতে ডেকে পাঠালেন। বাড়িতে তিনি সবাইকে আপ্যায়নের ব্যবস্থা করলেন। তখন তিনি সহ হাজিকে কাপড় উপহার দিলেন। আর সিন্দুক খুলে প্রত্যেকের জমা করা পাথেয়র নাম অনুযায়ী ফেরত দিলেন। আবদুল্লাহ বিন মুবারক (রহ)-এর এই বিরল উদারতা দেখে লোকেরা অবাক হলো। তারা বুক ভরে এই মহান ব্যক্তির জন্য দোয়া করলেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ