ঢাকা, সোমবার 14 November 2016 ৩০ কার্তিক ১৪২৩, ১৩ সফর ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

এক মজিরন বেওয়ার দুঃখ

মোঃ মিজানুর রহমান, ভূঞাপুর (টাঙ্গাইল) সংবাদদাতা: একদিন যে সন্তানের জন্য বাবা-মা ছিলেন স্নেহময়, সন্তান একটু আঘাত পেলেই বাবা হয়ে উঠতেন চিন্তিত। নিজ হাত দিয়ে খাইয়ে দিয়েছেন, কোলে-পিঠে করে মানুষ করেছেন এবং কখনও নিজের অসুবিধার কথা সন্তানদের বুঝতে দেননি। আজকাল সমাজে এমন কিছু সন্তান দেখা যায় যারা কিনা মা-বাবার এতসব আদর-যত্নের কথা ভুলে তাদের খোঁজ রাখেন না। এমনই এক অসহায় গর্ভধারিনী মা মজিরন বেওয়া। টাঙ্গাইলের ভূঞাপুর উপজেলার ভরুয়া গ্রামের সাবেক পুলিশ কর্মকর্তা ও মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল মজিদ আহম্মেদের গর্ভধারিনী মা তিনি। বর্তমানে অবহেলায় অনাহারে দিন কাটাচ্ছেন।
জানা যায়, উপজেলার ভরুয়া গ্রামের মৃত হযরত আলী সরকারের স্ত্রী মজিরন বেওয়ার ১ মেয়ে ৫ ছেলের মা। পাঁচজনের তিনজন মারা গেছে। জীবিত আছে মুক্তিযোদ্ধা মজিদ ও মজনু মিয়া। মজনু চাকরীর সুবাদে ঢাকায় থাকে। আর আব্দুল মজিদ আহম্মেদ পুলিশের উপ-পরিদর্শক (এসআই) হিসেবে কর্মরত অবস্থায় বছর খানেক আগে অবসরে গেছেন। মা মজিরন পাঁচ বছর আগে ঘর থেকে বের হতেই মেঝেতে পড়ে তার কোমর ভেঙে যায়। সে থেকে তিনি আর উঠে দাঁড়াতে পারেন না।
সরেজমিনে ভরুয়া গ্রামে গিয়ে দেখা গেছে, ভাঙা-চোরা একটি জরাজীর্ণ ঘরে একশ’ ছয় বছর বয়সী মজিরন বেওয়া শুয়ে আছে। এ সময় কথা হয় তার সাথে। কতজন ছেলে-মেয়ে জানতেই বলেন, আমার তিন ছেলে আগেই মারা গেছে। দুই ছেলে জীবিত থাকতেও আমার কাছে মরে গেছে। ছেলে আমার মুক্তিযোদ্ধা, পুলিশে চাকরীও করতো। কিন্তু দশটি বছর হয়ে গেল আমার কোন খোঁজ নেয়নি। কোরবানী ঈদের সময় লাখ টাকার গরু কোরবানী দিয়েছিল শুনেছিলাম।  কিন্তু এক টুকরা কোরবানীর মাংসও কপালে জুটেনি।  বয়সের ভারে তিনি এখন চোখে এবং কানে কম শুনেন। বর্তমানে তার এক নাতির তত্ত্বাবধানে আছেন। জীবনের এই অন্তিমক্ষণে ছেলেদের আদর সোহাগ পাওয়াই তার এই আকুতি।
স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধারা জানান, এটা খুবই দুঃখজনক ঘটনা। দেশ মায়ের জন্য আমরা মুক্তিযুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়েছিলাম। আজ সেই মুক্তিযোদ্ধার মা এভাবে অবহেলায় পড়ে থাকবে সেটা কল্পনা করা যায় না। ৯ মাস যুদ্ধ করে আমরা আজ সরকারের কাছ থেকে জীবন ধারণের জন্য সম্মানী ভাতা খাচ্ছি, আর মা আমাদের ১০ মাস ১০ দিন গর্ভে ধারণ করে দুনিয়ার মুখ দেখিয়েছেন সেই মা অর্ধাহারে অনাহারে থাকবে এটা মেনে নেওয়া যায় না।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ