ঢাকা, বুধবার 16 November 2016 ২ অগ্রহায়ন ১৪২৩, ১৫ সফর ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

বিজ্ঞান বিচিত্রা

একবার চার্জে তিন মাস চলবে ফোন!
স্মার্টফোন এখন শুধু কথা বলার মাধ্যম নয়, তার চেয়েও বেশি কিছু। নানা কাজে ব্যবহার করা হয় ডিভাইসটিকে। তবে ব্যবহারের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে চার্জ ফুরায় বলে ঝামেলাতেও পড়তে হয় ব্যবহারকারীদের। ব্যাটারির চার্জ নিয়ে স্মার্টফোন ব্যবহারকারীদের বিড়ম্বনার শেষ নেই। দ্রুত চার্জ ফুরিয়ে যাওয়ার কারণে চাইলেও অনেক কাজ করা যায় না। এই ঝামেলা থেকে বাঁচাতে নতুন এক প্রযুক্তি আনতে কাজ করছেন মিশিগান বিশ্ববিদ্যালয়ের একদল গবেষক।তারা এমন একটি উপাদান আবিষ্কার করেছেন, যা ব্যবহারে মাত্র একবার চার্জ করলে তিন মাস আর মোবাইল চার্জ করার প্রয়োজন পড়বে না।
এই উপাদানকে বলা হচ্ছে 'ম্যাগনেটো ইলেকট্রিক মাল্টিফেরোইক'। গবেষকদের দাবি, এই উপাদান ব্যবহারের ফলে কম্পিউটার বা ল্যাপটপেও ক্রমাগত বিদ্যুৎ সরবরাহ করার প্রয়োজন পড়বে না। মাঝে মধ্যে প্রয়োজন মতো বিদ্যুৎ সরবরাহ করে দেবে উপাদানটি। তার ফলেই সচল থাকবে আপনার কম্পিউটার বা ল্যাপটপ।
শুধু কম্পিউটার, ল্যাপটপ বা মোবাইল-ই নয়, যে কোনও নিত্যপ্রয়োজনীয় ব্যবহার্য ইলেকট্রনিক বস্তুতে যদি এই প্রযুক্তি ব্যবহার করা হয়, তবে সারা বিশ্বে বিদ্যুৎ খরচের মাত্র উল্লেখযোগ্য হারে কমে যাবে।
মিশিগান বিশ্ববিদ্যালয়ের এক প্রবীণ গবেষক জানিয়েছেন, এই প্রযুক্তি আসতে এখনও কিছু বছর সময় লাগবে। তবে যখন এর ব্যবহার শুরু হবে তখন বিশ্বজুড়ে বিদ্যুতের ব্যবহার এক ধাক্কায় অর্ধেকে নামিয়ে আনা সম্ভব হবে। -ইন্টারনেট।

এবার ভাঁজ করা ফোন!
সহজে ভাঁজ করে রাখা যায় এমন ফোন তৈরির পথে হাঁটছে দক্ষিণ কোরিয়ার প্রতিষ্ঠান স্যামসাং। এ ফোনের মাঝামাঝি একটি কবজা থাকবে এবং দুই দিকে দুটি ডিসপ্লে থাকবে। অন্যদিকে থাকবে বিশেষ কীপ্যাড। একটি ফোনে দুটি ডিসপ্লের নতুন নকশার ফোনটির জন্য প্যাটেন্ট আবেদন করেছে প্রতিষ্ঠানটি। প্যাটেন্টের কনসেপ্ট স্কেচ অনুযায়ী, স্যামসাংয়ের নতুন ফোনটি প্রচলিত ফ্লিপ ফোনের মতো হলেও এতে ভাঁজ করার সুবিধাযুক্ত ডিসপ্লে থাকবে। ফোন সেট সোজা রাখতে সাহায্য করবে বিশেষ কবজা। বিশেষভাবে ভাঁজ করা যাবে বলে এটি সহজেই পকেটে রাখা যাবে। প্রযুক্তিবিষয়ক ওয়েবসাইট জিএসএমএরেনার তথ্য অনুযায়ী, নতুন ফোনের কবজাটি মাইক্রোসফটের সারফেস বুক ল্যাপটপ কাম ট্যাবলেটের মতো কাজ করবে। স্যামসাংয়ের ভাঁজ করা ফোনের ধারণাটি একেবারে নতুন নয়। ২০১৫ সালের মার্চ মাসে আনুষ্ঠানিকভাবে ভাঁজ করা ফোনের ঘোষণা দিয়েছিল স্যামসাং। ওই প্রকল্পের নাম ‘প্রজেক্ট ভ্যালি’। প্রযুক্তিবিষয়ক ওয়েবসাইটগুলোতে গুঞ্জন রয়েছে, ২০১৭ সালের শুরুতে ভাঁজ করা ফোন বাজারে আনতে পারে স্যামসাং। ২০১৩ সালে লাস ভেগাসে সিইএস মেলায় প্রথমে বাঁকানো ডিসপ্লে দেখিয়েছিল স্যামসাং। ২০১৪ সালে গ্যালাক্সি নোট এজে বাঁকানো ডিসপ্লে যুক্ত করে প্রতিষ্ঠানটি। এরপর গ্যালাক্সি এস ৭ এজ ও নোট ৭ এ বাঁকানো ডিসপ্লের ব্যবহার দেখা যায়। বাঁকানো ডিসপ্লে ও ভাঁজ করা নমনীয় ফোনের মধ্যে পার্থক্য রয়েছে। এদিকে, চীনের স্মার্টফোন নির্মাতা শিয়াওমি ভাঁজ করা যায় এমন ডিসপ্লে তৈরি করছে বলে গুঞ্জন রয়েছে। বাজারে উদ্ভাবনী পণ্য হিসেবে ভাঁজ করা ফোন কে প্রথম আনে, সেটাই এখন দেখার বিষয়। -এনডিটিভি।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ