ঢাকা, বৃহস্পতিবার 17 November 2016 ৩ অগ্রহায়ন ১৪২৩, ১৬ সফর ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

রাশিয়ার আগ্রাসনের বিরুদ্ধে ট্রাম্পের সমর্থন চান ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট

১৬ নবেম্বর, আরটিপি, বিবিসি : ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট পেট্রো পোরোশেঙ্কো ‘রাশিয়ার আগ্রাসনের’ বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্রের নবনির্বাচিত প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সমর্থন চেয়েছেন।
যুক্তরাষ্ট্রের নির্বাচনে ট্রাম্প বিজয়ী হওয়ায় অভিনন্দন জানাতে গতকাল মঙ্গলবার তাকে ফোন করেন পোরোশেঙ্কো। এ সময় তিনি ক্রিমিয়ায় রাশিয়ার আগ্রাসনের বিরুদ্ধে ট্রাম্পের সহায়তা চান। নির্বাচনী প্রচারণাকালে ট্রাম্প টিভি বিতর্কে রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভøাদিমির পুতিনের প্রশংসা এবং মস্কোর বিরুদ্ধে পশ্চিমা জোটের অবস্থানের স্পষ্ট বিরোধিতা করেন।
চলতি বছরের শুরুতে ট্রাম্প বলেছিলেন, রাশিয়ার ক্রিমিয়া দখল যুক্তরাষ্ট্র মেনে নিতে পারতো। আর এটা দুই দেশের সম্পর্ক উন্নয়নে সহায়ক হত।
গত ৮ নবেম্বরের নির্বাচনে বিজয়ী হওয়ায় ট্রাম্পকে অভিনন্দন জানিয়ে পেরোশেঙ্কো বলেন, তিনি যুক্তরাষ্ট্র ও ইউক্রেনের মধ্যে কৌশলগত অংশীদারিত্ব আরো জোরদারে ট্রাম্পের নতুন প্রশাসনের সাথে একসাথে কাজ করার আশা করেন। ইউক্রেনের প্রেসিডেন্টের দফতর এক বিবৃতিতে এ তথ্য জানিয়েছে। পেরোশেঙ্কো ইউক্রেনে রাশিয়ার আগ্রাসনের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ও দেশটিতে গুরুত্বপূর্ণ সংস্কার বাস্তবায়নে ওয়াশিংটনের জোরালো সমর্থনের প্রয়োজনীয়তার ওপর গুরুত্বারোপ করেন। বিবৃতিতে বলা হয়েছে, উভয় নেতা ‘একটি দ্বিপক্ষীয় বৈঠকের’ ব্যাপারে একমত হয়েছেন। তবে এ ব্যাপারে বিস্তারিত জানানো হয়নি।
সন্ত্রাসবিরোধী লড়াইয়ে পাশে চান আসাদ : সন্ত্রাস বিরোধী লড়াইয়ে যুক্তরাষ্ট্রের নবনির্বাচিত প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প একজন মিত্র হতে পারেন বলে আশা প্রকাশ করেছেন সিরিয়ার প্রেসিডেন্ট বাশার আল আসাদ। তবে ট্রাম্পকে ‘সতর্কভাবে পর্যবেক্ষণ’ করার কথাও জানিয়েছেন তিনি। গত মঙ্গলবার পর্তুগালের রাষ্ট্রীয় টেলিভিশন আরটিপি-কে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে আসাদ বলেছেন, নির্বাচনী প্রচারণার সময় সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে লড়াই করার যে প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন তা যদি পূরণ করেন ট্রাম্প, তা হলে তিনি একজন ‘স্বাভাবিক মিত্র’ হয়ে উঠবেন। কিন্তু ট্রাম্প তার প্রতিশ্রুতি ‘পূরণ করতে’ পারবেন কিনা তা ‘অনিশ্চিত’ বলে জানান তিনি। যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের প্রচারণাকালে ট্রাম্প বলেছিলেন, একইসঙ্গে ইসলামিক স্টেট (আইএস) জঙ্গিদের এবং সিরিয়ার বাহিনীগুলোর বিরুদ্ধতা করা ‘পাগলামি’। এছাড়া সিরিয়ার এ লড়াই রাশিয়ার সঙ্গে লড়াইয়ে পরিণত হতে পারে বলেও আশঙ্কা প্রকাশ করেছিলেন তিনি।
আসাদ বলেন, “তিনি কী করতে যাচ্ছেন সে ব্যাপারে আমরা কিছু বলতে পারি না, কিন্তু তিনি যদি সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে লড়াই শুরু করেন, অবশ্যই আমরা মিত্রে পরিণত হব, স্বাভাবিক মিত্র যেমন আছে রাশিয়া, ইরান ও অন্যান্য দেশের সঙ্গে।” লড়াইয়ে আইএসের প্রতি মনোযোগ দেওয়ার কথা বলেছেন ট্রাম্প, যাকে ‘আশাবাদী’ হওয়ার মতো বলে মন্তব্য করেছেন আসাদ, কিন্তু প্রশ্ন রেখেছেন, ‘ট্রাম্প তা পারবেন কিনা?” এ বিষয়ে যুক্তরাষ্ট্র প্রশাসনে থাকা ট্রাম্প বিরোধীদের ও যুক্তরাষ্ট্রের প্রধান গণমাধ্যমগুলোর ট্রাম্প বিরোধীতার কথা উল্লেখ করেন আসাদ। তিনি বলেন, “তিনি কীভাবে তাদের মোকাবিলা করবেন? তাই বিষয়টি নিয়ে অনিশ্চয়তায় আছি আমরা। এ কারণেই তাকে অত্যন্ত সতর্কভাবে বিচার করছি।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ