ঢাকা, বৃহস্পতিবার 17 November 2016 ৩ অগ্রহায়ন ১৪২৩, ১৬ সফর ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

তরুণীর প্রতারণা

রামপাল (বাগেরহাট) সংবাদদাতা: নাম রোজিনা খাতুন, কখনও রুপা কখনও বিবাহিতা আবার কখনও কুমারী নাম ধারণ করে একাধিক পুরুষকে শিকার করে কৌশলে অর্থ আদায় করে থাকে সে। তার প্রতারণার হাত থেকে বাঁচতে সরকারের সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন দপ্তরে আবেদন করেছেন ভুক্তভোগী বেশ কয়েকজন যুবক। তার প্রতারণায় পড়ে সর্বস্বান্ত হয়েছে বহু যুবক। কে এই রোজিনা? কি-ই বা তার পরিচয় ? অভিযোগকারীদের অভিযোগের সূত্র ধরে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, উপজেলার তালবুনিয়া গ্রামের নোয়াব আলী তালুকদার এর কন্যা রোজিনা খাতুন (৩০) এর একই গ্রামের শরিফুলের সাথে বিয়ে হয় । সেখান থেকে ত্রিশ হাজার টাকা দেনমোহর আদায় করে তালাক নেয়। এরপর ২০০৭ সালে তেলীখালী  গ্রামের আজগর আলীর সাথে বিয়ে হলে সেখান থেকে আদায়  করে ৪৫ হাজার টাকা। আবার তালবুনিয়া গ্রামে জালাল শেখের পুত্র সাকিবুল হাসানের সাথে  ২ লক্ষ ১টাকা দেনমোহরে বিয়ে হয়। এখানেই শেষ নয় , মংলার গোয়ালিরমেঠের নজরুল ইসলামের সাথে ১ লক্ষ ১ হাজার ১ টাকা দেনমোহরে বিয়ে হয়। ধারাবাহিকভাবে বাঁশতলীর রহমত আলী নামের অপর এক যুবকের সাথে দীর্ঘদিন প্রেমজ সম্পর্ক গড়ে তোলে এবং ২ লক্ষ টাকা দেনমোহরে বিয়ে করে। এভাবে প্রায় ডজনখানেক যুবকের সাথে কাবিন করে দেনমোহরের অর্থ আদায় করে নেয় ওই নারী। এসব অর্থ আদায় করতে কখনও স্থানীয় সালিশ বৈঠক বা বিভিন্ন মাধ্যমের সহায়তা নিয়ে থাকে। এ ব্যাপারে  ওই মহিলার সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করেও তার কোনো হদিস পাওয়া যায়নি। সাংবাদিকরা তার মাতা মেরী বেগম এর সাথে কথা বললে তিনি মেয়ের বিভিন্ন সমস্যার কথা অকপটে স্বীকার করেন। তার পিতা নোয়াব আলীর সাথে ফোনে কথা হলে মেয়ের প্রতারণার কথা অস্বীকার করলেও একাধিক যুবকের সাথে বিয়ের কথা ও প্রতারণার মামলার কথা স্বীকার করেন। ভুক্তভোগী প্রতারিতরা প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনাসহ ব্যবস্থা গ্রহণের দাবী জানিয়েছেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ