ঢাকা, বুধবার 19 September 2018, ৪ আশ্বিন ১৪২৫, ৮ মহররম ১৪৪০ হিজরী
Online Edition

বৈশ্বিক সন্ত্রাসবাদ সূচকে বাংলাদেশের অবস্থান ২২তম

অনলাইন ডেস্ক: বৈশ্বিক সন্ত্রাসবাদ সূচক ২০১৬ সালে বিশ্বের ১৩০টি দেশের মধ্যে বাংলাদেশের অবস্থান ২২তম। এর আগের বছর এ সূচকে বাংলাদেশের অবস্থান ছিল ২৫তম।

আজ বুধবার এই বৈশ্বিক সন্ত্রাসবাদ সূচক প্রকাশ করে অস্ট্রেলিয়ার সিডনিভিত্তিক প্রতিষ্ঠান ইনস্টিটিউট ফর ইকোনমিক অ্যান্ড পিস। চার বছর ধরে এ সূচক প্রকাশ করছে সংস্থাটি।

২০১৫ সালে সংঘটিত সন্ত্রাসবাদী কর্মকাণ্ডের উপর ভিত্তি করা এই প্রতিবেদনে বাংলাদেশ প্রসঙ্গে বলা হয়, ২০১৫ সালে প্রথমবারের মতো বাংলাদেশে আল কায়েদার উপমহাদেশীয় শাখা ও আইএসের আনুগত্য পোষণকারীরা হামলা চালিয়েছে। সেসব হামলায় ১১ জন নিহত হয়।২০১৫ সালে বাংলাদেশে ৪৫৯টি আক্রমণের ঘটনায় ৭৫ জন নিহত হয়েছে। বাংলাদেশে জামায়াতুল মুজাহিদীনের মতো স্থানীয় জঙ্গিরা সাধারণত এসব হামলার পেছনে থাকে। ২০১৬ সালে হোলি আর্টিজান বেকারিতে ২৯ জন নিহত হওয়ার ঘটনার পেছনেও জেএমবি (নব্য) রয়েছে বলে অভিযোগ রয়েছে। কিন্তু আল কায়েদার ভারতীয় উপমহাদেশের অংশের কথিত সমর্থক আনসার আল ইসলাম ও নিজেদের আইএসের সমর্থক দাবি করা জঙ্গিরা ২০১৫ সালে বেশ কয়েকটি হামলার দায় স্বীকার করেছে। তবে সরকারের পক্ষ থেকে সবসময় এদের দেশীয় জঙ্গি এবং জেএমবি সংশ্লিষ্ট বলে অভিহিত করা হয়েছে। 

১৬৪ দেশের তালিকায় সবার উপরে রয়েছে ইরাক। এরপর যথাক্রমে রয়েছে আফগানিস্তান, নাইজেরিয়া, পাকিস্তান ও সিরিয়া। প্রতিবেশী ভারত রয়েছে শীর্ষ দশেই (৮)। শক্তিশালী দেশগুলোর মধ্যে চীন (২৩) রয়েছে বাংলাদেশের পরেই। এছাড়া রাশিয়া (৩০),যুক্তরাষ্ট্র রয়েছে ৩৬ নম্বরে। 

২০১৫ সালে সন্ত্রাসী ঘটনা ঘটেছে ইরাক, আফগানিস্তান, পাকিস্তান ও ভারতে। এর মধ্যে ইরাকে সংগঠিত হয়েছে ২০ শতাংশ, আফগানিস্তানে ১৪ শতাংশ ঘটনা ঘটেছে। প্রতিহিংসা পরায়ণ দুই দেশ পাকিস্তান-ভারতে যথাক্রমে ৮ ও ৭ শতাংশ হামলার ঘটনা ঘটেছে।

প্যারিস হামলার মতো ঘটনার পরেও ২০১৫ সালে ফ্রান্সে সন্ত্রাসী হামলায় নিহত মানুষের সংখ্যা আগের বছরের চেয়ে ১০ শতাংশ কমেছে বলে প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়। আইএস ও বোকো হারামের বিরুদ্ধে অভিযান জোরদার করার কারণে এই সংখ্যা কমেছে বলে প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়। 

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ