ঢাকা, শুক্রবার 18 November 2016 ৪ অগ্রহায়ন ১৪২৩, ১৭ সফর ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

চা উৎপাদনে এ বছর রেকর্ডের সম্ভাবনা

মৌলভীবাজার থেকে আজাদুর রহমান আজাদ: অনুকূল আবহাওয়া ও সময় মত বৃষ্টি হাওয়ায় এ বছর চা উৎপাদনে রেকর্ডের সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে । এছাড়া কার্তিকের বৃষ্টি ছিল চা-বাগানের জন্য বাড়তি পাওনা। বাগান সংশ্লিষ্টরা মনে করছেন, এই বৃষ্টি চা-বাগানের জন্য বড় আশীর্বাদ । এটি নভেম্বর-ডিসেম্বরের শেষ উৎপাদনে সহায়ক হবে । তবে বড় সুখবর হচ্ছে: চলতি মৌসুমে দেশে চা উৎপাদনে সর্বকালের রেকর্ড ছাড়িয়ে ৮০ মিলিয়ন কেজি উৎপাদনের বিষয়টি প্রায় নিশ্চিত । গত মৌসুমে ৬৭ দশমিক ৩২ মিলিয়ন কেজি চা উৎপাদন করে রেকর্ড সৃষ্টি হয়েছিল । এবার শুধু সেই রেকর্ডই অতিক্রম হচ্ছে তা নয়-এবার দেশের চা-শিল্পের ১৬২ বছরের ইতিহাসে সর্বোচ্চ উৎপাদন হতে যাচ্ছে ।

বাংলাদেশ টি বোর্ড-এর অধীন চা-বাগান ব্যবস্থাপনা কোষ এর জিএম মো: শাহজাহান আকন্দ জানিয়েছেন ‘চলতি চা-উৎপাদন মৌসুমে ৩০ অক্টোবর পর্যন্ত ১২ মিলিয়ন কেজি বেশি উৎপন্ন হয়েছে । অর্থাৎ গত বছরের তুলনায় এক কোটি ২০ লাখ কেজি বেশি চা-উৎপাদন হয়েছে। ঐ কর্মকর্তা বলেন, চা অত্যন্ত সংবেদনশীল ফসল । এর জন্য অনুকূল আবহাওয়া ও পরিবেশ অত্যন্ত জরুরি। এবার প্রয়োজনীয় বৃষ্টিপাত, সঠিক তাপমাত্রা ছিল। পোকা-মাকড়ের আক্রমণ ছিল না। বিশেষ করে এবার খরামুক্ত ছিল বাগানগুলো। ফলে এবার দেশে বাম্পার চা-উৎপাদন হয়েছে ।

তিনি আরো বলেন, ৩১ ডিসেম্বর চলতি চা-উৎপাদন মৌসুম শেষ। এই সময়ের মধ্যে চা-শিল্পে আবহাওয়াজনিত কোনো সমস্যা হবে বলে মনে করছি না। আশা করছি এবার দেশে সর্বকালের সর্বোচ্চ ৮০ মিলিয়ন কেজি চা-পাওয়া যাবে।’ এতে বাগানের শ্রমিকরাও বেশ খুশি। বাগান শ্রমিকরা জানান ‘বাগান আমাদের মায়ের মত। বাগানই আমাদের সব। বাগান ভালো থাকলে,  আমরাও ভালো থাকি।’

১৮৫০ সালে প্রতিষ্ঠিত সিলেটের মালনীছড়া চা-বাগান। ১৮৫৪ সালে দেশে প্রথম বাণিজ্যিকভাবে চা-উৎপাদন শুরু হয় এই বাগানে। সারা দেশের ১৬২ টি চা-বাগানের মধ্যে সিলেটেই আছে ১৩৮টি। এর মধ্যে বেশির ভাগ চা-বাগান মৌলভীবাজার ও শ্রীমঙ্গলে। আর কিছু বাগান রয়েছে সিলেট ও হবিগঞ্জে। এবার শুধু সিলেটে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ৫৮ দশমিক ৪ মিলিয়ন কেজি চা-উৎপাদন হয়েছে। যা গত বছরের তুলনায় ১৪ মিলিয়ন কেজি বেশি। অর্থাৎ গত বছর সিলেটে চা-উৎপাদনের পরিমাণ ছিল ৪৪ দশমিক ৪ মিলিয়ন কেজি।

শ্রীমঙ্গলস্থ আবহাওয়া পর্যবেক্ষণ কেন্দ্র জানায়, জানুয়ারি থেকে ৯ নভেম্বর পর্যন্ত ২ হাজার ৪৮৭ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা  হয়েছে। যা চা শিল্পের জন্য খুবই উপকারী। চা বিশেষজ্ঞরা এ বৃষ্টিপাতকে চা শিল্পের জন্য আশীর্বাদ মনে করেন। এবার সর্বোচ্চ চা উৎপাদনের পেছনে অনুকূল আবহাওয়া যদিও বড় কারণ ছিল। তারপরও চা-চাষ সম্প্রসারণ, সময়মত সার ও কীটনাশক প্রয়োগ, সর্বোপরি চা-বোর্ডের নজরদারি এবং ক্লোন চা গাছের ব্যবহার বৃদ্ধির কারণে এবার সর্বোচ্চ চা উৎপাদন হচ্ছে। কুলাউড়ার সাতছড়ি, সিলেটের খান টি-স্টেট, সিলেটের মালনীছড়াসহ বিভিন্ন বাগানে গিয়ে দেখা যায়, বৃষ্টির কারণে চা-বাগানগুলো আরো সবুজ-সতেজ হয়ে উঠেছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ