ঢাকা, শুক্রবার 18 November 2016 ৪ অগ্রহায়ন ১৪২৩, ১৭ সফর ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

ইমাম ও ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানের শিক্ষকদের ওপর নজরদারির বাড়ানোর সুপারিশ

সংসদ রিপোর্টার: মসজিদের ইমাম ও ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানের শিক্ষকরা যাতে জঙ্গিবাদকে উসকে দেওয়ার মতো বক্তব্য দিতে না পারে, এজন্য তাদের প্রতি নজরদারি বাড়ানোর সুপারিশ করেছে সংসদীয় কমিটি।
গতকাল বৃহস্পতিবার সংসদ ভবনে অনুষ্ঠিত দশম জাতীয় সংসদের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির বৈঠকে এ সুপারিশ করা হয়। একই সঙ্গে কমিটি শুক্রবার জুমার নামাযের আগে ইমামদের মাধ্যমে মসজিদে জঙ্গিবাদবিরোধী বক্তব্য প্রদানের সুপারিশ করে।
 বৈঠকে সীমান্তবর্তী নদী পথে চলাচলকারী বাংলাদেশের নৌকাগুলোকে বিশেষ রঙে রাঙানোর সুপারিশ করা হয়।
কমিটি মাদক, সন্ত্রাসবাদ ও জঙ্গিবাদ দমনে সামাজিক সচেতনতা সৃষ্টিসহ উদ্বুদ্ধকরণ কার্যক্রম গ্রহণ ও যথাযথভাবে বাস্তবায়ন এবং তথ্য মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে জঙ্গিবাদবিরোধী  ডকুমেন্টারি, শর্টফিল্ম, বিজ্ঞাপন চিত্র, ভিডিও  ক্লিপ ইত্যাদি তৈরি করে গণমাধ্যমে প্রচার করার সুপারিশ করে। এছাড়া, সন্ত্রাসবাদবিরোধী আলোচনা ও সচেতনতা তৈরির লক্ষ্যে বিভিন্ন কর্মসূচি গ্রহণেরও সুপারিশ করা হয়। 
 বৈঠকে সংশ্লিষ্ট সকল মন্ত্রণালয়কে সমন্বিত উদ্যোগের মাধ্যমে তাদের অবস্থান থেকে মাদক, সন্ত্রাসবাদ ও জঙ্গিবাদ প্রতিরোধে কাজ করার সুপারিশ করা হয়।
কমিটি মাদক নিয়ন্ত্রণে তাৎক্ষণিক বিচার, মাদকপ্রবণ এলাকায় ডোপ টেস্ট ল্যাবরেটরি স্থাপন, কোনও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ভর্তির পূর্বে এবং কোনও অফিস আদালতে নিয়োগের পূর্বে ডোপ টেস্ট করার সুপারিশ করে। কমিটি মাদক চোরাচালানীদের বিচারের জন্য পৃথক আদালত স্থাপন করার সুপারিশ করে। এছাড়া, সরকারি হাসপাতালগুলোতে মাদকাসক্তদের নিরাময়ের জন্য পৃথক ওয়ার্ড খোলার সুপারিশ করা হয়।
কমিটির সভাপতি টিপু মুন্সির সভাপতিত্বে বৈঠকে কমিটির সদস্য স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন, মো. মোজাম্মেল হোসেন,  শামসুল হক টুকু, ওমর ফারুক চৌধুরী, ফরিদুল হক খান, আবুল কালাম আজাদ, আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন এবং ফখরুল ইমাম উপস্থিত ছিলেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ