ঢাকা, সোমবার 21 November 2016 ৭ অগ্রহায়ন ১৪২৩, ২০ সফর ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

বার্সেলোনাকে রুখে দিল মালাগা

এক ম্যাচ নিষিদ্ধ থাকায় স্কোয়াডে আগেই ছিলেন না লুইস সুয়ারেস। সকালে হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়ায় খেলতে পারলেন না লিওনেল মেসিও। কাম্প নউয়ে বার্সেলোনাকে গোলশূন্য ড্রয়ে রুখে দিল মালাগা। ম্যাচে একসঙ্গে নেই মেসি ও সুয়ারেস। দুই তারকার অনুপস্থিতিতে শনিবার আক্রমণভাগের মূল দায়িত্ব পড়ে নেইমারের কাঁধে। নবম মিনিটে ব্রাজিলের এই তারকা ফরোয়ার্ডই পেয়েছিলেন প্রথম ভালো সুযোগ। তবে পাকো আলকাসেরের পাসে ডি-বক্সের ভেতর থেকে নেইমারের শট সাইড নেটে জড়ায়। ২৩তম মিনিটে নেইমারের ভুল পাস থেকে বল নিয়ে সামনে এগিয়ে বার্সালোনার সাবেক খেলোয়াড় সান্দ্রোর নেয়া শট ঠেকান গোলরক্ষক মার্ক আন্ড্রে টের স্টেগেন। বার্সেলোনার খেলোয়াড়দের পায়ে বল গেলেই মালাগার ১০ জনই নেমে আসছিল রক্ষণে। তবে ৩১তম মিনিটে অতিথিদের ত্রাণকর্তা গোলরক্ষক কার্লোস কামেনি। ডি-বক্সের ভেতর থেকে রাফিনিয়ার শট এক খেলোয়াড়ের পায়ে লেগে দিক পাল্টালেও শরীরের অবস্থান পাল্টে ঠেকান তিনি। বার্সেলোনার হয়ে ৪০০তম ম্যাচ খেলতে নামা সের্হিও বুসকেতসের শট ক্রসবার উঁচিয়ে গেলে গোলশূন্যভাবেই শেষ হয় প্রথমার্ধ। দ্বিতীয়ার্ধেও ম্যাচের একই চিত্র, পাল্টা আক্রমণে যাওয়া ছাড়া পুরোপুরি রক্ষণ সামলাতে মনোযোগ ছিল মালাগার খেলোয়াড়দের। এ রকম একটি পাল্টা আক্রমণে ৫৮তম মিনিটে গোল পেয়েই যাচ্ছিল মালাগা। টের স্টেগেনকে কাটিয়েও হুয়ান কার্লোস বল পাঠান সাইড নেটে।৭০তম মিনিটে দ্রুত গতিতে বল নিয়ে ছোটা নেইমারকে পেছন থেকে ফেলে দিয়ে লাল কার্ড দেখেন দিয়েগো লরেন্তে। দশ মিনিট পর জেরার্দ পিকের হেড লক্ষ্যভ্রষ্ট হয়। হতাশ এই ডিফেন্ডার একটু পরে ক্ষোভে ফেটে পড়েন পেনাল্টি না পেয়ে। তাকে ডি-বক্সে ফেলে দিয়েছিলেন মিকেল ভিলানুয়েভা। তবে রেফারি বার্সেলোনার কোনো আবেদনেই কর্ণপাত করেননি। যোগ করা সময়ে নেইমারের জোরালো হেড গোলে ঢোকার মুহূর্তে দুর্দান্ত নৈপুণ্যে ঠেকিয়ে দেন কামেনি। ইন্টারনেট।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ