ঢাকা, সোমবার 21 November 2016 ৭ অগ্রহায়ন ১৪২৩, ২০ সফর ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

উনিশ শতকের মুসলিম কবি দাদ আলী মিঞা

ঊনিশ শতকে বাংলা সাহিত্যে মুসলিম কবি হিসাবে দাদ আলী বিশেষ স্থান অধিকার করেছিলেন। ব্যক্তিগত অনুরাগ ও অনুভূতিকে কবি দাদ আলী অপূর্ব ছন্দে প্রকাশ করে খ্যাতি অর্জন করেন। কবি দাদ আলী মিঞা  ১৮৫২ সালে ২৬ জৈষ্ঠ ১২৫৯ বঙ্গাব্দে বর্তমান কুষ্টিয়ার মিরপুর উপজেলার ছাতিয়ান ইউনিয়নের আটিগ্রামে এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম জমিদার পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। পিতার নাম মৃত নাদ আলী মিঞা। ছোটবেলায় কবির পিতা প্রচেষ্টায় বাড়িতেই গৃহশিক্ষকের কাছে আরবী, ফারসী, উর্দু ও বাংলা শিক্ষা লাভ করেছিলেন। তিনি লোক কাহিনী, ধর্ম কাহিনী, ব্যক্তিগত চিন্তা-ভাবনা, এমনকি চিকিৎসা ও ফারায়েজ বিষয়েও কাব্য রচনা করেন।
যতদূর জানা যায়, কবি দাদ আলীর পিতা নাদ আলীও ছিলেন সাহিত্য অনুরাগী,
লেখালেখিও করতেন। পিতার সাহিত্য বিষয় নিয়ে লেখালেখি এবং ২টি কষ্টের ঘটনা দাদ আলীকে কাব্য লেখার প্রতি অনুপ্রাণীত করে। ২টি ঘটনার একটি ছিলো পতœীর আকস্মিক অকাল মৃত্যু এবং প্রবল ইচ্ছা থাকা সত্বেও অসুস্থতার কারণে মদিনা শরীফ জেয়ারত করতে যেতে না পারার কষ্ট থেকে সে বেদনায় কবি “আশেকে রাসুল” কাব্য লেখেন। তার কাব্যগুলোতে মদিনা জিয়ারতের হৃদয়  বেদনার হাহাকার ও অশ্রুতে উচ্ছ্বাস প্রধান। এসব কষ্টের কথাগুলো তাঁর কাব্যগ্রন্থের মধ্যেও পাওয়া যায়।
কবি দাদ আলী মিঞার উল্লেখযোগ্য কাব্যগ্রন্থের মধ্যে রয়েছে, আশেকে রাসুল (১ম খন্ড, ২য় খন্ড), শান্তিকুঞ্জ, মসলা শিক্ষা, ভাঙ্গা প্রাণ (১ম ও ২য় খন্ড), দেওয়ানে দাদ, সমাজ শিক্ষা, ফারায়েজ (মুসলমানী দায়ভাগ পদ্যে লিখিত), সংগীত প্রসুন, উপদেশমালা, এলোপ্যাথিক জ্বর চিকিৎসা, আয়ুর্বেদ রত্ন, আখেরী মউত, জাতিশত্রু বড় শত্রু। কবি দাদ আলী রচিত কাব্যগ্রন্থের মধ্যে মুসলমানী দায়ভাগ নিয়ে লেখা ‘ফারায়েজ’ কাব্যগ্রন্থটি তাঁকে আকাশচুম্মি জনপ্রিয়তা এনে দেয়।
ইউসুফ আলী, এহসান আলী, মুনসুর আলী, ইদ্রিস আলী ও আমেনা বেগম নামের ৭ সন্তানের জনক ইসলামীক ঘরানার এই মহান কবি দাদ আলী ১৯৩৬ সালে ৫ পৌষ ১৩৪৩ বঙ্গাব্দে  আটিগ্রাম নিজ গ্রামে মৃত্যুবরন করেন। কবির ৭ সন্তানের কেউই বেঁচে নেই। বর্তমান ও ভবিষ্যত প্রজন্মের মাঝে মহান এই কবির সঠিক ইতিহাস জানতে তাঁর রচিত কাব্যগ্রন্থগুলো সংগ্রহ করে সংরক্ষনের জন্য কবির বাস্তুভিটা আটিগ্রামে কবি দাদ আলী স্মৃতি পাঠাগার নির্মাণ ও তার কবরটি সংরক্ষনের দাবি জানিয়েছে এলাকার সচেতন মহল।
দেশের ইসলামিক ঘরানার অন্যতম কবি দাদ আলী মিঞার মৃত্যুর ৮০ বছর অতিক্রান্ত হলেও  এই মহান কবির বাস্তুভিটা ও সৃষ্টিশীল  অমর কাব্যগ্রন্থগুলো সংরক্ষণে সরকারী কিংবা বেসরকারীভাবে কোন উদ্দোগ গ্রহণ করা হয়নি। কবির সন্তানরা জীবিত থাকাবস্তায় তাঁর মৃত্যু ও জন্ম দিবস পালন করলেও সন্তানদের কেউ বেঁচে না থাকায় অনেক বছর ধরে কবির জন্ম ও মৃত্যু দিবসটি আর পালন করা হয় না। এমন কি কবি ও কবি পতœীর পাশাপাশি যে কবরটি রয়েছে অযত্ন আর অবহেলায় সেটিও আগাছায় ঢেকে গিয়ে ও ভেঙ্গেচুরে বিলিন হতে চলেছে।
মৃত্যুর ৭৭ বছর অতিক্রান্ত হলেও এই মহান কবির বাস্তুভিটাও সৃষ্টিশীল অমর কাব্যগ্রন্থগুলো সংরক্ষণে সরকারি-বেসরকারিভাবে কোন উদ্যোগ নেয়াহয়নি।
কবির সন্তানরা জীবিত থাকাকালে তাঁর মৃত্যু ও জন্ম দিবস পালন করলেও সন্তানদের কেউ বেঁচে না থাকায় তাও আর পালন করা হয় না।
আটিগ্রামে কবির বাস্তুভিটায় কবি দাদ আলী সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দক্ষিণ পাশে পাশা পাশি শায়িত কবি ও কবি পত্নীর কবর ওরয়েছে অযত্ন আর অবহেলায়। আগাছায় ঢেকে গিয়ে ভেঙ্গে চুরে বিলিন হতে চলেছে।
কবি দাদ আলীর আত্মীয় গোলাম জিলানী ও কবি ভক্ত গ্রাম্য চিকিৎসক কবি আব্দুর রাহীম (৬০) বলেন, গত গ্রায় ৪৫ বছর যাবৎ কবি দাদ আলীর স্মৃতি সংরক্ষনে বিভিন্ন সময় দায়িত্বপ্রাপ্ত কুষ্টিয়ার জেলা প্রশাসক ও মিরপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাদের সাথে দেখা করে আবেদন জানালেও কেউ কোন ভুমিকা রাখেনি।
এমনকি উক্ত গ্রামে কবি দাদ আলী মিঞা জামে মসজিদ ছিল। সেই মসজিদের ফলক থেকেও কবির নাম মুছে ফেলা হয়েছে। কবির মৃত্যুর পর তাঁর বিষয় সম্পত্তি এলাকার ভূমিদসু্যুরা দখল করে নিয়েছে। উনিশ শতকের এই গুণী কবির নবীপ্রেম ও সাহিত্য সাধনার কারণে হাজারও বছর ধরে জাতি তাকে স্মরণ করবে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ