ঢাকা, শুক্রবার 25 November 2016 ১১ অগ্রহায়ন ১৪২৩, ২৪ সফর ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

রাজশাহীতে সাহিত্য সংলাপ অনুষ্ঠিত

রাজশাহীতে পরিচয় সংস্কৃতি সংসদের আয়োজনে পরিচয় প্রাঙ্গণে ‘বাংলা সাহিত্য: দায়, সংকট ও উত্তরণের উপায়’ শীর্ষক এক সাহিত্য সংলাপ অনুষ্ঠিত হয়। পরিচয় সংস্কৃতি সংসদের সভাপতি প্রফেসর ড. মাহফুজুর রহমান আখন্দের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এ সাহিত্য সংলাপে প্রধান অতিথি ছিলেন আশির দশকের অন্যতম কবি ও কথাশিল্পী সোলায়মান আহসান। মডারেটর হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন কথাশিল্পী নাজিব ওয়াদুদ। বিকেল তিনটায় শুরু হয়ে রাত সাড়ে সাতটা পর্যন্ত প্রাণবন্ত আলোচনার মাধ্যমে সংলাপ চলে। সংলাপে প্রাণবন্ত আলোচনা করেন, রাবি প্রফেসর ও কলামিষ্ট মুহাম্মাদ শরীফুল ইসলাম, ছড়াকার ও সাংবাদিক সরদার আবদুর রহমান, কবি ও সাহিত্য সমালোচক খুরশিদ আলম বাবু, কবি ও গল্পকার আসাদুল্লাহ মামুন, কবি ও গবেষক ড. আবু নোমান, গল্পকার মাতিউর রাহমান, কবি ও গবেষক ড. ফজলুল হক তুহিন, ছড়াকার এরফান আলী এনাফ, কবি ফারহানা শরমিন জেনি, কবি শাহানা ইয়াসমিন মুক্তা, ছড়াকার হাসান আবাবিল, ছড়াকার নাবিউল হাসান, ছড়াকার মাহমুদ রনি, কবি শাহাদাৎ সরকার প্রমুখ। সংলাপে বগুড়া অঞ্চলের প্রতিনিধি হিসেবে কবি ও সাংবাদিক প্রতীক ওমর, নাটোরের কবি ইসাহাক আলী, চাঁপাইনবাবগঞ্জের কবি ও সম্পাদক জালাল উদ্দীন সিদ্দিকী প্রমুখ অংশগ্রহণ করেন।
দীর্ঘ সাড়ে চারঘণ্টার অন্তরঙ্গ সংলাপে বাংলা সাহিত্যের গতি-প্রকৃতি, ধারা এবং বর্তমান সময়ের সাহিত্যচর্চার নানা দিক উঠে আসে। বক্তাগণ বলেন, নিঃসন্দেহে বাংলা সাহিত্যের চর্চা ও সমৃদ্ধি এখন সকল সময়ের চেয়ে শীর্ষধারায়। ভারতের পশ্চিমবঙ্গের চেয়ে বাংলাদেশে এখন বাংলাভাষা ও সাহিত্যের চর্চা এখন ব্যাপক আশাপ্রদ। কিন্তু যে সাহিত্য নৈতিক উন্নয়ন ও সমাজ গঠনে সহায়ক সে ধরনের সাহিত্যের বিকাশ খুব বেশি ঘটছে না। বিশেষ করে শিশু ও তরুণ প্রজন্মকে নৈতিক মূল্যবোধের ভিত্তিতে দেশপ্রেমিক নাগরিক হিসেবে গড়ে তুলতে হলে যে ধরনের সাহিত্য প্রয়োজন তা খুব বেশি লেখা হচ্ছে না। এছাড়া সাহিত্য চর্চার ক্ষেত্রে রাজনৈতিক বিভাজন আমাদের সর্বনাশ ডেকে আনছে। মফস্বলের ছোট ছোট জায়গাতেও সাহিত্যিকদের মধ্যে রাজনৈতিক বিভাজন স্পষ্ট হয়ে উঠেছে। সাহিত্যের স্বাভাবিক বিকাশে এটা প্রতিযোগিতার পরিবর্তে পিছনে টেনে নিচ্ছে। তাছাড়া দৈনিক কাগজের সাহিত্য পাতাসমূহ সাহিত্যচর্চার পথকে উন্মুক্ত করে দিলেও এ পাতাগুলোও অনেকটা কর্পোরেট বাণিজ্যের মতোই হয়ে পড়েছে। রাজনৈতিক বিভাজন থেকে উত্তরণ ঘটাতে পারলে বাংলাসাহিত্য চর্চাকে একটি সফল রূপে দাঁড় করানো সম্ভব বলেও তারা মন্তব্য করেন।
-সোয়াইব হোসাইন

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ