ঢাকা, বুধবার 30 November 2016 ১৬ অগ্রহায়ন ১৪২৩, ২৯ সফর ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

প্রতিকূলতা আর চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় সাফল্য জিবিসি’র সনদ পাচ্ছে ২৫৩ পোশাক কারখানা

স্টাফ রিপোর্টার : নানা প্রতিকূলতা আর চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় সাফল্য দেখাচ্ছে দেশের পোশাক কারখানা। আর এরই স্বীকৃতিস্বরূপ প্রথম পর্যায়ে গ্লোবাল বিজনেস চ্যালেঞ্জ (জিবিসি) সনদ পাচ্ছে দেশের ২৫৩ পোশাক কারখানা। পোশাক কারখানার মানের উন্নয়নে এবং দক্ষ জনবল তৈরিতে প্রযুক্তির ব্যবহারের বিকল্প নেই বলে মনে করেন পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম। তবে বর্তমানে বাংলাদেশের পোশাক শিল্পখাতে দক্ষ জনবল তৈরিই প্রধান চ্যালেঞ্জ বলে মনে করছেন এ শিল্পের সঙ্গে জড়িত সংশ্লিষ্টরা।
গতকাল মঙ্গলবার রাজধানীর একটি হোটেলে পিডব্লিউসি আয়োজিত সেমিনারে বক্তারা এ কথা বলেন। সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্যে পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম বলেন, দক্ষতার কোনো বিকল্প নেই। ভিয়েতনাম, ইথিওপিয়া এখন পোশাকশিল্পে বাংলাদেশের অবস্থানে আসার চেষ্টা করছে। তাই বলে আমাদের বসে থাকলে চলবে না। দক্ষ জনবল তৈরি করে বিশ্ব বাজারে নিজের অবস্থান আরো শক্ত করতে হবে।
তিনি আরো বলেন, তাজরীন ও রানা প্লাজা ট্র্যাজেডির পর উদ্যোক্তারা দেশের কারখানাগুলোর নিরাপত্তা নির্ধারণে কাজ করেছেন। তারা অ্যাকর্ড, এলায়ান্সকে সহায়তা করেছেন। যা সত্যি প্রশংসার দাবিদার। এরই ধারাবাহিকতায় রেজিস্ট্রার্ড ট্রেড ইউনিয়নের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে প্রায় ৫শ’ ৫০টিতে।
বিজিএমইএ’র ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মঈনুদ্দিন আহমেদ বলেন, বাংলাদেশ পোশাকশিল্পে এগিয়ে যাচ্ছে। দিন দিন গ্রিন কারখানার সংখ্যা বাড়ছে। ইতোমধ্যে ২৫৩টি কারখানা জিবিসি (গ্লোবাল বিজনেস চ্যালেঞ্জ) সার্টিফিকেট পেতে যাচ্ছে। আরো কারখানা সামনে পাবে। নানা চ্যালেঞ্জের মুখে অবশ্যই দক্ষ জনবল তৈরি করতে হবে। কারণ প্রযুক্তিতে বিশ্বের সঙ্গে তাল মিলিয়ে এগিয়ে চলছে আমাদের দেশও।
তিনি বলেন, উন্নত প্রযুক্তির জন্য দক্ষ জনবল প্রয়োজন। সেই দক্ষ জনবল তৈরি করতে হবে। নয়তো দেখা যাবে এ বিষয়ে অন্যদের ওপর নির্ভর করতে হবে। তাছাড়া আমাদের নতুন বাজার খুঁজতে হবে। শুধু ইউরোপ আর আমেরিকার ওপর নির্ভর করে থাকলে চলবে না।
এ বিষয়ে বিজিএমইএ’র সাবেক সভাপতি মো. আতিকুল ইসলাম বলেন, দক্ষ জনবল তৈরিতে আমাদের গুরুত্ব সহকারে কাজ করতে হবে। কারণ এখন প্রযুক্তিতে এগিয়ে না গেলে আমাদের শিল্প পিছিয়ে পড়বে। এদিকে দক্ষ জনবল তৈরির কোনো বিকল্প নেই। সব খাতের কর্মীদের প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করতে হবে। এ সময় অন্যদের মধ্যে আরো উপস্থিত ছিলেন পিডব্লিউসি’র কান্ট্রি ডিরেক্টর মামুনুর রশীদ, পিডব্লিউডি’র পার্টনার পল্লব দে ও দীপক মালকানি।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ