ঢাকা, বুধবার 30 November 2016 ১৬ অগ্রহায়ন ১৪২৩, ২৯ সফর ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

ইউএনডিপি কর্মকর্তার কোটি টাকার জিপ জব্দ

স্টাফ রিপোর্টার : কূটনৈতিক সুবিধার অপব্যবহার করে জিপ কিনে তা বিক্রি করার দায়ে ইউএনডিপির এক কর্মকর্তার জিপ জব্দ করেছে শুল্ক গোয়েন্দা। ১ কোটি টাকার মিতসুবিসি পাজেরো জিপটি রাজধানীর উত্তরা থেকে জব্দ করা হয়। দীর্ঘদিন ধরে নজরদারির পর গতকাল মঙ্গলবার গাড়িটি আনুষ্ঠানিকভাবে জব্দ করা হয়েছে।
শুল্ক গোয়েন্দা সূত্র জানায়, গাড়িটি ইউএনডিপির ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা স্টিফেন প্রিসনার শুল্কমুক্ত সুবিধায় কিনেছিলেন। তবে প্রশাসনের অনুমতি না নিয়ে এবং শুল্ক পরিশোধ না করেই গাড়িটি আরেকজনের কাছে বিক্রি করেন।
সম্প্রতি গোপন সংবাদের ভিত্তিতে গাড়ির ক্রেতা উত্তরার ৪নং সেক্টরের আশিকুল হাসিব তারিকের গ্যারেজ থেকে সন্দেভাজন গাড়িটি তুলে আনেন শুল্ক গোয়েন্দা কর্মকর্তারা। গাড়ির সঙ্গে শুল্ক প্রদানের কাগজপত্র না থাকায় গতকাল সকালে গাড়িটি জব্দ দেখানো হয়। আশিকুল ইউএনডিপির সাবেক স্থানীয় স্টাফ ছিলেন। তবে তিনি প্রিভিলেজড পারসনের সুবিধাপ্রাপ্ত নন।
গাড়ির হলুদ নম্বর প্লেট (কূটনীতিক) এজস-০৫৯, যার আনুমানিক বাজার মূল্য ১ কোটি টাকা। হলুদ নম্বর প্লেটসম্বলিত গাড়ি শুধু প্রিভিলেজড পারসন ও কূটনীতিকরাই ব্যবহার করতে পারেন। শুল্ক গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদফতরের মহাপরিচালক ড. মইনুল খান জানান, ইউএনডিপি কর্মকর্তা এক্ষেত্রে শুল্কমুক্ত সুবিধার অপব্যবহার করে শুল্ক আইন ভঙ্গ করেছেন। তিনি অবৈধভাবে গাড়ি হস্তান্তর করে এর মধ্যে দেশ ত্যাগ করেছেন। এখন ইউএনডিপির আবাসিক প্রতিনিধির সঙ্গে যোগাযোগ করে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।
তিনি বলেন, গাড়িটি উদ্ধারে শুল্ক গোয়েন্দা অভিযান চালালে, সেখানে উপস্থিত ছিলেন না গাড়ির ক্রেতা তারিক। তার স্ত্রী গাড়ির কোনো কাগজ দেখাতে পারেননি বরং শুল্ক গোয়েন্দা কর্মকর্তাদের সঙ্গে অসহযোগিতামূলক আচরণ করেন। ড. মইনুল জানান, শুল্ক পরিশোধ না করে বর্তমানে ব্যবহারকারী আশিক আইন ভঙ্গ করেছেন। হলুদ প্লেটের পদাধিকার না থাকলেও তিনি এটি ব্যবহার করায় অসাধুতার আশ্রয় নিয়েছেন। এ বিষয়ে তাদের বিরুদ্ধে দি কাস্টমস অ্যাক্ট, ১৯৬৯-এর সংশ্লিষ্ট ধারা অনুযায়ী আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানিয়েছেন শুল্ক গোয়েন্দা। 

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ