ঢাকা, বুধবার 30 November 2016 ১৬ অগ্রহায়ন ১৪২৩, ২৯ সফর ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

সিংড়ায় তথ্য গোপন করে প্রধান শিক্ষক পদে বহাল!

সিংড়া (নাটোর) সংবাদদাতা : নাটোরের সিংড়ায় তথ্য গোপন করে প্রধান শিক্ষক পদে চাকরির অভিযোগ পাওয়া গেছে। সরকারি নিয়মনীতির তোয়াক্কা না করে অসাধু কর্মকর্তার যোগসাজসে ১২ বছর থেকে প্রধান শিক্ষক পদে চাকরি করছেন পাকিশা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক আলমগীর হোসেন।
জানা যায়, মোঃ আলমগীর হোসেন ১৯৮১ এবং ১৯৮৪ সালে যথাক্রমে তিনি এসএসসি ও এইচএসসিতে তৃতীয় বিভাগে উত্তীর্ণ হন। ১৮.০৭.১৯৮৮ সালে সহকারী শিক্ষক হিসেবে হোসেনপুর বে-সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে যোগদান করেন। ০১.০১.১৯৯২ সালে বিদ্যালয়টি এমপিওভুক্ত হয় এবং ০১.০১.২০১৩ সালে জাতীয়করণ লাভ করে। এ সময় তিনি তথ্য গোপন করে অসাধু কর্মকর্তাদের যোগসাজশে ১৯.০৪.২০১৫ সালে পাকিশা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক পদে যোগদান করেন।
সূত্রে জানা যায়, গত ২০০৮ সালের ১৪ জুলাই তারিখে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের পরিপত্র অনুযায়ী রেজিস্টার্ড বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়সমূহের শিক্ষা ও ব্যবস্থাপনার মান উন্নয়নের লক্ষে নীতিমালা জারি করেন। সে নীতিমালা মোতাবেক এসএসসি ও এইচএসসির দুটিতে তৃতীয় বিভাগ প্রাপ্ত কেউ প্রধান শিক্ষক হতে পারবেন না। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন শিক্ষক জানান, নিয়ম নাই। এটা কোনভাবে কর্তৃপক্ষকে ম্যানেজ করার ফল। তাছাড়া তথ্য জালিয়াতি সহ প্রধান শিক্ষক হিসেবে তার বেতনভাতা নেয়ার এখতিয়ার নাই।
প্রধান শিক্ষক আলমগীর হোসেনকে এ ব্যাপারে জিজ্ঞাসাবাদ করলে তিনি অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, শিক্ষা অফিসে সঠিক তথ্য আছে। উপজেলা শিক্ষা অফিসার আমজাদ হোসেন বক্তব্য দিতে অপারগতা প্রকাশ করে বলেন, বিষয়টি আমার জানা নাই। জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার নফীসা বেগম বলেন, বিষয়টি গুরুতর। প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ