ঢাকা, রোববার 4 December 2016 ২০ অগ্রহায়ন ১৪২৩, ৩ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

রয়টার্সের প্রতিবেদন তদন্ত করে দেখা হচ্ছে : ডিএমপি কমিশনার

স্টাফ রিপোর্টার: গুলশানের হলি আর্টিজান বেকারীতে হামলার আগে তামিম চৌধুরী আইএস’র অনুমতি নিয়েছিলো- রয়টার্সে প্রকাশিত এমন প্রতিবেদনের বিষয়টি নিয়ে তদন্ত করে দেখা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন ঢাকা মেট্রোপলিটান পুলিশ (ডিএমপি) কমিশনার মো. আছাদুজ্জামান মিয়া।
তিনি বলেন, তবে আমাদের গোয়েন্দাদের কাছে এমন কোনো তথ্য নেই। হলি আর্টিজান হামলার পর থেকে পুলিশের সক্ষমতা অনেকাংশে বৃদ্ধি পেয়েছে। বাংলাদেশ পুলিশ এখন যে কোনো ধরনের হামলা মোকাবেলায় সক্ষম। কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিট দেশের মানুষের উন্নয়ন ও নিরাপত্তার জন্য সর্বদা কাজ করবে। ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ হেডকোয়ার্টার্সে গতকাল শনিবার দুপুরে ডাচবাংলা ব্যাংক লিমিটেড কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিটকে ২ কোটি টাকার চেক হস্তান্তর অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন।
ডাচ্-বাংলা ব্যাংক লিমিটেডকে আন্তরিক ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে কমিশনার বলেন, বাংলাদেশের ব্যাংকিং খাতের আইডল হিসেবে আমরা ডাচ্-বাংলা ব্যাংক লিমিটেডকে জানি। আজ তারা যে ২ কোটি টাকার আর্থিক অনুদান আমাদের দিয়েছে, সে টাকা ডিএমপি কাউন্টার টেরোরিজম বিভাগের উন্নয়ন ও সক্ষমতা বৃদ্ধির লক্ষে ব্যয় করা হবে। ডাচ্-বাংলা ব্যাংক লিমিটেড (ডিবিবিএল) এর সাথে ডিএমপি’র অংশীদারিত্ব অনেক পুরাতন। ডিএমপি’র সার্বিক উন্নয়নে সব সময় ডিবিবিএলকে আমরা পাশে পেয়েছি।
সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, জঙ্গি সংগঠন নব্য জেএমবি’র নেতা মারজান, বাশার, রাজিবসহ বিভিন্ন সদস্য যারা পলাতক রয়েছে, তাদের গ্রেফতারে পুলিশ অভিযান চালাচ্ছে। নিরাপত্তা বাড়লেই দেশের বিনিয়োগ বাড়বে আর বিনিয়োগ বাড়লে দেশ এগিয়ে যাবে। দেশে টেন্ডারবাজি-চাঁদাবাজি হলে বিনিয়োগে বাধাগ্রস্ত হবে। আর বিনিয়োগে যাতে কোনো বাধাগ্রস্ত না হয় সে জন্য পুলিশ কাজ করছে।
আছাদুজ্জামান মিয়া বলেন, ডিএমপিকে আমরা জনমুখী করছি। থানা পুলিশের সেবার মান অনেক বৃদ্ধি পেয়েছে। সেবার মান বৃদ্ধি করতে হলে দরকার উন্নত প্রশিক্ষণ, আর্থিক সাপোর্ট ও দৃঢ় মনোবল। সামাজিক দায়বদ্ধতার কারণে অনেকে ডিএমপির পাশে থেকে সক্ষমতা বৃদ্ধিতে সাহায্যের হাত বাড়িয়েছে। সম্মানিত নাগরিকদের নিরাপত্তা, আইন-শৃংখলা ও সন্ত্রাসদমনে আমাদের ডিএমপি’র ফোর্স ও কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিট সর্বদা কাজ করে যাচ্ছে।
অনুষ্ঠানে ডাচ্-বাংলা ব্যাংকের চেয়ারম্যান সায়েম আহমেদ বলেন, ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের সাথে আমরা অতীতেও যেমন ছিলাম বর্তমানেও পাশে থাকবো। ডিএমপি যেভাবে কাজ করে যাচ্ছে তা অত্যন্ত প্রশাংসনীয় ও গৌরবময়। ডিএমপির সার্বিক কর্মকা-ে আমরা অত্যন্ত খুশি। আমরা আশা করি ডিএমপি তার এই ধারাবাহিক সাফল্য ধরে রাখবে।
অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন-ডাচ্-বাংলা ব্যাংক লিমিটেডের ম্যানেজিং ডিরেক্টর এ কে এম শিরিন, অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (প্রশাসন) মো. শাহাব উদ্দিন কোরেশী, অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (সিটি) মো. মনিরুল ইসলামসহ পুলিশের উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ