ঢাকা, রোববার 4 December 2016 ২০ অগ্রহায়ন ১৪২৩, ৩ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

আর্থিক খাতে আইন লংঘনকারীদের শাস্তি খুবই কম

স্টাফ রিপোর্টার : তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক উপদেষ্টা ড. এবি. মির্জা আজিজুল ইসলাম বলেছেন, দেশে আইন লংঘনকারীদের শাস্তি কম। বিশেষ করে আর্থিক খাতে আইন লংঘনকারীদের শাস্তি আরও কম হয়। অনেক ক্ষেত্রে আইনি প্রক্রিয়ায় দীর্ঘসূত্রতা লক্ষ্য করা যায়। এতে করে কোম্পানির সুশাসন প্রতিষ্ঠা করা বড় প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করে।
গতকাল শনিবার রাজধানীতে ‘বাংলাদেশ ক্যাপিটাল মার্কেট এক্সপোতে ‘তালিকাভুক্ত কোম্পানির সুশাসন: বর্তমান অবস্থা ও করণীয়’ শীর্ষক এক সেমিনারে তিনি এ কথা বলেন। সেমিনারে বক্তব্য রাখছেন তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক উপদেষ্টা ড. এবি. মির্জা আজিজুল ইসলাম। সেমিনারে বিশেষ অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ এন্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের কমিশনার ড. স্বপনকুমার বালা এবং বীমা উন্নয়ন ও নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষের সদস্য সুলতান-উল-আবেদিন মোল্লা, ডিএসই ব্রোকার্স এসোসিয়েশনের সিনিয়র সহ-সভাপতি মোশতাক আহমেদ সাদেক। এতে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন আইসিএবির সাবেক সভাপতি মাহমুদুল হাসান খসরু। ৩ দিনব্যাপী এই মেলা গতকাল শনিবার শেষ হয়।
মির্জা আজিজুল বলেন, কোম্পানির মধ্যে সুশাসন প্রতিষ্ঠায় বিনিয়োগকারীদের বড় ভূমিকা রয়েছে। তারা যদি সক্রিয় ভূমিকা রাখতে পারে, তাহলে সুশাসন প্রতিষ্ঠার পথ সহজ হবে। বিনিয়োগকারীদের উদ্দেশে তিনি বলেন, নিজেকে ভিকটিম হিসেবে মনে করবেন না। আপনাদের প্রো-একটিভ ভূমিকা রাখতে হবে। তবে নিয়ন্ত্রণকারী সংস্থাগুলোরও অগ্রণী ভূমিকা রাখতে হবে।
তিনি আরও বলেন, আমাদের দেশে নিয়ন্ত্রক সংস্থাগুলোর আইনে অনেক অসামঞ্জস্য রয়েছে। সেগুলোকে সার্বিক আলোচনার মধ্য দিয়ে সেই অসামঞ্জস্যতা গুলো দূর করা হবে।
কিছু কিছু অভিযোগ আছে- ‘নিয়ন্ত্রক সংস্থাগুলোর মধ্যে প্রতিদ্বন্দ্বী মনোভাব রয়েছে, আমার ক্ষমতা আপনার চেয়ে বেশি। সুতরাং আমার কাজ আমি করব আপনার নাক গলার কে।’ এর রকম পরিস্থিত যেন না যে দিকে সরকারকে নজর দিতে হবে।
প্রবীণ এই অর্থনীতিবিদ বলেন, যেসব কোম্পানি পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত হয়। সুশাসন প্রতিষ্ঠিত হলে সেসব কোম্পানিকে বুঝতে সুবিধা হবে। পাশাপাশি কোম্পানির দীর্ঘস্থায়িত্ব অধিক প্রবৃদ্ধি ও বাজারে তাদের ব্র্যান্ডিং হবে। কোম্পানির ম্যানেজমেন্টকে এ বিষয়টি বোঝাতে সংশ্লিষ্ট সবাইকে ভূমিকা রাখতে হবে।
কোম্পানির সুশাসন একদিনে প্রতিষ্ঠা হয় না উল্লেখ করে মির্জা আজিজুল বলেন, সুশাসন প্রতিষ্ঠা হতে সময় লাগবে। এটি একদিনে সম্ভব হবে না। অনেক কোম্পানিতে সুশাসন প্রতিষ্ঠা হয়েছে। সব কোম্পানিতে সুশাসন প্রতিষ্ঠা আনতে হবে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ