ঢাকা, রোববার 4 December 2016 ২০ অগ্রহায়ন ১৪২৩, ৩ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

সাভারে ব্যবসায়ীকে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর পরিচয়ে অপরহরণের অভিযোগ

সাভার সংবাদদাতা : সাভারের আমিনবাজারে এক ব্যবসায়ীকে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর পরিচয়ে অপরহরণের অভিযোগ উঠেছে। অপহৃত ওই ব্যবসায়ীর নাম হাফিজুর রহমান। অপহরণের স্বীকার হাফিজুর রহমানের পরিবার এ অভিযোগ করেন। শুক্রবার ভোরে রাজধানীর পুরান ঢাকা এলাকা থেকে তাকে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্য পরিচয় দিয়ে তুলে নিয়ে যাওয়া হয় তাকে।
ব্যবসায়ী হাফিজুর রহমানের স্ত্রী অভিযোগ করে বলেন, ভোরে একদল ব্যক্তি তাদের পুরান ঢাকার এক আত্মীয়ের বাসা থেকে হাফিজুরকে ধরে মারধর করে। একপর্যায়ে নিজেদের আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারীকারী বাহিনীর সদস্য পরিচয় দিয়ে তাকে তুলে নিয়ে যায় তারা।পরবর্তীতে তারা সাভার মডেল থানা কিংবা ডিবি’র কার্যালয়ে খোঁজ করে হাফিজুরের কোন সন্ধান পাননি। এদিকে ব্যবাসায়ী হাফিজুরের কোন সন্ধান না পেয়ে তার পরিবারের মাঝে আতঙ্ক দেখা দিয়েছে।
হাফিজুর রহমানের পরিবারের সদস্যরা অভিযোগ করে বলেন, হাফিজুরের নামে একটি মামলা রয়েছে। তাকে আটক কিংবা  গ্রেফতার করে আদালতে সোপর্দ না করায় এ নিয়ে রহস্যের সৃষ্টি হয়েছে। অবিলম্বে তারা হাফিজুরের সন্ধান দাবি করেন।
এবিষয়ে সাভার মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এস এম কামরুজ্জামান বলেন বিষয়টি আমরা তদন্ত করে দেখছি।
ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া ॥ আহত ৩০
তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে সাভারে একটি ইট ভাটায় দুই দল শ্রমিকদের মধ্যে ব্যাপক সংঘর্ষ ও ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটেছে। সংঘর্ষে এসময় আহত হয়েছে অন্তত ৩০ জন শ্রমিক। গতকাল শনিবার সকালে সাভারের নামা গেন্ডা এলাকায় মেসার্স কর্ণফুলি সুপার বিক্সস ইট ভাটায় এঘটনা ঘটে। সংঘর্ষের খবর পেয়ে সাভার মডেল থানা পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছে। মেসার্স কর্ণফুলি সুপার বিক্সস ইট ভাটার মালিক সাভারের বিশিষ্ট শিল্পপতি অলি আহমেদ।
কর্ণফুলি সুপার বিক্সস ইট ভাটার ম্যানেজার মিজান মিয়া জানান, শনিবার সকালে ইট ভাটায় কাছ করছিলেন প্রায় কয়েক’শ শ্রমিক। এসময় ইট ভাটার একটি রাস্তায় ইট সড়ানোর গাড়ি রাখেন এক শ্রমিক। এসময় অন্য এক শ্রমিক রাস্তায় গাড়ি রাখা যাবেনা বলে ওই শ্রমিককে জানালে তাদের মধ্যে সংঘর্ষ বাধে। সংঘর্ষ ও ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ায় উভয় গ্রুপের অন্তত ৩০ জন শ্রমিক আহত হয়। পরে ইট ভাটা কর্তৃপক্ষ আহত শ্রমিকদের উদ্ধার করে চিকিৎসার জন্য সাভারের বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি করে। এঘটনায় ওই এলাকায় চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে।
এবিষয়ে সাভার মডেল থানার সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার মাহবুবুর রহমান বলেন বিষয়টি তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। এঘটনায় সাভার মডেল থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ