ঢাকা, রোববার 4 December 2016 ২০ অগ্রহায়ন ১৪২৩, ৩ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

জয় দিয়েই গ্রুপ পর্ব শেষ করল রাজশাহী

রফিকুল ইসলাম মিঞা : চিটাগাং ভাইকিংসকে হারিয়ে জয় দিয়েই গ্রুপ পর্ব শেষ করল রাজশাহী কিংস। আর পরাজয় দিয়েই শেষ করল চিটাগাং ভাইকিংস। গতকাল রাজশাহী ৬ উইকেটে হারায় চিটাগাং ভাইকিংসকে। এই জয়ের ফলে ১২ ম্যাচ শেষে রাজশাহীর পয়েন্ট হলো ১২। অবশ্য ১২ ম্যাচে ১২ পয়েন্ট আছে চিটাগাং ভাইকিংসেরও। তবে রান রেটে রাজশাহী কিংসকে পিছনে ফেলে পয়েন্ট তালিকার দ্বিতীয় স্থানেই আছে চিটাগাং ভাইকিংস। গতকাল আগে ব্যাট করে চিটাগাং ভাইকিংস ৯ উইকেটে করে ১১১ রান। জয়ের জন্য রাজশাহী কিংসের সামনে টার্গেট ছিল ১১২ রান। রাজশাহী কিংস ৪ উইকেটে ১৩.৫ ওভারে ১১২ রান করে ম্যাচ জিতে নেয় ৬ উইকেটে। বিজয় দলের পক্ষে অভিষেক ম্যাচে ৫ উইকেট নিয়ে দলকে জয় এনে দেয়া আফিফ হোসেনই হন ম্যান অব দ্য ম্যাচ।
 জয়ের জন্য রাজশাহী কিংসের সামনে টার্গেট ছিল ১১২ রান। টার্গেটটা সহজই ছিল দলের জন্য। আর ব্যাট করতে নেমে ওপেনিং জুটিতেই দলকে ৩২ রানে নিয়ে যায় নুরুল হাসান আর মুমিনুল হক। দলীয় ৩২ রানে নুরুল হাসানের বিদায়ে ভাংগে ওপোনিং জুটি। সাকলাইন সজিবের বলে বোল্ড হওয়ার আগে নুরুল হাসান করেন ১২ রান। দলীয় ৩৭ রানে দ্বিতীয় উইকেট হারায় রাজশাহী। এবার বিদায় নেন অপর ওপেনার মুমিনুল হক। বিদায়ের আগে মুমিনুল করেন ২১ রান। তবে সব্বির রহমান আর ফ্রাঙ্কলিন মিলে দলকে ভালোই এগিয়ে নেন। এই জুটি ভাংগার আগেই রাজশাহী পৌছে যায় ৭৭ রানে। ৮ রান করা সাব্বিরের বিদায়ে তৃতীয় উইকেট হারায় দলটি। ব্যাট করতে নেমে অধিনায়ক ড্যারেন স্যামি মাত্র তিন রানে আউট হলে ৯৩ রানে রাজশাহী হারায় আরো একটি উইকেট। তবে পঞ্চম উইকেট জুটিতে প্যাটেলকে নিয়ে ফ্রাঙ্কলিন দলকে জয়ী করেই মাঠ ছাড়েন। কারণ এই জুটিতেই রাজশাহী -১৩.৫ ওভারে ৪ উইকেটে ১১২ রান করে ম্যাচ জিতে নেয় ৬ উইকেটে। ফ্রাঙ্কলিন ৬৩ রানে আর প্যাটেল ৩ রানে অপরাজিত ছিলেন। সাকলাইন সজিব আর ইমরান খান দুটি করে উইকেট নেন।
-    এর আগে, টস হেরে আগে ব্যাট করার সুযোগ পাওয়া চিটাগাং ভাইকিংস ৯ উইকেট হারিয়ে করে ১১১ রান। রাজশাহী কিংসের অফস্পিনার আফিফ হোসেনের অসাধারন বোলিংয়ে ১১১ রানে গুটিয়ে যায় তামিমের দল চিটাগং ভাইকিংসের ইনিংস। তবে দলের সেরা ব্যাটসম্যানদের ব্যর্থতার মাঝে শোয়েব মালিকের ৬৭ রানের অপিরাজিত ইনিংসের উপর নির্ভর করেই ৯ উইকেট হারিয়ে ১১১ রান করতে পারে দলটি। গতকাল ব্যাট করতে নেমে প্রথম থেকেই বিপদে পড়ে দলটি। আর এর শুরুটা অধিনায়ক তামিম ইকবালকে দিয়েই। ওয়েস্ট ইন্ডিজ পেসার কেসরিক উইলিয়ামসের করা ম্যাচের প্রথম বলেই রানের খাতা খেলার আগে আউট হন তামিম। তামিমের বিদায়ে গেইলের সাথে ব্যাট করতে নেমে এনামুল হক দুটি চারে ৮ রান করার পর দলীয় ৯ রানেই বিদায় নেন মিরাজের বলে বোল্ড হয়ে। দলীয় ২৪ রানে তৃতীয় উইকেট হারায় দলটি। এবার আউট হন ১৩ রান করা জহিরুল ইসলাম। আফিফের বলে লেগ বিফোর হন জহুরুল ইসলাম। তবে এই আউটটি নিয়ে বিতর্ক আছে। ব্যাটের পেছনের কানায় লেগে বল লাগে তার উরুতে। আম্পায়ার নাদির শাহ লেগ বিফোরের আবেদনে আঙুল উঠিয়ে দেন। দলীয় ২৪ রানে প্রথম তিন উইকেট পড়লে ভরসা ছিল ক্রিস গেইলকে নিয়। কিন্তু এই ম্যাচেও কিছু করতে পানেনি গেইল। চার ছক্কা ছাড়া ১৫ বল খেলে ৫ রানে বোল্ড হন তিনি। আফিফের বলেই আউট হন গেইল। জাকির হাসানের ৫ রানে বিদাযের পর দলেল হাল ধরেন শোয়েব মালিক ও মোহাম্মদ নবি। তবে নাজমুলকে কাভার দিয়ে ছক্কা মারার পর আবার এর পুনরাবৃত্তি করতে গিয়ে নবি ১২ রানে বোল্ড হন। সাকলাইন সজিব ও ইমরান খান ব্যাট করতে নেমেও আফিফের ঘুর্ণিকে সামাল দিতে পারেননি। সজিবকে এক রানে লেগ বিফোর ও ইমরানকে শূন্য রানে স্ট্যাম্পড করে আফিফ অভিষেক ম্যাচে পাঁচ উইকেট নেওয়ার কৃতিত্ব দেখান। তবে দলের এই ব্যাটিং বিপর্যয়ে একাই লড়ে গেছেন শোয়েব মালিক। শেষ পর্যন্ত ৫৪ বলে তিনটি ছক্কা ও ছয়টি চারে ৬৭ রানে অপরাজিত ছিলেন পাকিস্তানি এই ব্যাটসম্যান। ফলে দলের ১১১ রানের মাধ্যে ৬৭ রানই তার।
 সংক্ষিপ্ত স্কোর :
 চিটাগাং ভাইকিংস : ১১১/৯ (২০ ওভার)
রাজশাহী কিংস : ১১২/৪ (১৩.৫ ওভার)
রাজশাহী কিংস ৬ উইকেটে জয়ী।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ