ঢাকা, মঙ্গলবার 6 December 2016 ২২ অগ্রহায়ন ১৪২৩, ৫ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

মাধবদীতে কিশোর হত্যা মামলার দু’আসামী গ্রেফতার

মাধবদী (নরসিংদী) সংবাদদাতা : মাধবদীতে শিশু রাহিম (১৪) হত্যা মামলার দু’আসামীকে গ্রেফতার করেছে মাধবদী থানা পুলিশ। সেই সাথে উদ্ধার করা হয় নিহত রাহিমের অটো রিকশা ও মোবাইল ফোন সেট। গতকাল সোমবার সকালে আসামী রফিকুল (১৯) ও আলমগীর (২৪)কে আদালতে প্রেরণ করা হয়। গত ৫ ডিসেম্বর রোববার রাতে আরমান ভূইয়ার ছেলে আসামী রফিকুল (১৯) ও কিরন মিয়ার ছেলে আলমগীর (২৪)কে তাদের বাড়ি পলাশের পারুলিয়ার চক থেকে গ্রেফতার করেন মাধবদী থানার এস আই আরিফুল ইসলাম।

গত ৮ নবেম্বর আসামীদ্বয় রাহিমের ভাড়ায় চালিত ব্যাটারির অটো রিকশা ছিনতাইয়ের উদ্দেশ্যে রিকশা চালক রাহিমকে পলাশ থেকে রফিকুলের ভগ্নিপতি পরশ মিয়ার বাড়ি মাধবদীর পাঁচদোনায় যাওয়ার কথা বলে সন্ধ্যা ৭টা ৩০ মিনিটে ঘটনাস্থল মহিষাশুড়া ইউনিয়নের সাবেক রেল লাইনের ৫নং ব্রিজের পাশে চুয়াং-হু থাই এলোমিনিয়াম ফ্যাক্টরীর পুকুর পাড়ের নির্জন স্থানে নিয়ে এসে একজন মুখ চেপে ধরে আরেকজন গলায় চেপে ধরে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে লাশ পুকুরে ফেলে দিয়ে রাহিমের রিকশা নিয়ে চলে যায়। 

পরদিন ৯ নবেম্বর সকালে কয়েকজন পথচারী একটি মৃত দেহ পড়ে থাকতে দেখে বিষয়টি ওয়ার্ড মেম্বার আমজাদ হোসেনকে জানালে তিনি থানায় অবহিত করেন পরে মাধবদী থানার ওসি আবুল কালাম ও এস আই আরিফ ঘটনাস্থলে গিয়ে জিন্সের প্যান্ট এবং টি সার্ট পড়া মৃত দেহটি উদ্ধার করে। ঐদিনই  মাধবদী থানায় নিহত রাহিমের পিতা আশ্রাব মিয়া বাদী হয়ে অজ্ঞাত নামা আসামীদের নামে মামলা করেন যার নং (৮), তাং ৯/১১/১৬, ধারা ৩০২/২০১/৩৪ দঃবিঃ দায়ের করলে পুলিশ তদন্তে নেমে হত্যাকাণ্ডের মূল রহস্য উদ্ধার করে এবং আসামীদের গ্রেফতার করতে সক্ষম হয় এবং নরসিংদী শহর থেকে উদ্ধার হয় নিহত রাহিমের অটো রিকশা ও পলাশ জনতা জুট মিলের আকরাম নামের এক ব্যক্তির কাছ থেকে উদ্ধার হয় নিহত রাহিমের মোবাইল ফোন সেট যা আকরাম ১২শ’ টাকায় কিনেছিল আসামী রফিকুলের ভগ্নিপতি পরশ মিয়ার কাছ থেকে। 

আসামীদের আদালতে সোপর্দ করলে তারা ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিতে এ হত্যাকান্ডের লোমহর্ষক বর্ণনা দিয়েছে বলে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই আরিফ জানিয়েছেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ