ঢাকা, রোববার 11 December 2016 ২৭ অগ্রহায়ন ১৪২৩, ১০ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

সুন্দরবনে পোনা শিকারে ২০ চক্র সক্রিয়

খুলনা অফিস : সুন্দরবনের বিভিন্ন নদ-নদী ও খালে অবৈধভাবে পারসে মাছের পোনা শিকার চলছে। এ কাজে সক্রিয় রয়েছে ২০টিরও বেশি পোনা শিকারি চক্র।
এ ছাড়া বনের নদ-নদী ও খালে ইঞ্জিনচালিত ট্রলার চলাচলে নিষেধাজ্ঞা থাকলেও অবৈধভাবে শিকার করা পোনা পরিবহনের জন্য প্রায় অর্ধশত ইঞ্জিনচালিত ট্রলার বনের মধ্য প্রস্তুত রেখেছে এসব চক্র।
সুন্দরবনের আলোরকোল, হিরণ পয়েন্ট ও বাটলু বনাঞ্চলসহ বনের বিভিন্ন নদ-নদী ও খাল থেকে আহরণ নিষিদ্ধ পারসে মাছের পোনা শিকারের পর তা এসব ইঞ্জিনচালিত ট্রলারে করে অন্যত্র নিয়ে যাওয়া হয় বলে বিভিন্ন সূত্রে জানা গেছে।
সংশ্লিষ্ট একাধিক সূত্রে জানা গেছে, সুন্দরবন সংলগ্ন খুলনার কয়রা ও দাকোপ এবং সাতক্ষীরার আশাশুনি ও শ্যামনগর উপজেলার শতাধিক জেলে গত ৩০ নবেম্বর রাতে পারসে পোনা আহরণের জন্য সুন্দরবনে প্রবেশ করেছে।
এ ছাড়া আরও অনেক জেলে বনে প্রবেশ করার চেষ্টা করছে। বেশির ভাগ জেলে খুলনা রেঞ্জের ছেড়া ও আন্ধারমানিক নদী হয়ে গেওয়াখালি, পাথকোষ্টা দিয়ে গহিন বনে ঢুকে আলোরকোলে পারসে পোনা শিকার শুরু করেছে।
আবার অনেকে আড়পাঙ্গাসিয়া নদী হয়ে বাটলু, দোবেঁকি, শাপখালি, মান্দারবাড়িয়া, জামতলা বনের নদী খালে পোনা ধরছে।
ইঞ্জিনচালিত ট্রলারে করে জেলেরা সংশ্লিষ্ট ফরেস্ট স্টেশন ও বন টহল ফাঁড়ির সামনে দিয়ে চলাচল করলেও অবৈধ অনুপ্রবেশকারী জেলে ও পারসে পোনা নিধনকারী চক্রগুলোর বিরুদ্ধে বন বিভাগ কোনো ব্যবস্থা নিচ্ছে না বলে অনেকে অভিযোগ করেছে।
এ ব্যাপারে সুন্দরবন পশ্চিম বন বিভাগের বিভাগীয় কর্মকর্তা (ডিএফও) মুহম্মদ সাঈদ আলী বলেন, সুন্দরবনের ভেতরে ট্রলার চলাচল ও পারসে মাছের পোনা আহরণকারীদের কোনো অবস্থাতেই ছাড় দেয়া হবে না।
যে কোনো মূল্যে অসাধু চক্রগুলোকে প্রতিহত করা হবে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ