ঢাকা, সোমবার 12 December 2016 ২৮ অগ্রহায়ন ১৪২৩, ১১ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

বাংলাদেশ ভ্রমণে সতর্কতা প্রত্যাহার করে নেবে জাপান -অর্থমন্ত্রী

স্টাফ রিপোর্টার : অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত জানিয়েছেন, গুলশানের হলি আর্টিজানে হামলার ঘটনার পর জাপান সরকারের পক্ষ থেকে সে দেশের নাগরিকদের বাংলাদেশে ভ্রমণে যে সতর্কতা দেয়া হয়েছিল তা প্রত্যাহার করে নেওয়া হবে।
গতকাল রোববার সচিবালয়ে এক সাংবাদিক সম্মেলনে অর্থমন্ত্রী এ কথা জানান। তিন দিনের জাপান সফর শেষে অর্থমন্ত্রী গতকাল শনিবার দেশে ফেরেন। সচিবালয়ে সাংবাদিক সম্মেলনে অর্থমন্ত্রীর সঙ্গে উপস্থিত ছিলেন অর্থসচিব মাহবুব আহমেদ, অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের (ইআরডি) জ্যেষ্ঠ সচিব মোহাম্মদ মেজবাহ উদ্দিনসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা।
 সফরে তিনি জাপানের অর্থমন্ত্রী তারো আসো এবং পররাষ্ট্রবিষয়ক প্রতিমন্ত্রী ও জাপানের আন্তর্জাতিক সহযোগিতা সংস্থার (জাইকা) প্রেসিডেন্টের সঙ্গে বৈঠক করেন। এ সফর নিয়েই আজকের সাংবাদিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়।
অর্থমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশে কাজ করার ক্ষেত্রে জাপানি নাগরিকদের নিরাপত্তা আরও জোরদার করা হয়েছে। এটা শুনে তাঁরা আশ্বস্ত হয়েছেন। সুতরাং চলমান যেসব জাপানি প্রকল্প আছে, সেসব প্রকল্পে কাজ করার জন্য জাপানি নাগরিকরা বাংলাদেশে আসবেন। তাঁদের নিরাপত্তার কোনো অভাব হবে না।
মন্ত্রী বলেন, তারা বলেছেন বাংলাদেশে বিনিয়োগে এখন আর কোন ঝুঁকি নেই। প্রাইভেট ও সরকারি- উভয় খাতেই বড় বিনিয়োগ করবে জাপান।
সাংবাদিকদের অর্থমন্ত্রী আরো বলেন, জাপান কখনোই বাংলাদেশে বিনিয়োগের বিষয়ে নেতিবাচক মনোভাব পোষণ করেনি। এমনকি হলি আর্টিজানের মতো জঘণ্য ঘটনায়ও তারা বিনিয়োগে আগ্রহ হারায়নি। তারা শুধু তাদের কর্মীদের নিরাপত্তার দিকে খেয়াল রাখার পরামর্শ দিয়েছেন।
সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, বাংলাদেশে বড় বিনিয়োগের পরিবেশ সৃষ্টি হয়েছে। এই বিনিয়োগে চীন এবং ভারতের মতো জাপানও সঙ্গী হবে।
চলতি বছর জুলাই মাসে গুলশানের হলি আর্টিজান বেকারিতে জঙ্গি হামলায় ১৭ বিদেশী নাগরিক নিহত হন। তাদের মধ্যে বেশিরভাগই ছিলেন জাপানের। এ ঘটনার পর জাপানের কয়েকটি বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠান তাদের কর্মীদের বাংলাদেশ সফর সাময়িকভাবে স্থগিত করে। এক প্রশ্নের জবাবে অর্থমন্ত্রী বলেন, হলি আর্টিজানের ঘটনার পর সরকার সব পরিস্থিতি সুন্দরভাবে মোকাবেলা করেছে। এখন আর নিরাপত্তা সংকট নেই।
আসছে বছরের এপ্রিলে জাইকার ভাইস প্রেসিডেন্টের বাংলাদেশ সফরে আসার কথা রয়েছে জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, এপ্রিলে জাপানে অর্থবছর শুরু হয়। তারা ওই সময়ে বিভিন্ন দেশের সঙ্গে চুক্তি করে। ওই সময়ে তিনি বাংলাদেশে এলে অনেক বিষয়ে চুক্তি হবে।
তিনি আরো বলেন, হলি আর্টিজানের ঘটনার পর বাংলাদেশে তাদের কর্মী ও সরকারি কর্মকর্তাদের বিষয়ে ভ্রমণ ও চলাফেরায় সতর্কতা জারি করে জাপান। কিন্তু এই সতর্কতা সরকারি অফিসিয়ালরা মেনে চরলেও প্রাইভেট কোম্পানিগুলো এই সতর্কতা জারির নোটিশে কর্ণপাত করেনি। তারা সক্রিয়ভাবে কাজ করেছে।
বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ চুরির বিষয়ে সিআইডির প্রতিবেদন সম্পর্কে জানতে চাইলে মন্ত্রী বলেন, তিনি প্রতিবেদনটি এখনো দেখেননি। এ বিষয়ে কথা বলা যাবে না।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ