ঢাকা, বৃহস্পতিবার 15 December 2016 ১ পৌষ ১৪২৩, ১৪ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

যথাযথ ধর্মীয় মর্যাদায় পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী (সা:) পালিত

স্টাফ রিপোর্টার: যথাযথ ধর্মীয় মর্যাদা ও ভাবগাম্ভীর্যের মধ্য দিয়ে গত মঙ্গলবার সারা দেশে পালিত হয়েছে পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী (সা:)। বিশ্বমানবতার মুক্তির দূত হযরত মুহাম্মদ (সা:)-এর জন্মদিন উৎসাহ-উদ্দীপনা ও তাঁর জীবনী আলোচনার মধ্যদিয়ে পালন করেছে মুসলিম বিশ্ব। আলোচনা অনুষ্ঠান, ইবাদাত-বন্দেগী, দোয়া দুরূদ ও ওয়াজ মাহফিলের মাধ্যমে মুহাম্মদ (সা:)কে স্মরণ করেছে উম্মতে মোহাম্মাদী। এ উপলক্ষে রাষ্ট্র ও সরকার প্রধান এবং বিভিন্ন সংগঠনের প্রধানগণ পৃথক পৃথক বাণী দিয়েছেন। ঈদে মিলাদুন্নবী উপলক্ষে সংবাদপত্রে বিশেষ নিবন্ধ প্রকাশিত হয়েছে, বিটিভি ও বাংলাদেশ বেতারসহ ইলেক্ট্রনিক মিডিয়া বিভিন্ন অনুষ্ঠানমালা প্রচার করেছে। সরকারি ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠানসহ দৈনিক পত্রিকাসমূহে ঈদে মিলাদুন্নবী উপলক্ষে মঙ্গলবার বিশেষ ছুটি পালিত হয়েছে। ফলে  সোমবার কোন পত্রিকা প্রকাশিত হয়নি।
আজ থেকে ১৪শ ৪৬ বছর আগে ৫৭০ খৃষ্টাব্দে ১২ রবিউল আউয়াল সুবহে সাদেকের সময় মক্কা নগরীর সম্ভ্রান্ত কুরাইশ বংশে মা আমেনার গর্ভে জন্মগ্রহণ করেন বিশ্ব শান্তির দূত হযরত মুহাম্মদ (সা:)। পিতা মাতাকে হারিয়ে এতিম অবস্থায় চাচা আবু তালিবের আশ্রয়ে বড় হন তিনি। চল্লিশ বছর বয়সে নবুয়ত লাভের পর শুরু করেন মানুষকে সত্য সুন্দর ও শান্তির পথ প্রদর্শনের আন্দোলন। অনেক বাধা বিপত্তি পেরিয়ে তিনি এ আন্দোলনে সফল হন। প্রতিষ্ঠা করেন সাম্য শান্তির অসাম্প্রদায়িক রাষ্ট্র মদীনাতুল মুনাওয়ারা। তিনিই সর্বপ্রথম মদীনা সনদ নামে শান্তিময় রাষ্ট্রের লিখিত সংবিধান প্রণয়ন করেন। যা আজো বিশ্বের প্রথম সংবিধান হিসেবে স্বীকৃত ও সম্মানিত।
পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী (সা:) উপলক্ষে বিভিন্ন সংগঠন আলোচনা সভার আয়োজন করেছে। মঙ্গলবার বাদ আসর বঙ্গভবনে মিলাদ মাহফিলের আয়োজন করা হয়। বঙ্গভবনের দরবার হলে অনুষ্ঠিত মিলাদ মাহফিলে রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ যোগ দেন। বাদ মাগরিব বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ ধানমন্ডির রাজনৈতিক কার্যালয়ে মিলাদ ও দোয়া মাহফিলের আয়োজন করা হয়। বেলা ১১টায় বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আলোচনা সভা ও মিলাদ মাহফিলের আয়োজন করা হয়। বিভিন্ন ধর্মীয় সংগঠন রাজধানীতে ধর্মীয় শোভাযাত্রা বের করেছে।
মঙ্গলবার বাদ আসর ইসলামিক ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে বায়তুল মোকাররম সম্মেলন কেন্দ্রে মুহাম্মদ সা. -র জীবন ও কর্ম নিয়ে সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়েছে। বাদ মাগরিব বায়তুল মোকাররমের পূর্ব চত্বরে ওয়াজ মাহফিল ও মিলাদ মাহফিলের আয়োজন করা হয়। মর্যাদাপূর্ণ দিবসটি পালনে বাংলাদেশ শিশু একাডেমি নিজস্ব মিলনায়তনে মিলাদ ও দোয়া মাহফিলের আয়োজন করে।
এ ছাড়া পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী (সা.) উপলক্ষে ইসলামিক ফাউন্ডেশন পক্ষকালব্যাপী অনুষ্ঠানমালার আয়োজন করেছে। এসব অনুষ্ঠানের মধ্যে ওয়াজ মাহফিল, সেমিনার, ইসলামিক ক্যালিগ্রাফি ও মহানবী (সা.)-এর জীবনভিত্তিক পোস্টার ও গ্রন্থ প্রদর্শনী, ইসলামি বইমেলা, ইসলামি সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতা, কিরাত ও হামদ-নাত এবং রাসুল (সা.)-এর শানে স্বরচিত কবিতা পাঠের আসর রয়েছে।
পবিত্র ঈদে মিলাদুন্নবী (সা.) উপলক্ষে ১২ ডিসেম্বর থেকে ২৬ ডিসেম্বর পর্যন্ত প্রতিদিন বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদের পূর্ব চত্বরে ওয়াজ ও মিলাদ মাহফিল অনুষ্ঠিত হচ্ছে।
জাতীয় প্রেস ক্লাব প্রাঙ্গণে মঙ্গলবার অনুষ্ঠিত হয়েছে ‘কোটি কণ্ঠে মিলাদ শরীফ’ অনুষ্ঠান। অনুষ্ঠানটি ‘আন্তর্জাতিক সাইয়্যিদুল আইয়াদ শরীফ উদযাপন কমিটি’ নামক সংগঠনের উদ্যোগে আয়োজিত হয়। অনুষ্ঠানে হামদ, নাত, মিলাদ পাঠ করে ‘কোটি কণ্ঠে মিলাদ উদযাপন কমিটি’ নামে আরেকটি সংগঠন।
চট্টগ্রাম : মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ৯টার দিকে চট্টগ্রাম নগরীর জামেয়া আহমদিয়া সুন্নিয়া আলিয়া মাদরাসা থেকে শোভাযাত্রা বের হয়। এতে এ বছরও নেতৃত্ব দেন পাকিস্তান থেকে আসা আল্লামা হজরত তাহের শাহ। দেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে লোকজন এসে শোভাযাত্রায় অংশ নেন।
লাখো জনতার এ মিছিল নগর প্রদক্ষিণ করতে সময় নেয় প্রায় চার ঘণ্টা। দীর্ঘ এ জুলুসে পুরো নগর মুখর থাকে হামদ ও নাতে। মিয়ানমারসহ বিশ্বের বিভিন্ন স্থানে মুসলিম নির্যাতনের বিরুদ্ধে মুসলমানদের ঐক্যবদ্ধ ভূমিকা রাখাসহ সারা বিশ্বে এ জুলুস ছড়িয়ে দেয়ার কথা জানান তারা।
আনজুমানে রহমানিয়া আহমদিয়া সুন্নিয়া ট্রাস্ট প্রায় চার দশক ধরে আয়োজন করে আসছে ধর্মীয় এ শোভাযাত্রার। প্রতিবছর শৃঙ্খলার সঙ্গে এর কলেবর বৃদ্ধি পাচ্ছে বলে জানান আয়োজকরা।
জুলুসের এ শোভাযাত্রাটি নগরীর চকবাজার, আন্দরকিল্লা, জামাল খান হয়ে দুপুরে জামেয়া মাদরাসা ময়দায়ে গিয়ে শেষ হয়। সেখানে বিশেষ মোনাজাতের মাধ্যমে শেষ হয় দিনের কর্মসূচি।
সিলেট : দুপুরে নগরীর হজরত শাহজালাল (রহ.)-এর দরগাহ থেকে একটি শোভাযাত্রা বের করা হয়। শোভাযাত্রাটি নগরীর গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ করে। শোভাযাত্রাটির আয়োজন করে গাউছিয়া কমিটি বাংলাদেশ সিলেট জেলা শাখা। হাফেজ মিছবাহ উদ্দিন, কমিটির সাধারণ সম্পাদক মো. হুশিয়ার আলী, মাদরাসায়ে  তৈয়িবিয়া তাহিরিয়া হেলিমিয়া সুন্নিয়ার অধ্যক্ষ মাওলানা জালাল উদ্দিন আল কাদরী, ব্যবসায়ী  মকন মিয়াসহ গণ্যমান্য ব্যক্তিরা উপস্থিত ছিলেন।
মুন্সীগঞ্জ : সকাল সাড়ে ১০টার দিকে শহরের লিচুতলার পুরাতন ঈদগাহ মাঠ থেকে শোভাযাত্রা বের করে আহলে সুন্নাত ওয়াল জামায়াত জেলা শাখা। এটি শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে। এতে অংশ নেয় কয়েক হাজার মানুষ। এ সময় হামদ ও নাত পরিবেশন করা হয়।
 শোভাযাত্রা শেষে পুরাতন ঈদগাহ মাঠে এক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে প্রায় এক হাজার গরিবের মধ্যে শীতবস্ত্র বিতরণ করা হয়।
এ সময় প্রধান অতিথি ছিলেন মুন্সীগঞ্জ জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান  মোহাম্মদ মহিউদ্দিন। বিশেষ অতিথি ছিলেন তাঁর ছেলে মুন্সীগঞ্জ পৌরসভার মেয়র হাজি মো. ফয়সাল বিপ্লব। সভাপতিত্ব করেন আহলে সুন্নত আল জামায়াতের সভাপতি মাওলানা মনসুর আহম্মেদ।
এ ছাড়া জেলা শহরের সব মসজিদে বিশেষ দোয়া ও বিভিন্ন স্থানে ওয়াজ মাহফিলের আয়োজন করা হয়।
নেত্রকোনা : দুপুরে রেজভিয়া দরগাহ শরিফের উদ্যোগে শহরের মোক্তারপাড়া মাঠ থেকে শোভাযাত্রা বের হয়ে শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে। এতে কালেমাখচিত ব্যানার, ফেস্টুন ও প্ল্যাকার্ড নিয়ে জেলার বিভিন্ন স্থান থেকে সতরশ্রী রেজভিয়া দরগাহ শরিফের ভক্ত ছাড়াও সাধারণ মানুষ অংশ নেয়। এতে নাত পরিবেশন করা হয়।
এর আগে নেত্রকোনা সদর উপজেলার সতরশ্রী রেজভিয়া দরগাহ শরিফ প্রাঙ্গণ থেকে আন্তর্জাতিক রেজভিয়া উলামা পরিষদ ও রেজভিয়া তা’লিমুস সুন্নাহ ফাউন্ডেশনের সদস্যদের অংশগ্রহণে  গাড়িবহর জেলা শহরের মোক্তারপাড়া মাঠে এসে সমবেত হয়।
পরে ঈদে মিলাদুন্নবী (সা.) উপলক্ষে পীরে তরিকত আল্লামা নাজিরুল আমিন রেজভী পীরসাহেব আলোচনা করেন। শেষে সারা বিশ্বের মুসলমানদের শান্তির জন্য দোয়া কামনা করা হয়।

বাগেরহাট : বাগেরহাট-৪ আসনের সংসদ সদস্য ডা. মো. মোজাম্মেল হোসেনের নেতৃত্বে মঙ্গলবার বেলা সাড়ে ১১টায় একটি শোভাযাত্রা শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে। পরে ইসলামিক ফাউন্ডেশন মিলনায়তনে আলোচনা সভা হয়। বাগেরহাটের জেলা প্রশাসক তপন কুমার বিশ্বাসের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় বক্তব্য দেন বাগেরহাট-২ আসনের সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট মীর শওকাত আলী বাদশা, পুলিশ সুপার পংকজ চন্দ্র রায়, ইসলামিক ফাউন্ডেশনের উপপরিচালক মুহা. জাকির হোসাইন প্রমুখ। পরে সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতার বিজয়ীদের মধ্যে পুরস্কার বিতরণ করা হয়।
কুমিল্লা : বেলা ১১টায় শহরের টমছম ব্রিজ এলাকা কাদেরিয়া দরবার শরিফের উদ্যোগে জশনে জুলুসে ঈদে মিলাদুন্নবী উপলক্ষে শোভাযাত্রা বের হয়। এটি শহরের মনোহরপুর লাকসাম রোড, কান্দিরপাড়, রাজগঞ্জ ও মোগলটুলী হয়ে কুমিল্লা কেন্দ্রীয় ঈদগাহ মাঠে গিয়ে শেষ হয়।
এর আগে সোমবার সন্ধ্যায় কুমিল্লা কেন্দ্রীয় ঈদগাহ মাঠ থেকে একটি শোভাযাত্রা শুরু হয়ে শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে টাউন হল মাঠে এসে শেষ হয়। শোভাযাত্রায় প্রধান অতিথি ছিলেন কুমিল্ল সিটি করপোরেশনের মেয়র মনিরুল হক সাক্কু। বিশেষ অতিথি ছিলেন জেলা পরিষদের প্রশাসক  মো. ওমর ফারুক, কুমিল্লা কেন্দ্রীয় ঈদে মিলাদুন্নবী (সা.) উদযাপন কমিটির আহ্বায়ক খাদেম মো. ফিরোজ, কোষাধ্যক্ষ  শাহ মো. আলমগীর খানসহ বিভিন্ন সংগঠনের নেতারা উপস্থিত ছিলেন।
চাঁদপুর : সকালে চাঁদপুরের হাজীগঞ্জ উপজেলার ধেররা ইমামে রাব্বানী দরবার শরিফ থেকে জশনে জুলুসে ঈদে মিলাদুন্নবী (সা.) দরবার শরিফের পীর হজরতুল আল্লামা সৈয়দ জাহান শাহ মোজাদ্দেদী আল আবেদীর নেতৃত্বে বিশাল বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা বের হয়ে হাজীগঞ্জ বাজার সড়ক প্রদক্ষিণ করে একই স্থানে গিয়ে শেষ হয়।
গাজীপুর : মঙ্গলবার সকাল ১০টায় গাজীপুরের কোনাবাড়ীর আমবাগ চিশতিয়া দরবার শরিফের আয়োজনে আমবাগ থেকে শোভাযাত্রা বের হয়। এটি সিটি করপোরেশনের চৌরাস্তা হয়ে ঢাকা- টাঙ্গাইল মহাসড়কের বিভিন্ন এলাকা প্রদক্ষিণ শেষে আমবাগ চিশতীয় দরবার শরিফে এসে শেষ হয়। শোভাযাত্রায় নেতৃত্ব দেন পীরে কামেল শাহ সুফি হজরত মোহাম্মদ আলাউদ্দিন চিশতী (আলাল শাহ)।
বিভিন্ন স্লোগান সম্বলিত ব্যানার ফেস্টুন নিয়ে শত শত ধর্মপ্রাণ মানুষ জশনে জুলুস র‌্যালিতে অংশ নেন। এ সময় মিছিল থেকে নানা স্লোগান ও জিকির আসগার করা হয়।
কুষ্টিয়া : সোমবার রাতে শহরের বারো শরিফ দরবারে জিকির আসগার ও বিশেষ মোনাজাত অনুষ্ঠিত হয়। এতে শত শত ধর্মপ্রাণ মুসলমান অংশ নেন। এ ছাড়া শহরের অন্যান্য মসজিদেও মুসল্লিরা ইবাদত বন্দেগির মধ্য দিয়ে কাটান।
হবিগঞ্জ : শহরে সব দলের নেতাকর্মীসহ ধর্মপ্রাণ মুসলমানদের অংশগ্রহণে বিশাল জশনে জুলুস ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। প্রায় ১০ হাজার মানুষের এই মিছিলে জেলার প্রায় সব উপজেলা থেকে মুসল্লিরা এসে যোগ দেন।
হবিগঞ্জ মসজিদ সমন্বয় সুন্নি সংগ্রাম পরিষদ ও আহলে সুন্নাত ওয়াল জামায়াতের যৌথ উদ্যোগে আয়োজিত জশনে জুলুস শেষে শহরের নিমতলা প্রাঙ্গণে সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।  রইছ মিয়ার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সমাবেশে বক্তব্য দেন সংসদ সদস্য ও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট আবু জাহির, জেলা জাতীয়তাবাদী কৃষক দলের সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুর রহমান আউয়াল, জেলা জাতীয় পার্টির যুগ্ম আহ্বায়ক এম এ মুনিম চৌধুরী বুলবুল, সুন্নি সংগ্রাম পরিষদের সাধারণ সম্পাদক আবদুল জলিল, হবিগঞ্জ কেন্দ্রীয় ঈদগাহের খতিব মাওলানা গোলাম মোস্তফা নবীনগরী, চৌধুরী বাজার কেন্দ্রীয় জামে মসজিদের ইমাম আবদুল মজিদ পিরোজপুরী প্রমুখ।

নবীগঞ্জ : হবিগঞ্জের নবীগঞ্জ উপজেলার আউশকান্দি ইউনিয়নের দক্ষিণ দৌলতপুরের ৩৬০ আউলিয়া স্মৃতি পরিষদ পরিচালিত হজরত শাহ্জালাল লতিফিয়া  ক্যাডেট মাদরাসার উদ্যোগে ঈদে মিলাদুন্নবী (সা.) উপলক্ষে বিশাল বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রার আয়োজন করা হয়।
মঙ্গলবার দুপুরে শোভাযাত্রাটি মাদরাসা থেকে বের করে আউশকান্দি বাজারের বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে ঢাকা-সিলেট মহাসড়ক হয়ে আউশকান্দি শহীদ কিবরিয়া চত্বরে এক আলোচনা সভায় মিলিত হয়। মাদরাসা ব্যবস্থাপনা কমিটির সভাপতি আনছার মিয়া চৌধুরীর সভাপতিত্বে ও মাদরাসার শিক্ষক শিহাব উদ্দিনের পরিচালনায় এতে উপস্থিত ছিলেন মাদরাসার তত্ত্বাবধায়ক মাওলানা কুতুব উদ্দিন খান, ব্যবস্থাপনা কমিটির অর্থ সম্পাদক হাজি আবদুল কদ্দুছ, সদস্য আবদুল বাছিত, আহমদ মিয়া চৌধুরী, সাবেক ইউপি সদস্য মাসুক মিয়া, সাংবাদিক মো. ছাদিকুল ইসলাম, হুমাইয়ুন মিয়া, রুমান আহমদ, দুলাল আহমদ, হুসাইন আহমদ, ইমাদ উদ্দিন, হোসেন আলী, ইমরান আহমদ, আবু বক্কর, ওবাইদুল্লাহসহ ছাত্র-শিক্ষক ও এলাকার বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ শোভাযাত্রায় উপস্থিত ছিলেন। আলোচলা সভা শেষে বিশ্বের সব মুসলমানের শান্তি কমনা করে মোনাজাত করা হয়।
আশুগঞ্জ : বেলা সাড়ে ১১টায় ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জ উপজেলার চরচারতলা ইসলামিয়া আলিয়া মাদরাসা থেকে শোভাযাত্রা বের হয়। এটি আশুগঞ্জ শহরের বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে পুনরায় ওই মাদরাসা মাঠে গিয়ে শেষ হয়। পরে মাঠে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।
মাদরাসার অধ্যক্ষ মাওলানা কাজী মহিউদ্দিন মোল্লার সভাপতিত্বে বক্তব্য দেন আশুগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. আমিরুল কায়সার, আশুগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. সেলিম উদ্দিন, চরচারতলা ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান মো. জিয়াউদ্দিন খন্দকার, মাওলানা গোলাম মাওলা, মিজানুর রহমান, শামসুল আলম ফারুকী, জহিরুল ইসলাম, সাইদুর রহমান, আবু বকর সিদ্দিক ও শাহজালাল শরীফ, হাফেজ মো. আতাউর রহমান, মাওলানা ক্বারী জিয়াউর রহমান প্রমুখ।
ভালুকা : সকালে ময়মনসিংহের ভালুকা উপজেলার ধলিয়া গ্রামে খানকা শরিফে দুদিনব্যাপী নবী করিম (সা.)-এর ওপর আলোচনা, কোরআনখানি ও দেশের শান্তি কামনায় বিশেষ মোনাজাত করা হয়। দোয়া অনুষ্ঠানে হাজার হাজার ভক্ত ও আশেকান উপস্থিত ছিলেন। এ ছাড়া উপজেলার মসজিদ ও মাদরাসায় কোরআনখানি, মিলাদ ও বিশেষ দোয়া মাহফিলের আয়োজন করা হয়। অনুষ্ঠানের সার্বিক পরিচালনায় ছিলেন খাদেম মোছলেহ উদ্দিন খান।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ