ঢাকা, বৃহস্পতিবার 15 December 2016 ১ পৌষ ১৪২৩, ১৪ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

আড়ংঘাটা থানা নানা সমস্যায়

খুলনা অফিস: থানা আছে, কাজ আছে, আছে জনবলও। শুধু নেই নিজস্ব কার্যালয়।
কয়েক মাসের জন্য অস্থায়ীভাবে থানার কার্যক্রম শুরু হলেও ৩ বছর পরও নিজস্ব কোন ভবন পাওয়া যায়নি।
ফলে নানা সমস্যার মধ্যেই কর্মকা- চালাতে হচ্ছে এখানকার পুলিশ সদস্যদের।
সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, স্থানীয় আইন-শৃঙ্খলা রক্ষা এবং বাসিন্দাদের নিরাপত্তার গুরুত্ব অনুধাবন করে ২০১৩ সালের ৫ অক্টোবর তৎকালীন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মহিউদ্দিন খান অলমগীর আড়ংঘাটা ইউপি, যোগীপুল ইউপি (আংশিক), রংপুর ইউপি (আংশিক), গুটুদিয়া ইউপি (আংশিক) এবং সিটি করপোরেশন (আংশিক) নিয়ে আড়ংঘাটা থানার উদ্বোধন করেন। কিন্তু এ থানার নিজস্ব জমি ও ভবন না থাকায়, আড়ংঘাটা ইউনিয়ন পরিষদ ও অনির্বাণ ক্লাবের ভবন নিয়ে শুরু হয় আড়ংঘাটা থানা।
সে অবস্থায় এ থানার কার্যক্রম চলছে আজও।
সূত্র জানান, আড়ংঘাটা থানা এলাকায় লক্ষাধিক মানুষ বসবাস করে।
থানার গুরুত্ব বাড়ায় এখানে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে ৬ জন এসআই, ৬ জন এএসআই, ৬ জন মহিলা পুলিশ সদস্য (কনস্টেবল) এবং ১৮ জন পুরুষ সদস্য।
একতলা ভবনের ছাদে টিনের ছাউনি দিয়ে তৈরি করা হয়েছে পুলিশ ব্যারাক। রোদ, বৃষ্টি আর শীত এ ব্যারাকে থাকা পুলিশের নিত্যসঙ্গী। বৃষ্টির পানি পড়ে ভিজে নষ্ট হয় পুলিশের পোশাক-পরিচ্ছদসহ প্রয়োজনীয় কাগজপত্র।
ব্যারাকে জায়গা স্বল্পতা থাকায় গাদাগাদি করে থাকতে হয় পুলিশ সদস্যদের। অনেকে আবার বাড়ি ভাড়া করে থাকেন।
এছাড়া খাওয়া ও গোসলের জন্য রয়েছে নানা বিড়ম্বনা। বিশেষ করে নারী পুলিশ সদস্যদের পড়তে হয় নানা সমস্যায়।
তাছাড়া নেই পুরুষ ও মহিলাদের জন্য আলাদা গারদখানা, একই টয়লেট ব্যবহার করে পুলিশ ও আসামিরা। পর্যাপ্ত জনবল থাকার পরও সুযোগ-সুবিধা না থাকার কারণে পুলিশ, আসামি ও থানায় আসা সাধারণ মানুষকে পড়তে হচ্ছে নানা বিড়ম্বনায়।
আড়ংঘাটা থানার ওসি মো. নাসিম খান জানান, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের আওতায় এ থানার কোন নিজস্ব কার্যালয় বা পুলিশ ব্যারাক নেই। যে কারণে তিনি নিজেই ভাড়া বাড়িতে থাকেন।
থানার অন্যান্য আফিসাররাও বিভিন্ন স্থানে ভাড়া বাড়িতে থাকেন। ফলে থানার স্বাভাবিক কার্যক্রম কিছুটা হলেও বাধাগ্রস্থ হচ্ছে।
তিনি বলেন, আড়ংঘাটা বাইপাস সড়কের পাশে জমি নির্বাচন করা হলেও ওই জমিতে থানা ভবন নির্মাণ করা হয়নি।
থানা ভবন নির্মাণের জন্য কোন সরকারি অর্থও বরাদ্দ পাওয়া যায়নি বলেও জানান তিনি।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ