ঢাকা, বৃহস্পতিবার 15 December 2016 ১ পৌষ ১৪২৩, ১৪ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

দেশে গণতন্ত্র পুনঃপ্রতিষ্ঠার মাধ্যমেই শহীদ বুদ্ধিজীবীদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে হবে

স্টাফ রিপোর্টার : শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবস উপলক্ষে বিএফইউজে-ডিউজে’র আলোচনা সভায় সাংবাদিক নেতারা বলেছেন, ১৯৭১ সালে বুদ্ধিজীবীরা যে আত্মত্যাগ করেছেন, দেশে গণতন্ত্র, মৌলিক ও মানবাধিকার এবং ন্যায়বিচার প্রতিষ্ঠার মাধ্যমেই প্রকৃত শ্রদ্ধা জানাতে হবে। তারা বলেন, স্বাধীনতার ৪৫ বছর পরেও বুদ্ধিজীবীদের হত্যা অব্যাহত আছে। স্বাধীন বাংলাদেশে আজও সাংবাদিকদের হত্যা এবং রিমান্ডে নিয়ে নির্যাতন করা হচ্ছে। বাংলাদেশে গণতন্ত্র ও ন্যায়বিচার প্রতিষ্ঠার মধ্য দিয়ে বুদ্ধিজীবীদের স্বপ্ন বাস্তবায়ন করতে হবে।
গতকাল বুধবার জাতীয় প্রেস ক্লাবে ইউনিয়ন অফিসে শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবসের আলোচনায় সাংবাদিক নেতারা এসব কথা বলেন। 
ডিইউজে’র সহ-সভাপতি সৈয়দ আলী আসফার-এর সভাপতিত্বে ও বিএফইউজে’র সাংগঠনিক সম্পাদক মোঃ শহিদুল ইসলামের সঞ্চালনায় আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ সম্মিলিত পেশাজীবী পরিষদের ভারপ্রাপ্ত আহ্বায়ক ও বিএফইউজে’র সাবেক সভাপতি রুহুল আমিন গাজী।
অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন বিএফইউজে’র মহাসচিব এম আব্দুল্লাহ্, সাবেক মহাসচিব এমএ আজিজ, ডিউজের সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলম প্রধান, জাতীয় প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আবদাল আহমদ, বিএফইউজে’র সহকারী মহাসচিব মোদাব্বের হোসেন, সাবেক সহ-সভাপতি নূরুল আমিন রোকন, সিনিয়র সাংবাদিক শেখ রকিব উদ্দিন, বাসস’র ইউনিট প্রধান আবুল কালাম মানিক, বিএফইউজে’র প্রচার সম্পাদক জাকির হোসেন, ডিইউজে’র সাবেক জনকল্যাণ সম্পাদক আব্দুস সেলিম, আমার দেশ ইউনিট প্রধান বাছির জামাল, ডিইউজের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুল্লাহ ফেরদৌস, ডিইউজে’র নির্বাহী সদস্য সাখাওয়াত হোসেন মুকুল, জসিম মেহেদী, ডিইউজে’র সদস্য সাখাওয়াত ইবনে মঈন চৌধুরী, এইচ এম আল-আমিন। উপস্থিত ছিলেন জাতীয় প্রেস ক্লাবের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক কাদের গণি চৌধুরী, ডিউজে’র সাবেক জনকল্যাণ সম্পাদক সাখাওয়াত হোসেন খান।
প্রধান অতিথির বক্তব্যে রুহুল আমিন গাজী বলেন, বাংলাদেশে গণতন্ত্র, ন্যায়বিচার, মৌলিক অধিকার প্রতিষ্ঠার মধ্য দিয়েই বুদ্ধিজীবীদের স্বপ্ন বাস্তবায়ন করতে হবে এবং এটাই হোক আজকের দিনের অঙ্গীকার।
এম আব্দুল্লাহ্ বলেন, স্বাধীনতার ৪৫ বছর পরেও কারা বুদ্ধিজীবী হত্যায় জড়িত আজও জাতি তা জানতে পারেনি। বাংলাদেশে আজও বুদ্ধিজীবী হত্যা থেমে নেই। নানা কৌশলে বুদ্ধিজীবীদের হত্যা, নির্যাতন চলছে।
এম এ আজিজ বলেন, বুদ্ধিজীবী হত্যা ও স্বাধীনতাযুদ্ধে নিহতদের সঠিক তথ্য কোন সরকারই দিতে পারেনি এসব বিষয়ে জনগণের যথেষ্ট প্রশ্ন রয়েছে।
জাহাঙ্গীর আলম প্রধান বুদ্ধিজীবী হত্যার তদন্তে বিচার বিভাগীয় তদন্ত কমিটি গঠন করে পুনরায় তদন্ত শুরু করার দাবি জানান। বুদ্ধিজীবী হত্যা আজও অব্যাহত আছে সাগর-রুনীসহ ২৭জন সাংবাদিক নিহত হয়েছেন একটিরও বিচার আজ পর্যন্ত আমরা পাইনি।
সৈয়দ আবদাল আহমদ বলেন, বুদ্ধিজীবী হত্যা কা-টি ছিল বিজয়ের পূর্বমুহূর্তে পরিকল্পিত ও ষড়যন্ত্রমূলক।
বক্তারা বলেন, আজকে দেশে গণতন্ত্র ও আইনের শাসন বলতে কিছু নেই, দেশে গণতন্ত্রের কোন চর্চা হচ্ছে না। বুদ্ধিজীবী হত্যা আজও রহস্যময় রয়ে গেছে। এই হত্যাকা- ছিল পূর্ব পরিকল্পিত ও ষড়যন্ত্রমূলক।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ