ঢাকা, বৃহস্পতিবার 15 December 2016 ১ পৌষ ১৪২৩, ১৪ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

সিলেটের রাগীব আলীর বিরুদ্ধে জালিয়াতি মামলায় সাক্ষ্যগ্রহণ শেষ

সিলেট ব্যুরো : সিলেটের তারাপুর চা বাগান দখলে ভূমি মন্ত্রণালয়ের স্মারক জালিয়াতি মামলায় শিল্পপতি ও দৈনিক সিলেটের ডাক এর সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতি ড. রাগীব আলী এবং তার ছেলে আবদুল হাইয়ের বিরুদ্ধে গতকাল বুধবার দুপুরে সাক্ষ্যগ্রহণ সম্পন্ন হয়েছে। সিলেট মুখ্য মহানগর হাকিম সাইফুজ্জামান হিরোর আদালতে এ সাক্ষ্যগ্রহণ শেষ হয়।
আদালতের এপিপি মাহফুজুর রহমান জানান, জালিয়াতি মামলায় ১৪ জন সাক্ষী ছিলেন। তন্মধ্যে ১২ জনের সাক্ষ্য আগেই গ্রহণ করা হয়েছিল। গতকাল আরো দুজনের সাক্ষ্যগ্রহণ করা হয়। মামলার পরবর্তী তারিখ এখনো নির্ধারণ করা হয়নি বলে জানিয়েছেন তিনি।
এর আগে, গত ৪ ডিসেম্বর আসামীদের আবেদনের প্রেক্ষিতে জালিয়াতি মামলায় পুনরায় সাক্ষ্যগ্রহণ শুরু হয়। একইদিন প্রতারণার মাধ্যমে দেবোত্তর সম্পত্তিতে অবৈধ স্থাপনা নির্মাণের মাধ্যমে হাজার কোটি টাকা আত্মসাৎ মামলায় ছয় আসামীদের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করা হয়।
উল্লেখ্য, প্রতারণার মাধ্যমে সিলেটের তারাপুর চা বাগানের দেবোত্তর সম্পত্তিতে অবৈধ স্থাপনা নির্মাণের মাধ্যমে হাজার কোটি টাকার ভূমি আত্মসাৎ এবং ভূমি মন্ত্রণালয়ের স্মারক জালিয়াতির আলোচিত দুটি মামলায় রাগীব আলী ও তার ছেলে- মেয়েসহ ৬ জনের বিরুদ্ধে গত ১০ আগস্ট গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন আদালত। স্মারক জালিয়াতির মামলায় রাগীব আলী ও তার ছেলে আবদুল হাইয়ের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করা হয়। প্রতারণার মামলায় রাগীব আলী, তার ছেলে আবদুল হাই, জামাতা আবদুল কাদির, মেয়ে রুজিনা কাদির, রাগীব আলীর আত্মীয় মৌলভীবাজারের দেওয়ান মোস্তাক মজিদ, তারাপুর চা বাগানের সেবায়েত পংকজ কুমার গুপ্তের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করা হয়। পরোয়ানা জারির পরপরই ছেলেকে নিয়ে ভারতে পালিয়ে যান রাগীব আলী। পরে আবদুল হাই সীমান্তে গ্রেফতার হন। রাগীব আলী ভারতে গ্রেফতার হয়ে দেশে আসার পর বর্তমানে সিলেট কেন্দ্রীয় কারাগারে কারাবরণ করছেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ