ঢাকা, শুক্রবার 16 December 2016 ২ পৌষ ১৪২৩, ১৫ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

দেশের কথা ॥ মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নন

ইসলামী ব্যাংক চাই
খুলনা জেলার দক্ষিণে সর্ববৃহৎ বাণিজ্যিক এলাকা মহাকবি মাইকেল মধুসূদন দত্তের কপোতাক্ষের কোল ঘেঁষে গড়ে ওঠা কয়রা উপজেলাটি বঙ্গোপসাগর ও সুন্দরবনের মিলনমেলায় অবস্থিত। যে কারণে মৎস্য রফতানিতে শীর্ষে থাকা এ উপজেলার সাথে সড়ক ও নদীপথে সরাসরি খুলনা ও ঢাকার সাথে যোগাযোগ থাকার কারণে এর ব্যবসায়িক গুরুত্ব অপরিসীম। সাতক্ষীরা জেলার দক্ষিণ ও খুলনা জেলার দক্ষিণ এই দুই জেলার সমন্বয়ে গড়ে ওঠা ঐতিহ্যবাহী বাণিজ্যকেন্দ্র। উপজেলা সদর এ বাণিজ্যকেন্দ্র থেকে প্রতিদিন সরাসরি রাজধানী ঢাকা ও খুলনার সাথে যোগাযোগ রক্ষায় যাত্রীবাহী কোচ ও পণ্যবাহী পরিবহন চলাচল করছে। নদীপথেও খুলনা, মংলা ও সুন্দরবনের সাথে সরাসরি নৌকা, ট্রলার, কার্গো, লঞ্চ, স্টীমার চলাচল করে থাকে। সে হিসাবে উপজেলাটি নদীবন্দরের ভূমিকা পালন করে চলেছে। ঐতিহ্যবাহী এই উপ-শহরটিতে অসংখ্য বৃহৎ ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠানসহ প্রায় কয়েক হাজার স্থায়ী দোকান রয়েছে। এখানে অনেকগুলো অটোরাইস মিলসহ অসংখ্য স’মিল রয়েছে। তাছাড়া এ উপজেলার চারপারশে বেশকিছু বড় বড় বাজার রয়েছে। রয়েছে হাসপাতাল, ক্লিনিক, সরকারি-বেসরকারি কলেজ, হাইস্কুল, কামিল মাদ্রাসা, মসজিদ, এনজিও, বীমা প্রতিষ্ঠান, ব্যবসায়ীদের সংগঠন, বণিক সমিতি অনেক সামাজিক ও ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান।
এখানে উল্লেখযোগ্যসংখ্যক লোক চাকরি ও ব্যবসায়িক সূত্রে ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে ও বিদেশে অবস্থান করছেন। বৃহত্তর এই বাণিজ্যিক কেন্দ্র তথা এই উপজেলায় একটি সোনালী ব্যাংক, একটি কৃষি ব্যাংকসহ একটি গ্রামীণ ব্যাংকের শাখা আছে যা অত্র এলাকার জনগণের লেনদেনের চাহিদা মেটাতে মোটেও সক্ষম নয়। তাই এলাকার ধর্মপ্রাণ মানুষ ও ব্যবসায়ীদের কাছে ইসলামী ব্যাংকের একটি শাখা অত্যন্ত প্রয়োজন ও সময়ের দাবি। এ ব্যাপারে কার্যক্রম গ্রহণের জন্য সংশ্লিষ্ট ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি।
-হুমায়ুন কবীর, প্রধান শিক্ষক, বড়বাড়ি মাধ্যমিক বিদ্যালয়, কয়রা, খুলনা।

নরসিংদী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়
মানবজাতির সার্বিক উৎকর্ষ ও সমৃদ্ধি অর্জনে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির ভূমিকা অপরিহার্য। আমাদের দেশের মত পশ্চাৎপদ ও উন্নয়নশীল দেশের আর্থ-সামাজিক অবস্থার উন্নয়নে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির কোনো বিকল্প নেই। একটি দেশের সর্বোচ্চ বিদ্যাপীঠ হলো বিশ্ববিদ্যালয়। বিশ্ববিদ্যালয় শব্দটি ল্যাটিন শব্দ ‘ইউনিভারসিতাস’ থেকে নেয়া। একবিংশ শতাব্দীতে এসে বিশ্ববিদ্যালয় শব্দটির সাথে পরিচয় করিয়ে দেয়া নিষ্প্রয়োজন। ১১৪১ বর্গকিলোমিটারের জনবহুল নরসিংদী জেলার সাক্ষরতার হার ৬৫%, জনসংখ্যা ২২ লাখ ২৪ হাজার ৯৪৪ জন (২০১১ সালের আদমশুমারি অনুসারে)। যেখানে জীবন নানা সমস্যার আবর্তে ঘুরপাক খাচ্ছে, যেখানে বিপুল জনসংখ্যা অশিক্ষা ও অন্ধ সংস্কারের আবর্তে বন্দি, সেখানে বিজ্ঞানমনস্কতা ও বিজ্ঞান চর্চা অনেক দরকার। নরসিংদী জেলায় অসংখ্য স্কুল-কলেজ থাকলেও কোনো বিশ্ববিদ্যালয় নেই। যার ফলে অনেক শিক্ষার্থী উচ্চশিক্ষা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। অনেক অভিভাবক তাদের সন্তানদেরকে বিশেষ করে মেয়েদেরকে উচ্চশিক্ষার জন্য দূরে পাঠাচ্ছেন না, যার ফলে উচ্চশিক্ষা অর্জন করতে পারছে না অনেকেই। নরসিংদী জেলাতে উন্নত পরিবেশে, স্বল্পমূল্যে পর্যাপ্ত জমির ব্যবস্থা রয়েছে। একবিংশ শতাব্দীতে বহুমুখী চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি নির্ভর শিক্ষার প্রয়োজনীয়তা অপরিহার্য। আর তাই নরসিংদীবাসীর প্রাণের দাবি নরসিংদীতে একটি আন্তর্জাতিকমানের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠিত হোক, যাতে এখানকার শিক্ষার্থীরা বিজ্ঞান ও বাস্তবভিত্তিক শিক্ষায় শিক্ষিত হয়ে দেশ ও জাতির সেবায় অবদান রাখতে পারে।
মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, শিক্ষামন্ত্রী ও নরসিংদী জেলা থেকে নির্বাচিত সংসদ সদস্যদের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি।
-মো. রোমান মিঞা, গ্রাম-উয়ারী, ইউনিয়ন-আমলাব, থানা-বেলাব, জেলা-নরসিংদী।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ