ঢাকা, শনিবার 17 December 2016 ৩ পৌষ ১৪২৩, ১৬ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

বিভিন্নস্থানে মহান বিজয় দিবস পালিত

ইবি সংবাদদাতা : ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ে মহান বিজয় দিবস পালিত হয়েছে। দিবসটি উদ্যাপন উপলক্ষে নানা কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়। গতকাল শুক্রবার সকাল ৯ টায় প্রশাসন ভবন চত্বরে গার্ড অব অনারসহ জাতীয় পতাকা ও বিশ্ববিদ্যালয় পতাকা উত্তোলন করা হয়। পরে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন ভবন চত্বর থেকে  বিজয় শোভাযাত্রা বের হয়। শোভা যাত্রাটি ‘মুক্তবাংলা’য় গিয়ে পুষ্পস্তবক অর্পণ করে। এসময় বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনসহ শিক্ষক,কর্মকর্তা-কর্মচারী, বিভিন্ন সামাজিক, রাজনৈতিক, সাংস্কৃতিক সংগঠন পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন। পুষ্পস্তবক অর্পণ শেষে শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে ১ মিনিট নিরবতা পালন এবং দোয়া ও মোনাজাত অনুষ্ঠিত হয়।
এছাড়াও সকাল সাড়ে ১০টায় বিশ্ববিদ্যালয় খেলার মাঠে প্রীতি ভলিবল প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়। প্রতিযোগিতায় শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা অংশ গ্রহণ করেন। বেলা সাড়ে ১১টায় ভিসি প্রফেসর ড. মোঃ হারুন-উর-রশিদ আসকারী বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারে মহান মুক্তিযুদ্ধের স্মারক ‘মুক্তিযুদ্ধ কর্ণার’-এর আনুষ্ঠানিক শুভ উদ্বোধন করেন।
এছাড়াও প্রত্যেক আবাসিক হলে স্ব স্ব প্রভোস্টগণ উন্নত খাবারের ব্যবস্থা করেন।
ব্রাহ্মণবাড়িয়া  সংবাদদাতা : বিপুল উৎসাহ উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ৪৫ তম বিজয় দিবস পালিত হয়েছে।। সূর্যোদয়ের সাথে সাথে ৩১ বার তোপধ্বনির মধ্য দিয়ে দিনের সূচনা করা হয়। ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৩ আসনের সংসদ সদস্য র আ ম উবায়দুল মোকতাদির চৌধুরী, জেলা প্রশাসক রেজওয়ানুর রহমান ও পুলিশ সুপার মো. মিজানুর রহমান শহরের ফারুকী পার্কের স্মৃতি সৌধে শহীদদের স্মরণে পুস্পস্তবক অর্পণ করেন। জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ, প্রেসক্লাবসহ সকল রাজনৈতিক সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ স্মৃতিসৌধে পুস্পস্তবক অর্পণ করেন। পরে জেলা প্রশাসক কর্তৃক জাতীয় পতাকা উত্তোলনের মধ্য দিয়ে স্থানীয় নিয়াজ মোহাম্মদ স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত হয় বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের অংশগ্রহণে কুঁচকাওয়াজ। দিনব্যাপী কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে শরীর চর্চা, মুক্তিযোদ্ধা সংবর্ধনা, আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান।
নীলফামারী সংবাদদাতা : নানা কর্মসূচির মধ্য দিয়ে নীলফামারীতে পালিত হয়েছে মহান বিজয় দিবস। দিবসের শুরুতে রাত ১২টা ১ মিনিটে তোপধ্বনির মাধ্যমে শুরু হয় বিজয় দিবসের আনুষ্ঠানিকতা। এরপর স্থানীয় স্বাধীনতা স্মৃতি অম্লানে জেলা প্রশাসন, পুলিশ সুপার, মুক্তিযোদ্ধা সংসদসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক ও পেশাজীবী সংগঠনের পক্ষ থেকে ফুল দিয়ে শহীদদের শ্রদ্ধা জানানো হয়। সকালে জেলা স্টেডিয়ামে কুচকাওয়াচ পরিদর্শন করেন জেলা প্রশাসক মোঃ জাকীর হোসেন।
রাণীনগর (নওগাঁ) সংবাদদাতা : যথাযোগ্য মর্যাদায় সারা দেশের মত বিপুল উৎসাহ উদ্দীপনা ও উল্লাস মুখর পরিবেশে নওগাঁর রাণীনগরে নানা কর্মসূচির মধ্য দিয়ে মহান বিজয় দিবস পালিত হয়েছে।
রাণীনগর উপজেলা প্রশাসনের আয়োজনে রাত ১২.০১ মিনিটে ৩১বার তোপধ্বনির মধ্যে দিয়ে দিবসের নানা কর্মসূচি শুরু হয়। কর্মসূচির মধ্যে ছিল সূর্য উদয়ের সাথে সাথে সকল সরকারি ও বেসরকারি ভবনে জাতীয় পতাকা উত্তোলন, সকাল ৯টায় আনুষ্ঠানিকভাবে জাতীয় পতাকা উত্তোলন এবং বিভিন্ন সংগঠনের সমাবেশ ও কুচকাওয়াজ। পরে রাণীনগর মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার এডভোকেট মো: ইসমাইল হোসেনের সভাপতিত্বে বীর মুক্তিযোদ্ধা, যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধা ও শহীদ মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের সদস্যদের সম্বর্ধনা প্রদান অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন, নওগাঁ-৬ (রাণীনগর-আত্রাই) আসনের সংসদ সদস্য মো. ইসরাফিল আলম এমপি।
হোসেনপুর (কিশোরগঞ্জ) সংবাদদাতা : হোসেনপুর উপজেলার উদ্যোগে নানা আয়োজনের মধ্যদিয়ে গতকাল শুক্রবার যথাযোগ্য মর্যাদায় ৪৫তম মহান বিজয় দিবস উদযাপিত হয়েছে। সকালে উপজেলা কুড়িঘাট স্মৃতিসৌধ ও বধ্যভূমিতে উপজেলা প্রশাসন, হোসেনপুর পৌরসভা, আওয়ামী লীগ, মুক্তিযোদ্ধা সংসদ বিএনপি, হোসেনপুর প্রেস ক্লাব, ছাত্রলীগ, ছাত্রদল, বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও রাজনৈতিক দলের অঙ্গ সংগঠনের নেতৃবৃন্দ পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন। বিজয় র‌্যালি শেষে উপজেলা পরিষদ মাঠে আনুষ্ঠানিকভাবে জাতীয় পতকা উওোলন করেন উপজেলা ভারপাপ্ত চেয়ারম্যান মোছা: সেলিনা সারোয়ার। স্বাগতম বক্তব্য রাখেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো: আব্দুল্লাহ আল মামুন। এ সময় সাথে ছিলেন, ওসি মো: নান্নু মোল্লা , বীর মুক্তিযোদ্ধা এম সালাম। পরে ছাত্র ছাত্রীদের কুচকাওয়াজ ডিসপ্লে প্রদর্শন ও মুক্তিযোদ্ধাদের  সংবর্ধনা শেষে বিজয়ীদের মধ্যে পুরস্কার প্রদান করা হয়। অন্য দিকে উপজেলার জিনারী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ , বি এন পি, শ্রমিক লীগ ,কৃষক লীগ ছাত্রলীগ, ছাত্রদল, নেতৃবৃন্দ হাজিপুর বাজার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় শহিদ মিনারে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন।
মাদারীপুর সংবাদদাতা : শহীদ স্মৃতিস্তম্ভে শ্রদ্ধাঞ্জলিসহ নানা আয়োজনের মধ্য দিয়ে মাদারীপুরে ৪৫তম উদযাপিত হয়েছে মহান বিজয় দিবস। শুক্রবার ৬টা  ১ মিনিটে পুলিস লাইনে ৩১ বার তোপধ্বনীর মাধ্যমে কর্মসূচির সূচনা হয়। এর পর থেকে সরকারি নাজিউদ্দিন কলেজের অঙ্গনে শহীদস্মৃতিস্তম্ভে  শ্রদ্ধা জানাতে আসে রাজনৈতিক, সামাজিক সংগঠন ও স্কুল কলেজের শিক্ষার্থীরা। সকাল ১০টায় আচমত আলীখান স্টেডিয়ামে কুচকাওয়াজ ও ডিসপ্লে প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়। সেখানে  মাদারীপুর জেলা প্রশাসক মোঃ কামাল উদ্দিন বিশ্বাস  প্রধান অতিথি ও পুলিশ সুপার মোঃ সরোয়ার হোসেন বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন। সকাল ১১টায় মুক্তিযোদ্ধা সংসদে শহীদ মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের সদস্যদের সাথে জেলা প্রশাসক সৌজন্য সাক্ষাতে মিলিত হন। মুক্তিযোদ্ধা মিলনায়তনে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক  আলোচনা সভা  অনুষ্ঠিত হয়।
মেহেরপুর সংবাদদাতা : নানা কর্মসূচির মধ্য দিয়ে মেহেরপুর, মুজিবনগর ও গাংনীতে পালিত হচ্ছে মহান বিজয় দিবস। গতকাল শুক্রবার সূর্যোদয়ের সাথে সাথে ৩১ বার তপোধ্বনির মাধ্যমে কর্মসূচির সূচনা করা হয়। সকাল ৬টা ৩০ মিনিটে কলেজ মোড়ে অবস্থিত স্মৃতিসৌধে জেলা পরিষদ চত্বরে অবস্থিত স্মৃতিসৌধে জাতীর শ্রেষ্ঠ সন্তানদের স্মরণে পুষ্পার্ঘ অর্পণ করেন জেলা প্রশাসক পরিমল সিংহ। পরে পুলিশ সুপার আনিছুর রহমান সহ আওয়ামী লীগ, বিএনপি, বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক, সাংস্কৃতিক সংগঠনসহ জেলার সরকারি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে শহীদ বেদিতে পুষ্পার্ঘ অর্পণ করা হয়। পরে শহীদদের আত্মার মাগফেরাত কামনা করে দোয়া করা হয়। 
নেত্রকোনা সংবাদদাতা : শহীদ মুক্তিযোদ্ধাদের প্রতি বিন¤্র শ্রদ্ধা আর রাজাকার ও জঙ্গিবাদ মুক্ত অসাম্প্রদায়িক সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়ার দীপ্ত অঙ্গীকারের মধ্য দিয়ে গতকাল শুক্রবার নেত্রকোনায় মহান বিজয় দিবস পালিত হয়েছে।
প্রত্যুষে ৩১বার তোপধ্বনির মধ্য দিয়ে বিজয় দিবসের কর্মসূচি শুরু হয়। সূর্যোদয়ের সাথে সাথে জেলা প্রশাসক ড. মো. মুশফিকুর রহমানের নেতৃত্বে জেলা প্রশাসন, পুলিশ সুপার জয়দেব চৌধুরীর নেতৃত্বে পুলিশ প্রশাসন, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সাবেক সংসদ সদস্য আশরাফ আলী খান খসরুর নেতৃত্বে জেলা আওয়ামী লীগ, জেলা বিএনপির সভাপতি সাবেক সংসদ সদস্য আশরাফ উদ্দিন খান ও সাধারণ সম্পাদক ড্যাব নেতা ডা. আনোয়ারুল হকের নেতৃত্বে জেলা বিএনপি, জেলা কমান্ডার নূরুল আমিন ও সদর উপজেলা কমান্ডার আইয়ুব আলীর নেতৃত্বে মুক্তিযোদ্ধা সংসদ, পৌর মেয়র আলহাজ্ব নজরুল ইসলাম খানের নেতৃত্বে পৌর পরিষদ, মোস্তারী কাদেরীর নেতৃত্বে সদর উপজেলা প্রশাসনসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক সাংস্কৃতিক সংগঠনের নেতৃবৃন্দ শহীদ মুক্তিযোদ্ধাদের স্মৃতিসৌধে পুষ্পস্তবক অর্পণ করে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। এছাড়াও বিজয় দিবস উপলক্ষে শহীদ মুক্তিযোদ্ধাদের বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনা করে মসজিদ, মন্দির, গীর্জা প্যাগোডায় বিশেষ মোনাজাত/প্রার্থনা, মুক্তিযোদ্ধাদের সংবর্ধনা, আলোচনা সভা, খেলাধুলা, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, মুক্তিযুদ্ধ ভিত্তিক চলচ্চিত্র প্রদর্শিন ও বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি ভবনে আলোকসজ্জা করা হয়।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ