ঢাকা, বুধবার 21 December 2016 ০৭ পৌষ ১৪২৩, ২০ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

বিদ্যুৎ ও অবকাঠামোর ৬ প্রকল্পে শংকা এনবিআর’কে জাপানি রাষ্ট্রদূতের চিঠি

স্টাফ রিপোর্টার : কর সংক্রান্ত জটিলতায় ঝুলে যাচ্ছে মাতারবাড়ি কয়লা বিদ্যুৎ কেন্দ্র, দ্বিতীয় কাচঁপুর, মেঘনা ও গোমতি সেতুসহ জাপানী সহায়তার ৬ প্রকল্প। দ্রুত এ জটিলতা কাটাতে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড, এনবিআর চেয়ারম্যানকে চিঠি দিয়েছেন বাংলাদেশে নিযুক্ত জাপানী রাষ্ট্রদূত।

বিশ্লেষকরা বলছেন, দীর্ঘদিনের উন্নয়ন সহযোগীদের এমন হয়রানি করলে এর নেতিবাচক প্রভাব পড়বে বিদেশী বিনিয়োগের ওপর। আর এনবিআর চেয়ারম্যানের আশ্বাস এ সমস্যার দ্রুত সমাধান হবে।

মাতারবাড়ি কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎ প্রকল্প বাস্তবায়নে কাজ করবে জাপানী প্রতিষ্ঠান পেন্টা ওসান কন্সট্রাকশন কোম্পানি। প্রকল্পটি করমুক্ত সুবিধার আওতায় থাকার কথা থাকলেও এখন পর্যন্ত কর বিভাগের পক্ষ থেকে দেয়া হয়নি কর অব্যাহতিপত্র।

অর্থনীতির রক্তপ্রবাহ হিসেবে পরিচিত ঢাকা-চট্টগ্রাম মহসড়কের দ্বিতীয় কাঁচপুর, মেঘনা এবং গোমতি সেতু প্রকল্পও বাস্তবায়ন হচ্ছে জাপানী অফিসিয়াল ডেভেলপমেন্ট এসিসটেন্স-ওডিএ ঋণের আওতায়। এসব প্রকল্প বিলম্বিত হচ্ছে কর সংক্রান্ত জটিলতায়।

এরকম আরো ৪টিসহ মোট ৬টি প্রকল্পের কর সংক্রান্ত জটিলতা দ্রুত নিরসন করার অনুরোধ জানিয়ে এনবিআর চেয়ারম্যানকে চিঠি দিয়েছেন বাংলাদেশে নিযুক্ত জাপানী রাষ্ট্রদূত। ওই চিঠিতে তিনি জানান, ভেড়ামারা কম্বাইন্ড সাইকেল পাওয়ার প্ল্যান্ট ডেভেলপমেন্ট প্রজেক্ট, নিউ হরিপুর পাওয়ার প্ল্যান্ট ডেভেলপমেন্ট প্রজেক্ট, ঢাকা ম্যাস রেপিড ট্রানজিট ডেভেলপমেন্ট প্রজেক্ট এবং কর্নফুলি ওয়াটার সাপ্লাই প্রজেক্ট ফেজ-টু প্রকল্প কর সংক্রান্ত জটিলতায় ভুগছে।

জাপানের মতো দীর্ঘদিনের উন্নয়ন সহযোগীদের এমন হয়রানি কোনভাবেই গ্রহণযোগ্য নয় বলে মনে করেন পিআরআই নির্বাহী পরিচালক ড. আহসান এইচ মনসুর। তিনি আরও বলেন, বিদেশী বিনিয়োগকারীদের আস্থা পেতে হলে ওয়ান স্টপ সার্ভিসের বিকল্প নেই। বড় বিনিয়োগকারী দেশগুলোকে প্রয়োজনে বিশেষ সুবিধা দেয়া উচিত বলেও মনে করেন তিনি।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ