ঢাকা, বুধবার 21 December 2016 ০৭ পৌষ ১৪২৩, ২০ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

সুশাসনের ঘাটতি না থাকলে দেশের অর্জন অনেক বাড়তো

স্টাফ রিপোর্টার : বাংলাদেশের শাসন পরিস্থিতি নিয়ে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে বক্তারা বলেছেন, স্বাধীনতার পর বাংলাদেশের অর্জন অনেক। আর্থসামাজিক সবদিক থেকে বাংলাদেশ অনেক দেশের চেয়ে এগিয়েছে। কিন্তু দেশে যদি সুশাসনের ঘাটতি না থাকতো, তবে বাংলাদেশের অর্জন আরও অনেক বাড়তো। 

ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ের ব্র্যাক ইনস্টিটিউট অব গভর্ন্যান্স এন্ড ডেভেলপমেন্ট (বিআইজিডি) বাংলাদেশের শাসন পরিস্থিতি-২০১৬ নিয়ে শীর্ষক প্রতিবেদন প্রকাশ উপলক্ষে গতকাল মঙ্গলবার ব্র্যাক সেন্টারে আয়োজিত অনুষ্ঠানে তারা এ কথা বলেন। বিআইজিডির নির্বাহী পরিচালক সুলতান হাফিজের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আলোচনা করেন সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা অধ্যাপক ড. ওয়াহিদউদ্দিন মাহমুদ, ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশের (টিআইবি) নির্বাহী পরিচালক ড. ইফতেখারুজ্জামান প্রমুখ। অনুষ্ঠানে মূল প্রতিবেদন উপস্থাপন করেন ওয়াহিদ আবদুল্লাহ। 

বিশিষ্ট অর্থনীতিবিদ ড. ওয়াহিদউদ্দিন মাহমুদ বলেন, শুধু সরকারি প্রতিষ্ঠানের তথ্য দিয়ে সুশাসনের অবস্থা তুলে ধরার সুবিধা হলো তাতে নিরাপদ থাকা যায়। দেখলে মনে হয়, সরকারি ব্যাংকগুলোতে পর্যাপ্ত মূলধন আছে। কিন্তু জামানতের ঋণ আর সুদের ঋণের পার্থক্য দেখলেই অবস্থাটা বোঝা যায়। ব্যাংকিং খাতে তো সুশাসনের অভাব আছে। 

ওয়াহিদউদ্দিন বলেন, অর্থনৈতিক সামাজিক সূচকে বাংলাদেশের অর্জন অনেক। শিশুমৃত্যু ও মাতৃমৃত্যু কমেছে। এখন জটিল রোগের মৃত্যু কমাতে হবে। আর কিছু ক্ষেত্রে আন্তর্জাতিক মান অর্জন করতে হয়। বিমান উড্ডয়ন, রিজার্ভ ব্যবস্থাপনাসহ অনেক ক্ষেত্রে ত্রুটি থাকলে চলে না। আর প্রাতিষ্ঠানিক দক্ষতা ও সক্ষমতাও জরুরি।

ওয়াহিদউদ্দিন বলেন, সোনালী ব্যাংক থেকে হলমার্ক চার-পাঁচ হাজার কোটি টাকা চুরি করে নিয়ে গেল। এটি তো বস্তায় ভরে চুরি হয়নি। এসব ক্ষেত্রে কাগজপত্র ছিল। কাজেই প্রাগৈতিহাসিক পদ্ধতিতে কারা ফটকে গিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করে তদন্ত না করে এসব দেখা উচিত। প্রতিষ্ঠানগুলোর দক্ষতা ও সক্ষমতা বাড়ানো উচিত। 

ড. ইফতেখারুজ্জামান বলেন, সুশাসনের ঘাটতি না থাকলে বাংলাদেশের অর্জন আরও বাড়তো। সুশাসন প্রতিষ্ঠা করতে হলে দরকার রাজনৈতিক সদিচ্ছা। কাগজে-কলমে সুশাসনের অঙ্কের ঘাটতি নেই। কিন্তু বাস্তবতায় ঘাটতি দেখা যায়। এসব ক্ষেত্রে নাগরিক সমাজকেও সোচ্চার হতে হবে। তারা কতটা চাপ সৃষ্টি করতে পারছে, তার ওপর নির্ভর করে অনেক কিছু। তিনি বলেন, দেশে সুশাসন যতটুকু এসেছে, তার জন্য যেমন নাগরিকদের সফলতা আছে, তেমনি ব্যর্থতার দায়ও তাদের। আর সুশাসন প্রতিষ্ঠা করতে হলে মতপ্রকাশের স্বাধীনতা দরকার। 

বিআইজিডির সুলতান হাফিজ বলেন, ব্যাংকিং খাতে স্বচ্ছতার অভাব নেই। কোন ব্যাংকের পাঁচ হাজার, কোন ব্যাংকের দুই হাজার কোটি টাকা নেই। বাংলাদেশের মানুষ যেভাবে এক হয়ে যে শক্তি নিয়ে দেশ স্বাধীন করেছিল, সেই শক্তি যখনই এক হয়েছে, ভালো কিছু হয়েছে।

ওয়াহিদ আবদুল্লাহ জানান, এবারের প্রতিবেদনে গণতান্ত্রিক ও নির্বাচন খাত, পাবলিক সেক্টর, অর্থনৈতিক খাত ও স্বাস্থ্য খাতের অবস্থা তুলে ধরা হয়েছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ