ঢাকা, বৃহস্পতিবার 22 December 2016 ০৮ পৌষ ১৪২৩, ২১ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

কৃষি ব্যাংকের বাণিজ্যিক ঋণ বিতরণ বন্ধ করে দেয়া উচিত ----- অর্থমন্ত্রী

স্টাফ রিপোর্টার :  রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন কৃষি ব্যাংকের বাণিজ্যিক ঋণ তুলে দেয়া উচিত বলে মনে করেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত। তিনি বলেন, এখন কৃষি লোন ভালো করছে। কেউ আর এখন ব্যাংক থেকে কৃষি লোন নিয়ে মেরে খায় না। তাই শুধু কৃষি লোন রেখে বাণিজ্যিক লোন তুলে দেয়া উচিত।
গতকাল বুধবার সচিবালয়ে অর্থমন্ত্রীর কাছে তার নিজ কার্যালয়ে সরকারি বাংলাদেশ ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক লিমিটেড (বিডিবিএল) তাদের সর্বশেষ বছরে অর্জিত লভ্যাংশের চেক হস্তান্তকরে। এসময় বিডিবিএলের সঙ্গে এক বৈঠকে অর্থমন্ত্রী এ মন্তব্য করেন। লভ্যাংশ হিসেবে বিডিবিএল অর্থমন্ত্রীর কাছে ১০ কোটি টাকার চেক হস্তান্তর করেছে।
অর্থমন্ত্রী বলেন, আমাদের ব্যাংকিং খাত অনেক প্রসারিত হয়েছে। ব্যাংক প্রসার হয়ে অনেক ভালো হয়েছে। অনেকের টাকা পয়সা আছে, সেগুলো ব্যবহার করতে ব্যাংকিং ব্যবস্থা বাড়া উচিত। তিনি বলেন, ব্যাংকের সমস্যা আছে, প্রথম দিকে ব্যাংকিং নিয়মকানুন সঠিকভাবে পরিচালিত হয়নি। রাজনৈতিকভাবে মনোনয়ন সঠিক না হওয়ায় অনেকে শিল্পপতি হয়েছেন। তাদের কোনো অভিজ্ঞতা ছিল না। তার দায় এখনো আমরা বহন করছি। তবে নতুন প্রজন্ম এখন অভিজ্ঞ।
মন্ত্রী বলেন, ব্যাংক একটু বেশি বেশি হয়ে গেছে। এটা নিয়ে আমার বলার কিছু নেই। তবে আমাদেরও প্রস্তুত থাকতে হবে। ব্যাংকের আইন কানুন নিয়ে তৈরি থাকতে হবে। তিনি বলেন, আগে ব্যাংক মারা যেত। এখন আর যায় না। দেশের অবস্থা ভালো হচ্ছে, তাই সবখানেই ভালো হচ্ছে।
মুহিত বলেন, আমাদের সব ব্যাংকের অবস্থা ভালো নয়। বেসিক ব্যাংক সত্যিকার অর্থে খারাপ অবস্থার মধ্যে আছে। এটার জন্য আমাদের আরো কিছু প্রচেষ্টার প্রয়োজন। তবে যারা এখন দায়িত্বে আছেন, তারা চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। তারা অভিজ্ঞ, তারা উদ্ধারের চেষ্টায় আছেন, তবে একটু সময় লাগবে। সোনালী ব্যাংকে সমস্যা থাকবে, বড় ব্যাংক আস্তে আস্তে সমস্যা কাটবে।
কৃষি ব্যাংক প্রসঙ্গে মন্ত্রী বলেন, কৃষি ব্যাংককে উদ্ধার করতে হবে। এ ব্যাংকের বাণিজ্যিক লোন সম্পূর্ণ বন্ধ করে দেয়া উচিত। কৃষি লোনই তাদের কার্যক্রম হওয়া উচিত। এব্যাপারে আমাদের চিন্তা ভাবনা করতে হবে। এখন কৃষি লোন ভালো হচ্ছে, রিকোভারি ভালো। এখন আর কেউ কৃষি লোনের টাকা মেরে খায় না। আগে অনেকে মনে করতেন- সরকারি ব্যাংক থেকে টাকা পেয়েছি, এটা আর শোধ করতে হবে না, এখন আর কেউ এটা করে না।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ