ঢাকা, মঙ্গলবার 27 December 2016 ১৩ পৌষ ১৪২৩, ২৬ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

সাড়ে ৩ মাসেও পরিচয় মিলেনি ৮ লাশের

গাজীপুর সংবাদদাতা : প্রায় সাড়ে তিন মাস অতিবাহিত হলেও ডিএনএ টেস্টের রিপোর্ট না পাওয়ায় গাজীপুরে টঙ্গী বিসিক শিল্পনগরীতে ট্যাম্পাকো ফয়েলস কারখানায় ভয়াবহ বিস্ফোরণ ও অগ্নিকাণ্ডে ধ্বংস হওয়ার ঘটনায় নিহত ৮ জনের পরিচয় শনাক্ত হয়নি। অজ্ঞাত ওই ৮ লাশের দাবি জানিয়েছে দুর্ঘটনায় নিখোঁজ ৯ জনের পরিবার। সোমবার গাজীপুর জেলা প্রশাসকের কাছে ওই দুর্ঘটনায় নিখোঁজ চার শ্রমিকের স্বজনরা ঢামেক হাসপাতালের মর্গে রাখা অজ্ঞাত ৮ লাশের পরিচয় ডিএনএ পরীক্ষার মাধ্যমে নিশ্চিত করে লাশগুলো দ্রুত হস্তান্তরের জন্য দাবি জানিয়েছেন।
জানা গেছে, গাজীপুরে টঙ্গীর বিসিক নগরীতে বিএনপির সাবেক সাংসদ মকবুল হোসেনের মালিকানাধীন ট্যাম্পাকো ফয়েলস লিমিটেড কারখানায় গত ১০ সেপ্টেম্বর ভোরে ভয়াবহ বিস্ফোরণ ও অগ্নিকা-ের ঘটনা ঘটে। এতে ওই কারখানার বিশাল ভবনের অধিকাংশই ধ্বসে পড়ে বিশাল ধ্বংস স্তুপে পরিণত হয়। ওই ঘটনায় নিহত ৩৯ জনের লাশ ও কংকাল উদ্ধার করা হয়েছে। এ ঘটনায় নিখোঁজ রয়েছে ১ জন এবং আহত হন অন্ততঃ ৪০ জন। উদ্ধারকৃত লাশের মধ্যে ৩১ জনের পরিচয় পাওয়া গেছে। অপর ৮ জনের পরিচয় মিলেনি। পরিচয় শনাক্তের জন্য ৮জনের মরদেহ ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে রাখা হয়েছে। অজ্ঞাত ওই ৮ লাশের দাবি করছে নিখোঁজ ৯ জনের স্বজনরা। নিহত ৮ লাশের পরিচয় শনাক্ত করতে ওই নিখোঁজ ৯ জনের দু’জন করে মোট ১৮ স্বজনের কাছ থেকে নমুনা রেফারেন্স ডিএনএ (ডি অক্সিরাইবো নিউক্লিক এসিড) ইতোমধ্যে সংগ্রহ করা হয়েছে। ঘটনার প্রায় সাড়ে তিন মাস অতিবাহিত হলেও ডিএনএ টেস্টের রিপোর্ট চ’ড়ান্ত হয়নি। ডিএনএ টেস্টের চ’ড়ান্ত রিপোর্ট ও ওই ৮ লাশের পরিচয় শনাক্তের ব্যাপারে খোঁজ নিতে সোমবার নিখোঁজ চার শ্রমিকের পরিবারের সদস্যরা গাজীপুর জেলা প্রশাসকের সঙ্গে দেখা করেন। এসময় তারা দ্রুত ডিএনএ টেস্টের চ’ড়ান্ত রিপোর্ট প্রকাশ করে লাশ হস্তান্তরের জন্য আবেদন জানায়। এদের মধ্যে ট্যাম্পাকো ফয়েলস লিমিটেডের নিখোঁজ মেশিন অপারেটর আনিসুর রহমানের স্ত্রী শারমিন আক্তার শিল্পী, মাগুরা জেলার ছনপুর গ্রামের নিখোঁজ আজিম উদ্দিনের স্ত্রী পারভীন আক্তার, টাঙ্গাইল জেলার মির্জাপুর উপজেলার উপুলকি গ্রামের নিখোঁজ আবুল হোসেনের স্ত্রী নূরুন্নাহার, কুমিল্লা জেলার মুরাদনগর উপজেলার টঙ্কি গ্রামের বাসিন্দা নিখোঁজ মাসুম আহমেদের  স্ত্রী রূপালী বেগমসহ পরিবারের সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন। পরে তারা গাজীপুর প্রেসক্লাবে গিয়ে সাংবাদিকদের কাছেও তাদের দাবির কথা জানিয়েছেন।
এ ব্যাপারে গাজীপুর জেলা প্রশাসক এসএম আলম জানান, নিখোঁজ চার শ্রমিকের স্বজনরা সোমবার নিহতদের ডিএনএ পরীক্ষার ফলাফল জানতে কার্যালয়ে এসেছিলেন। তারা লাশ দ্রুত হস্তান্তরের অনুরোধ জানিয়েছে। ডিএনএ পরীক্ষার ফলাফল ও লাশ হস্তান্তরের বিষয়ে সংশ্লিষ্ট বিভাগের কর্মকর্তাদের কাছে খোঁজ নিয়ে ওই বিষয়ে তাদের পরে জানানো হবে বলে জানানো হয়েছে।
ওই দুর্ঘটনায় মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা টঙ্গী মডেল থানার এসআই সুমন ভক্ত জানান, কয়েকটি ধাপে পুলিশের সিআইডি’র ফরেনসিক বিভাগ ডিএনএ পরীক্ষা করছেন। ডিএনএ টেস্টের জন্য ২১ সেপ্টেম্বর নিখোঁজ  ৯ জনের পরিবারের দু’জন করে মোট ১৮ স্বজনের কাছ থেকে নমুনা রেফারেন্স রক্ত ও লালা নেয়া হয়েছে। ট্যাম্পাকোর ওই ঘটনায় নিহত ৩৯ জনের লাশ ও কংকাল উদ্ধার করা হয়েছে। এঘটনায় নিখোঁজ রয়েছে ১ জন এবং আহত হন অন্ততঃ ৪০ জন। উদ্ধারকৃত লাশের মধ্যে ৩১ জনের পরিচয় পাওয়া গেলেও অপর ৮ জনের পরিচয় মিলেনি। পরিচয় শনাক্তের জন্য এ ৮টি মরদেহ ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল মর্গে রয়েছে। এ ৮ জন বাদ দিলে নিখোঁজের তালিকায় থাকছে ৯ জনের নাম। নিখোঁজ এ ৯জনের স্বজনরাই এখন ওই ৮লাশের দাবি করছেন। পরিচয় শনাক্তের জন্য মর্গে রাখা ৮ জন নাম নিখোঁজ ৯ জনের তালিকায় থাকলে ওই তালিকায় আরো একজনের নাম অবশিষ্ট থাকবে। ফরেনসিক বিভাগের কর্মকর্তাদের বরাত দিয়ে ওই পুলিশ কর্মকর্তা বলেন, তাদের ডিএনএ পরীক্ষার ফল পেতে জানুযারির শেষ সপ্তাহ পর্যন্ত সময় লাগতে পারে।
এদিকে, ট্যাম্পাকো ফয়েলস লিমিটেডের দুর্ঘটনায় নিখোঁজ মেশিন অপারেটর আনিসুর রহমানের সাত বছর বয়সের শিশু শিহাব গাজীপুর জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে এসে কান্না জড়িত কণ্ঠে বলে, ‘আমি তো আমার বাবার লাশের পাশে বসে কাঁদতেও পারলাম না। তার এ কথা শুনে উপস্থিত সবার চোখে জল আসে। পরিবেশ ভারী হয়ে উঠে। এসময় তার সঙ্গে মা শারমিন আক্তার শিল্পী উপস্থিত ছিলেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ