ঢাকা, শুক্রবার 30 December 2016 ১৬ পৌষ ১৪২৩, ২৯ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

হারের জন্য ব্যাটসম্যানদের ব্যর্থতাকেই দুষলেন মাশরাফি

স্পোর্টস রিপোর্টার : ভালো সুযোগ পেয়েও নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ওয়ানডে সিরিজের দ্বিতীয় ম্যাচটিতে ব্যাটসম্যানদের ব্যর্থতায় বাজেভাবে হারতে হয়েছে বাংলাদেশকে। এই ম্যাচে হারের কারণে সিরিজটিও হাতছাড়া হয়েছে বাংলাদেশ দলের। ম্যাচে এমনভাবে হারায় অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজাও ভীষণ হতাশ। আর এই হারের পেছনে তিনিও ব্যাটসম্যানদের ব্যর্থতাকেই দুষলেন। প্রথমে ব্যাট করে নিউজিল্যান্ড সব উইকেট হারিয়ে ২৫১ রান করে। টাইগার বোরারদের সামনে বড় স্কোর গড়তে পারেনি স্বাগতিকরা। জবাবে ব্যাট করতে  নেমে ব্যাটসম্যানদের ধারাবাহিক আসা যাওয়ায় বাংলাদেশের ইনিংস ১৮৪ রানেই  থেমে যায়। ফলে বোলারদের এনে দেয়া সুযোগটা কাজে লাগাতে পারনি বাংলাদেশ। জয়ের লক্ষ্যটা সহজই করে দিয়েছিলেন মাশরাফি-সাকিব-তাসকিনরা। কিন্তু ব্যাটসম্যানদের ধারাবাহিক আসা যাওয়ার মিছিলে শেষ পর্যন্ত ম্যাচটিতে হারে বাংলাদেশ। তবে ২৫২ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে কিন্তু শুরুটা ভালোই করেছিল তামিমরা। ১ উইকেটে ১০৫ রান করে জয়ের সম্ভাবনাই জাগিয়ে তুলেছিল তারা। কিন্তু শেষ ৭৯ রান করতেই দল বাকি ৯ উইকেট হারিয়ে বসে। আর এজন্য ব্যাটসম্যানদেরই দায়ী করলেন দলপতি মাশরাফি। মাশরাফি বলেন, ‘ব্যাটসম্যানরা যেভাবে ব্যাট করেছেন অবশ্যেই তা হতাশার। ১০০ রানে ১ উইকেট থাকার পর এভাবে নয় উইকেট একসঙ্গে হারানোটা সত্যিই হতাশার। আমরা আগেই থেকেই জানতাম নিউজিল্যান্ডে বাউন্স, সুইং থাকতে পারে। তবে উইকেট আজ বেশ ফ্লাট ছিল। আমার মনে হয়, আমাদের ব্যাটসম্যানরা তাদের পরিকল্পনা মাঠে বাস্তবায়ন করতে পারেনি। আর সে কারণেই আমরা আউট হয়ে গিয়েছি।’ তবে এই হারের হতাশা বাংলাদেশ দ্রুতই কাটিয়ে উঠবে বলে আশা করছেন মাশরাফি। আর হোয়াইটওয়াশের লজ্জায়ও পড়তে হবে না দলকে। এমনটাই আশা ব্যক্ত করেছেন তিনি। ব্যাটিংয়ে শেষটায় গিয়ে তালগোল পাকানো বাংলাদেশের জন্য নতুন কিছু নয়। গত কিছু দিনে কয়েকবারই ব্যাটিং ধসের চিত্র দেখা গেছে। এর সর্বশেষটিতে নিউ জিল্যান্ডের বিপক্ষে ৭৯ রানে শেষ ৯ উইকেট হারিয়েছে মাশরাফি বিন মুর্তজার দল। মাশরাফি মনে করেন, ব্যাটিংয়ে তাড়াহুড়াতেই সুযোগ হাতছাড়া হয়েছে। তিনি বলেন, ‘উইকেট উপহার দেয়া হয়নি। ব্যাটসম্যানরা রানের জন্য বেশি তাড়াহুড়া করেছে। ব্যাটসম্যানরা হয়ত আরও ভালো বলতে পারবে।’ জয়ের জন্য ওভার প্রতি খুব বেশি রান প্রয়োজন ছিল না। হাতে উইকেটও ছিল যথেষ্ট। নেলসনের স্যাক্সটন ওভালের পিচ অস্বাভাবিক কোনো আচরণ করছিল না।  কোনো বোলারকে সেভাবে হুমকিও মনে হচ্ছিল না। ভুল বোঝাবুঝিতে সাব্বির রহমানের রান আউটের পর ব্যাটসম্যানদের আরও ধৈর্য্য ধরা দরকার ছিল বলে মনে করেন অধিনায়ক। তিনি বলেন, ‘ইমরুল ও সাব্বির যেমন উইকেটে থেকে তার পরে ভালো খেলছিল। এখানে ১০-১৫ টা বল দেখে তার পর স্বাভাবিক খেলা খেললে ভালো হতো। উইকেট উপহার দিয়ে আসার চেয়ে আমি বলব, আরেকটু ধৈর্য্য ধরে থিতু হয়ে তার পর স্বাভাবিক ব্যাটিং করা উচিত ছিল।’ মাশরাফি মনে করেন, থিতু হওয়া যে কোনো এক জন ব্যাটসম্যানের বড় ইনিংস খেলা দরকার ছিল। তিনি বলেন, ‘যারা পরে এসেছে ব্যাটিংয়ে, সবাইকে প্রথম থেকে শুরু করতে হয়েছে। রিয়াদ দারুণ একটি বলে আউট হয়েছে। আমাদের ইমরুল বা সাব্বিরের একটা বড় ইনিংস খেলা উচিত ছিল। কারণ, ওরা থিতু হয়ে গিয়েছিল। নতুনদের জন্য কাজটা কঠিন। শূন্য থেকে শুরু করতে হতো। সেট ব্যাটসম্যানদের কেউ কাজটা করলে ভালো হতো।’

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ