ঢাকা, রোববার 01 January 2017, ১৮ পৌষ ১৪২৩, ২ রবিউস সানি ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

দেশবাসীকে সঙ্গে থাকার আহ্বান মাশরাফির

স্পোর্টস রিপোর্টার : নিউজিল্যান্ড সফরে হোয়াইটওয়াশ হয়েছে বাংলাদেশ। তিন ম্যাচে ওয়ানডে সিরিজের কোন ম্যাচেই লড়াই করতে পারেনি টাইগাররা। ব্যাটসম্যানদের চরম ব্যর্থতায় নিজেদের অসহায় করেই ম্যাচে হেরেছে বাংলাদেশ দল। তারপরও নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ওয়ানডে সিরিজে হোয়াইটওয়াশ হওয়ার পর দেশবাসীকে দলের পাশে থাকার আহবান জানালেন বাংলাদেশের অধিনায়ক মাশরাফি মর্তুজা। গতকাল তিনি বলেন, ‘আমরা এখানে ভালো করতে পারিনি ঠিক, কিন্তু গত দেড় বছর ধারাবাহিকভাবে অনেক ভালো খেলেছি।  সামনে আরও অনেক খেলা আছে।  দেশবাসী  যেমন আমাদের বিজয়ে সঙ্গে থাকেন, পরাজয়ের সময়ও সঙ্গে থাকলে এই খারাপ সময়টা আমরা সহজে পার করতে পারব। ’এই হারের ব্যাপারে কোনও অজুহাত দাঁড় করতে চাননি মাশরাফি।  তিনি বলেন,‘যেভাবে হেরেছি এর কোনও ব্যাখ্যা নেই।  হারের ব্যাখ্যাটা দেওয়া অনেক কঠিন।  ড্রেসিং রূমে অনেকে বসে আমরা ভাবছিলাম শেষ ম্যাচে রানটা অনেক বড় হবে।  কিন্তু বারবার যা ঘটছে এরজন্যে খেলোয়াড়দের মনোসংযোগের ঘাটতিটাই দায়ী। ’ওয়ানডে সিরিজে হোয়াইটওয়াশ হওয়া নিয়ে বাংলাদেশ দলের অধিনায়ক বলেন, ‘উপমহাদেশের দলগুলো নিউজিল্যান্ডের কন্ডিশনে ভালো করতে পারে না।  কিন্তু দ্বিতীয় ওয়ানডেতে আমরা জয়ের একটি সম্ভাবনা তৈরি করেছিলাম।  কিন্তু সে সুযোগ আমরা কাজে লাগাতে পারিনি।  অথচ আমাদের সে সামর্থ্য নেই তা কেউ বলবে না।  মুশফিকের চোটের পর তার জায়গায় নুরুল হাসান ভালো খেলছেন।  কিন্তু মুশফিকের অনুপস্থিতিতে দলের সবকিছু যেভাবে ঐক্যবদ্ধভাবে এগিয়ে নিয়ে যাওয়া দরকার ছিল তা পারেনি বাংলাদেশ। ’ ২৮০-২৯০ করতে পারলে জয়ের সম্ভাবনা তৈরি হতো মনে করেন অধিনায়ক মাশরাফি।  মাশরাফি বলেন, ‘এমন শুরু আমরা এর আগে সচরাচর করতে পারিনি।  কিন্তু আজও মিডল অর্ডারের ব্যর্থতায় পারা  গেল না।  খেলোয়াড়দের মনোসংযোগের ঘাটতি ছাড়া এরজন্যে আর কাকে দায়ী করা যেতে পারে?’ দলের সিনিয়র ক্রিকেটারদের ভুমিকা নিয়ে মাশরাফি বলেন,‘ব্যক্তিগতভাবে কেউ কেউ হয়তো ভালো করছে।  কিন্তু তা দলের পক্ষে কার্যকর ভূমিকা পালন করতে পারছে না।  সাকিব প্রথম ম্যাচে ভালো খেলেছে।  এই ম্যাচে ভালো খেলেছে তামিম।  ইমরুল পরপর দুই ম্যাচ ভালো খেলেছে। কিন্তু এরকিছুই দলের জয়ের জন্য কার্যকর হয়নি। ’ মাহমুদউল্লাহর দুর্ভাগ্য গত তিন ম্যাচে তিনি ভালো করতে পারেননি।  সৌম্য ফর্মে থাকলে হয়তো এখানে এখনও ভালো  খেলতে পারতো মনে করেন মাশরাফি, ‘মিডল অর্ডার যেভাবে ধসে  গেছে সেই কারণে আমরা আমাদের কোনও সাফল্য ধরে রাখতে পারিনি। ’ মাশরাফি আরো বলেন,‘গত তিনটি ম্যাচে দেখা গেছে আমরা একবার ব্যাটিং ভালো করলে পরেরবার বোলিং খারাপ করছি।  ক্রাইস্টচার্চে ওই বড় চাপের মধ্যে থেকেও আমাদের ব্যাটিং ভালো হয়েছিল। নেলসন দ্বিতীয় ম্যাচটা আমাদের আয়ত্তের মধ্যে থাকা স্বত্ত্বেও জিততে পারিনি।  ব্যাটিংয়ের সময় দেখা গেল আমরা শুরুটা করলাম ভালো।  কিন্তু ওই ভালো অবস্থান থেকে দলকে টেনে নিয়ে যেতে পারেনি মিডল অর্ডার। ’ উইকেট-কন্ডিশন এসব বিষয়ে মাশরাফি বলেন, ‘বিশ্বকাপের উইকেট আইসিসির চাহিদা অনুসারে ব্যাটিং উইকেট হয়। আমাদের গত বিশ্বকাপের শুরুটা ভালো ছিল।  দলের খেলোয়াড়রা সবাই ভালো ফর্মে ছিল।  এবারের নেলসনের উইকেট অনেকটা বিশ্বকাপের মতো ছিল।  কিন্তু এখন আর এসব বলে কী লাভ।  আমরা খারাপ  খেলেছি। ’ তবে ভুলগুলো থেকে শিখে এগোতে চান মাশরাফি।  মাশরাফি বলেন, ‘আগামীতে এসব থেকে শিক্ষা নিয়ে ভালো করতে হবে। ’ দলে তানবীরের অন্তর্ভুক্তি আর তার থেকে প্রাপ্তি সম্পর্কে মাশরাফি বলেন, ‘তানবীর চেষ্টা করেছে। হয়তো সাফল্য পায়নি। এই কন্ডিশন তার জন্যে কঠিন ছিল।’ কাউকে অভিযোগ দিয়ে বা অভিযুক্ত করেতো একটা টিমকে এগিয়ে নেওয়া যায় না। যেখানে সামনে আমাদের অনেক পারফর্ম করার আছে।  সামনে কীভাবে ভালো করা যায় সেই  চেষ্টাটি চালিয়ে নেওয়াই এখন থেকে আমাদের পরবর্তী লক্ষ্য।’

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ