ঢাকা, বৃহস্পতিবার 05 January 2017, ২২ পৌষ ১৪২৩, ০৬ রবিউস সানি ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

ফিলিস্তিনী হত্যার অভিযোগে বিচারের মুখোমুখি ইসরাইলী সৈনিক

৪ জানুয়ারি, বিবিসি : আহত ফিলিস্তিনীকে হত্যার অভিযোগে বিচারের মুখোমুখি হতে হচ্ছে ইসরাইলী সৈনিক সার্জেন্ট ইলোর আজারিয়াকে।
সামরিক আইন অনুযায়ী, ওই সৈনিকের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করা হয়। আর এর পরিপ্রেক্ষিতে বিচারের মুখোমুখি হতে যাচ্ছেন ২০ বছর বয়সী ইসরাইলী সৈনিক ইলোর আজারিয়া। ওই সৈনিকের বিরুদ্ধে অভিযোগ, তিনি ২০১৬ সালের মার্চে অধিকৃত পশ্চিম তীরের হেবরনে ২১ বছর বয়সী আহত ফিলিস্তিনী তরুণ আবদুল ফাতাহ আল-শরীফকে মাথায় গুলী করে হত্যা করেন।
ইসরাইলে ওই সৈনিকের বিচার নিয়ে বিভক্ত মত পাওয়া গেছে। উগ্রপন্থীরা ওই ফিলিস্তিনী তরুণকে হত্যা করাকে ন্যায্যতা দিচ্ছে। অপরদিকে, অনেকেই আবার তাকে বিচারের মুখোমুখি করার পক্ষে রায় দিচ্ছেন।
ফিলিস্তিনী ও ইসরাইলী মানবাধিকার কর্মীরা জানিয়েছেন, গত বছর জুড়ে ইসরাইলী বাহিনীর বিরুদ্ধে ফিলিস্তিনীরা ছুরি দিয়ে আঘাত করার বহু ঘটনা সামনে আসে। কিন্তু এসব ঘটনায় যে ফিলিস্তিনীদের ওপর অত্যধিক বল প্রয়োগ করা হয় এবং ফিলিস্তিনিদের বিচারবহির্ভুত হত্যা করা হয়, এই ঘটনা তারই প্রমাণ।  এক গবেষণায় দেখা যায়, ইসরাইলীরা মনে করেন, হামলাকারীকে গুলী করাটা আইনসম্মত। আর এজন্য ওই সৈনিকের পক্ষে বিশাল সমাবেশ হতেও দেখা যায়। দোষী প্রমাণিত হলে আজারিয়ার ২০ বছরের কারাদ- হতে পারে। সামরিক আইনজীবীরা জানিয়েছেন, সার্জেন্ট আজারিয়া আইন ভঙ্গ করে মাটিতে পড়ে থাকা একজন আহত হামলাকারীকে গুলী করে হত্যা করে।
ঘটনার বিবরণে জানা যায়, গত বছরের ২৪ মার্চ শরীফ এবং রমিজ আজিজ আল-কাসরাওই নামক দুই ফিলিস্তিনী যুবক এক ইসরাইলী সৈনিককে ছুরিকাহত করে। পরে ইসরাইলী বাহিনী গুলী চালালে রমিজ আল-কাসরাওই নিহত হন এবং শরীফ গুরুতর আহত হন। ভিডিও ফুটেজে দেখা যায়, মাটিতে পড়ে গেলেও শরীফ তখনও বেঁচে ছিলেন। পরে সার্জেন্ট আজারিয়া তার মাথায় গুলী করে হত্যা করেন।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ