ঢাকা, বুধবার 11 January 2017, ২৮ পৌষ ১৪২৩, ১২ রবিউস সানি ১৪৩৮ হিজরী
Online Edition

বাংলাদেশে গণতন্ত্রকে বাক্সবন্দী করে রেখেছে সরকার -ড. মোশাররফ

গতকাল মঙ্গলবার জাতীয় প্রেস ক্লাব মিলনায়তনে স্বাধীনতা ফোরাম আয়োজিত ১/১১-এর ষড়যন্ত্র এবং বর্তমান প্রেক্ষাপট শীর্ষক আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন বিএনপির স্থায়ী কমটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন -সংগ্রাম

স্টাফ রিপোর্টার: ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেছেন, গণতন্ত্র হত্যা দিবসের সমাবেশ করার অনুমতি না দিয়ে সরকার একটি রাজনৈতিক দল হিসেবে বিএনপিকে সাংবিধানিক অধিকার থেকে বঞ্চিত করেছে। বাংলাদেশে গণতন্ত্রকে বাক্সবন্দী করে রেখেছে।

গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে জাতীয় প্রেস ক্লাবে এক আলোচনা সভায় তিনি এ কথা বলেন। ‘১/১১ ষড়যন্ত্র এবং বর্তমান প্রেক্ষাপট’ শীর্ষক এই সভার আয়োজন করে ‘স্বাধীনতা ফোরাম’ নামের একটি সংগঠন। সংগঠনের সভাপতি আবু নাসের মোহাম্মাদ রহমত উল্লাহর সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় আরো বক্তব্য রাখেন বিএনপির যুগ্ম-মহাসচিব সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, প্রশিক্ষণ বিষয়ক সম্পাদক এবি এম মোশাররফ হোসেন, নির্বাহী কমিটির সদস্য নিপুন রায় চৌধুরী, সাবেক ছাত্রনেতা কাজী মনিরুজ্জামান মনির প্রমুখ। 

খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেন, ৭ জানুয়ারি সমাবেশের অনুমতি না দিয়ে সরকার বিএনপিকে সাংবিধানিক অধিকার থেকে বঞ্চিত করেছে। সমাবেশের অনুমতি চাইলেও আমাদেরকে অনুমতি দেয়া হয়নি। অথচ তারা নিজে সমাবেশ করেছে। তথাকথিত গৃহপালিত বিরোধীদলকে (জাতীয় পার্টি) অনুমতি দিচ্ছে।

বিএনপিকে সমাবেশের অনুমতি না দিলেও একই স্থানে আওয়ামী লীগ এবং জাতীয় পার্টি সমাবেশের আয়োজন করারও সমালোচনা করেন বিএনপির এই নীতি নির্ধারক। ৫ জানুয়ারি দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনের দ্বারা দেশের গণতন্ত্রকে ‘বাক্সবন্দী করা হয়েছে’ বলেও মন্তব্য করেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির এই সদস্য।

দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচন বর্জন করা বিএনপি দিনটিকে ‘গণতন্ত্র হত্যা দিবস’ পালনের ডাক দিয়ে রাজধানীর সোহরাওয়ার্দীতে সমাবেশের কর্মসূচি দেয়। তবে শেষ পর্যন্ত সমাবেশের অনুমতি পায়নি দলটি। যদিও সেখানে জাতীয় পার্টি এবং আওয়ামী লীগ সমাবেশের আয়োজন করেছে।

বিএনপি এক-এগারোকে যেভাবে স্মরণ করে, ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারিকে একইভাবে স্মরণ করে। কারণ এদিন দুটিতে বাংলাদেশের গণতন্ত্রকে বাক্সবন্দী করা হয়েছে, বলেন বিএনপির এই নীতি নির্ধারক।

 খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেন, সরকার জনগণ এবং গণতন্ত্রকে ভয় পায় বলেই ৭ নবেম্বর এবং ৫ জানুয়ারির কথা শুনলে তাদের বুকের মধ্যে কম্পনের সৃষ্টি হয়। মঈনউদ্দীন-ফখরুদ্দীনের সরকার ছিল শেখ হাসিনার ষড়যন্ত্রের ফসল। আর তারাই ষড়যন্ত্র করে শেখ হাসিনাকে ক্ষমতায় বসিয়েছে।

অনলাইন আপডেট

আর্কাইভ